টিকা পৌঁছে গেছে ৬৪ জেলায় | বিষয় | DW | 04.02.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

টিকা পৌঁছে গেছে ৬৪ জেলায়

দেশের ৬৪ জেলায় করোনার টিকা পৌঁছে গেছে৷ ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে পুরোদমে টিকা দেয়া শুরু হচ্ছে৷ তবে প্রথম পর্যায়ে সব টিকা দেয়া হবে, না অর্ধেক রেখে দেয়া হবে তা নিয়ে আছে সিদ্ধান্তহীনতা৷

সরকারের হাতে এখন অক্সফোর্ডের ৭০ লাখ টিকা আছে৷ এরমধ্যে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের ৫০ লাখ এবং ভারত সরকারের উপহারের ২০ লাখ৷ অক্সফোর্ডের এই মোট ৭০ লাখ টিকা দিয়ে ব্যাপকভিত্তিক টিকা কার্যক্রম শুরু হচ্ছে৷ আরো দুই কোটি টিকা আসবে সেরাম থেকে পর্যায়ক্রমে৷

এদিকে কোয়ালিশন ফর এপিডেমিক প্রিপেয়ার্ডনেস ইনোভেশনসের প্ল্যাটফর্ম কোভ্যাক্স থেকে জুন মাস নাগাদ বাংলাদেশ আরো এক কোটি ২৭ লাখ ৯২ হাজার ডোজ টিকা পাবে বাংলাদেশ৷ এই টিকাও অক্সফোর্ডের বলে জানা গেছে৷ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা টিকা বন্টনের যে তালিকা প্রকাশ করেছে তাতে বাংলাদেশের জন্য ওই পরিমান ভ্যাকসিনের কথা বলা হয়েছে৷ সেখানে বাংলাদেশকে অক্সফোর্ডের টিকা দেয়া হবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে৷ প্রতি ডোজ টিকা তিন ডলার দামে দেবে তারা৷

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক ও স্পোকসম্যান ডা. নাজমুল ইসলাম জানান, ‘‘কোভ্যাক্স-এর ভ্যাকসিন আসবে এটা নিশ্চিত৷ তবে আমরা ওই ভ্যাকসিন হাতে না পাওয়া পর্যন্ত ওটা ধরে কোনো প্ল্যান করছি না৷ হাতে পাওয়ার পর আমরা নিশ্চিত হব৷ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যে আমাদের ভ্যাকসিন দিচ্ছে তা আমারও তাদের ওয়েবসাইটে দেখেছি৷''

ফেব্রুয়ারিথেকেসারাদেশেভ্যাকসিন:

দেশের ৬৪ জেলাতে করোনার টিকা পৌঁছে গেছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর৷ এই কাজে ১৪ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী এবং ২৮ হাজার ভলান্টিয়ারকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে৷ ঢাকা শহরে ৪৩টি হাসপাতালে ৩৫৪টি সেন্টারে ভ্যাকসিন দেয়া হবে৷ আর সারাদেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সেন্টার প্রস্তুত করা হয়েছে৷

প্রথম পর্যায়ে ঠিক কত জনকে টিকা দেয়া হবে তা এখনো চূড়ান্ত হয়নি৷ তবে ৫০ লাখের বেশি মানুষের একটি প্রাথমিক তালিকা করা হয়েছে যার অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা পাবেন৷ ডা. নাজমুল ইসলাম জানান, ‘‘তাদের মধ্য থেকে কতজন শেষ পর্যন্ত রেজিষ্ট্রেশন করেন তার ওপর চূড়ান্ত তালিকা হবে৷ আর টিকা সেন্টারও প্রয়োজনে বাড়ানো হবে৷''

৭ ফেব্রুয়ারি টিকা দেয়া শুরু হলে প্রথম পর্যায়ে তারা মাসে ১৪ দিন এই টিকা দেবেন বলে  জেলা সিভিল সার্জনদের সাথে কথা বলে জানা গেছে৷ যিনি যে তারিখে টিকা নেবেন তার সাথে মিলিয়ে ২৮ দিন পর দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হবে৷ কুড়িগ্রাম জেলার সিভিল সার্জন ডা. হাবিবুর রহমান জানান, তার জেলায় ৬০ হাজার ভ্যাকসিন পৌঁছেছে৷ এরমধ্যে ৩০ হাজার ভ্যাকসিন প্রথম পর্যায়ে দিতে বলা হয়েছে৷ বাকি ৩০ হাজার দ্বিতীয় ডোজের জন্য রাখতে বলা হয়েছে৷ তিনি জানান, ‘‘প্রথমে সব ভ্যাকসিন দেয়ার কথা বলা হলেও এখন আমাদের অর্ধেক বা ৫০ ভাগ ভ্যাকসিন রেখে দিতে বলা হয়েছে৷''

অডিও শুনুন 03:07

‘‘কোভ্যাক্স-এর ভ্যাকসিন আসবে এটা নিশ্চিত’’: নাজমুল ইসলাম

কুড়িগ্রাম জেলার সদর হাসপাতাল ছাড়াও আটটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-এ টিকা দেয়া হবে৷ উপজেলায় চার জন এবং জেলায় ২০ জন স্বাস্থ্যকর্মী কাজ করবেন৷

জানা গেছে জনসংখ্যা অনুপাতে দেশের জেলাগুলোতে এই ভ্যাকসিন পাঠানো হয়েছে৷ বেক্সিমকো জেলা সিভিল সার্জনের অফিস পর্যন্ত এই টিকা পৌঁছে দিয়েছে৷ এখন সেগুলো রেফ্রিজারেটরে সংরক্ষণ করা হচ্ছে৷ উপজেলা পর্যায়ে ভ্যাকসিন দেয়ার  সময় আইসব্যাগে করে ভ্যাকসিন ক্যারিয়ারে পাঠানো হবে৷

ঢাকার অদূরে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রথম কিস্তিতে এক লাখ ৫৬ হাজার ডোজ টিকা পেয়েছে বলে জানান জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. ইমতিয়াজ৷ তিনি জানান, এখানো তালিকা চূড়ান্ত হয়নি৷ জেলা থেকে একটি অগ্রাধিকার তালিকা আগেই স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে৷ যারা রেজিষ্ট্রেশন করবেন তারা পাবেন৷ তিনিও জানান, ‘‘আগে নির্দেশনা ছিলো সব ভ্যাকসিন দিয়ে দেয়ার৷ তবে এখন সিদ্ধান্ত পরিবর্তন হচ্ছে৷''

অডিও শুনুন 03:11

‘‘এখন আমাদের অর্ধেক ভ্যাকসিন রেখে দিতে বলা হয়েছে’’: হাবিবুর রহমান

রংপুরে পাঠানো হয়েছে দুই লাখ চার হাজার ডোজ ভ্যাকসিন৷ জেলা সিভিল সার্জন ডা. হিরম্ব কুমার রায় জানান, ‘‘আমরা এর অর্ধেক টিকা প্রথম পর্যায়ে দেব৷ গতকাল(বুধবার) নির্দেশনা এসেছে বাকি অর্ধেক রেখে দিতে হবে দ্বিতীয় ডোজের জন্য৷''

সিভিন সার্জনেরা নতুন নির্দেশনায় প্রথম ধাপে অর্ধেক টিকা রেখে দেয়ার কথা বললেও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র ডা. নাজমুল ইসলামের কাছে এব্যাপারে কোনো তথ্য নাই৷ তিনি বলেন, ‘‘আমার কাছে সরকারি যে নির্দেশনা আছে তাতে সব টিকা দেয়ার কথাই বলা আছে৷ এর বাইরে নতুন কোনো সিদ্ধান্তের কথা আমার জানা নাই৷''

এনিয়ে কথা বলার জন্য চেষ্টা করেও স্বাস্থ্য সচিব ও স্বাস্থ্য মহাপরিচালকে পাওয়া যায়নি৷ প্রসঙ্গত, গত ২৭ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই টিকা কর্মসূচির উদ্বোধন করেন৷ ওই দিন বিভিন্ন পেশা ও শ্রেণির ২৭ জনকে টিকা দেয়া হয়৷ পরের দিন দেয়া হয় ঢাকার পাঁচ শতাধিক স্বাস্থ্যকর্মীকে৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়