1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
ছবি: Fotolia/Paul Stock

টুপির ফ্যাশন

১৫ জুলাই ২০১২

টুপি বলতেই নেহেরু ক্যাপ, ঢাকার মখমল বা জরির টুপির কথা মনে পড়ে৷ চোখের সামনে ভেসে ওঠে ব্রিটিশ রাজ-পরিবারের রানি বা ডাচেস’দের ছবি৷ কিন্তু জার্মানিতেও যে টুপি একটা ‘ফ্যাশন-সিম্বল’ সে কথা কে ভেবেছিল?

https://p.dw.com/p/15XyJ

ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ এ বছর ৮৬'তে পা দিলেন৷ অথচ পোশাকের ব্যাপারে তিনি এখনও অত্যন্ত সচেতন৷ সব সময়ই তাঁর পরনে পোশাকের সঙ্গে মানানসই টুপি৷ নানা রঙের, নানা আকৃতির৷ কিন্তু এ'তো গেল রাজা-রাজড়াদের ব্যাপার-স্যাপার৷

বাহারি রঙের এবং ডিজাইনের টুপির এখন সর্বত্র বিচরণ৷ হালফ্যাশনের ছেলে-মেয়েদের জন্য এটির আজ জুড়ি মেলা ভার৷ আর শুধু ইংল্যান্ডে নয়, জার্মানিতেও টুপির কদর বাড়ছে ক্রমশ৷ লিন্ডেনবুর্গ'এর বিখ্যাত টুপি মিউজিয়ামের কর্মকর্তা মানফ্রেড রোল'এর কথায়, ‘‘আজকের ফ্যাশন-দুরস্ত তরুণীদের মধ্যে ব্রিটেনের রাজকীয়তার যেন একটা ছাপ পড়েছে৷ বিশেষ করে প্রিন্স উইলিয়াম এবং কেট মিডলটন'এর বিয়ের পর থেকে৷''

অবশ্য শুধু মেয়েরা নয়, পুরুষদের মধ্যেও টুপির প্রতি আকর্ষণ কিছু কম না৷ বর্তমানে ‘কাস্টম মেড' বা অর্ডার দিয়ে হাতে বানানো টুপির চাহিদা জার্মানিতে বেড়েই চলেছে৷ এই যেমন, একটি ‘পানামা হ্যাট'-এর দাম এ মুহূর্তে প্রায় ৬২০ ডলার৷ কিন্তু আজ-কাল সেগুলোও বিক্রি হচ্ছে নিমেষের মধ্যে৷

মিউজিয়ামে যোগ দেয়ার আগে প্রায় ৩৩ বছর মহিলাদের একটি টুপির দোকানে কাজ করেছেন মানফ্রেড রোল৷ সেই অভিজ্ঞতা থেকেই তিনি বললেন, ‘‘সব ধরনের টুপি সবাইকে মানায় না৷ টুপির আকৃতি এবং রঙ বাছাই করতে হয় নিজের ত্বকের রঙ এবং মুখাকৃতি অনুযায়ী৷ সবাই সেটা জানে না৷ এরপরও অনেকেই হয়ত বলবে যে, জার্মানিতে এখন টুপির পুনর্জাগরণ ঘটেছে৷ কিন্তু আমার মনে হয়, কথাটা ঠিক নয়৷ আপনি ১৯২০ অথবা ১৯৩০ সালের কথা চিন্তা করুন৷ সে সময় কোনো সম্ভ্রান্ত ব্যক্তিকে টুপি ছাড়া রাস্তায় দেখা যেত কি? অথবা মধ্যযুগীয় কোনো যাজক? তাঁদের মাথার সেই চৌকোনো টুপির কথা কি মনে পড়ে না? আসলে টুপি এমন একটি ফ্যাশন-উপকরণ যা মানুষ সারা বছর ব্যবহার করতে পারে৷ পুরোনো ছবি, যেমন অলিভার হার্ডি'র যে কোনো ছবির কথা ধরুন৷ সেখানেও দেখবেন টুপি কতটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে৷''

বলা বাহুল্য, আজ-কাল নানা ধরনের টুপি বাজারে আসছে যা মানুষকে সূর্যের রশ্মি থেকে রক্ষা করে, আরাম দেয়, দেয় স্থায়িত্ব এবং সর্বোপরি ফ্যাশনে যোগ করে এক নতুন আঙ্গিক৷ আর তাই, ‘অ্যাসকট', ‘জেমস লক' বা ‘ফ্যাসিনাটর'-এর মতো কোম্পানিগুলোর মুনাফা আজ আকাশচুম্বী৷ তবে জার্মানিতে টুপির ফ্যাশন আবারো সত্যিকার অর্থে ফিরিয়ে আনতে টুপি পড়া শুরু করতে হবে চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল'কে৷ মানফ্রেড রোল'এর মতে, ‘‘ম্যার্কেল'কে বড় নয়, ছোট গোল টুপি মানাবে ভালো৷ অর্থাৎ রাজনৈতিক অঙ্গনে বড় বড় কাজ করলেও, টুপির বেলায় তাঁর ছোট টুপিই বেছে নেয়া উচিত৷''

ডিজি / এসবি (ডিপিএ, রয়টার্স)

স্কিপ নেক্সট সেকশন এই বিষয়ে আরো তথ্য
স্কিপ নেক্সট সেকশন সম্পর্কিত বিষয়

সম্পর্কিত বিষয়

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

চেনের জন্য এই স্কুলের শুরুটা ততটা সহজ ছিল না৷ তাদেরকে শেখাতে, ক্লাসে শৃঙ্খলা বজায় রাখতে বেশ বেগ পেতে হয়েছে৷ কিন্তু ধীরে শিক্ষার্থীরা তার ও একে অন্যের সঙ্গে যোগাযোগ করতে শিখে৷ চেনের মতে, "তাদের জন্য অন্যদের সাথে স্বাভাবিকভাবে যোগাযোগ করা, প্রথাগত পদ্ধতিতে কাজকর্ম করা কঠিন, কিন্তু তারা একজন শিল্পী হয়ে জীবিকা নির্বাহ করতে সক্ষম হবে৷ আমি মনে করি সংগীত তাদের ভাষা হয়ে উঠতে পারে৷’’

সংগীত যাদের ভাষা

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান