1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
জাপানের উচ্চ-বিদ্যালয়গুলি এখনও অত্যন্ত রক্ষণশীল
জাপানের উচ্চ-বিদ্যালয়গুলি এখনও অত্যন্ত রক্ষণশীলছবি: Makoto Kondo/AP/picture alliance

ছাত্র-ছাত্রীদের চুলের স্টাইল নিয়ে কঠোর জাপান

১৩ জুন ২০২২

জাপানের স্কুল কর্তৃপক্ষ পড়ুয়াদের পোশাক সংক্রান্ত কঠোর বিধি শিথিল করবে এমন আশা করছেন অনেকে৷ যদিও বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করছেন রক্ষণশীল দিকগুলি কাটিয়ে উঠতে সময় লাগবে৷

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%9B%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0-%E0%A6%9B%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%80%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%9A%E0%A7%81%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A6%B2-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A6%95%E0%A6%A0%E0%A7%8B%E0%A6%B0-%E0%A6%9C%E0%A6%BE%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%A8/a-62117271

জাপানের বিদ্যালয়ে ছাত্রদের চুলের ছাঁট, স্টাইল, রং নিয়ে কঠোর নিয়ম রয়েছে৷আদালতে ওঠা একটি মামলা এবং সংবাদপত্রের সমালোচনামূলক নিবন্ধে সম্প্রতি এ কথা উঠে এসেছে৷

দক্ষিণ জাপানের ২০ বছর বয়সি এক ব্যক্তি বলেন যে, তিনি কুমামোতো শহরের সেসেইকো হাইস্কুলে ছাত্র থাকাকালীন যে সমস্যায় পড়েছিলেন তা আদালতে জানিয়েছেন৷

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক ওই ব্যক্তি আদালতকে বলেন যে তিনি অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন৷ ২০১৭ সালে স্কুলের স্পোর্টস ক্লাবে যোগ দিয়েছিলেন৷ ‘ঐতিহ্য' মেনে তাকে মাথা ন্যাড়া করতে বাধ্য করা হয়৷ তিনি স্কুল ছেড়ে দেন৷

মাইনিচি সংবাদপত্র রিপোর্ট করেছে যে, একজন শিক্ষক ১৬ বছরের এক ছাত্রীর চুল টেনে ধরে তাকে বকাঝকা করেছেন৷ কোবের একটি উচ্চবিদ্যালয়ে সমস্ত পড়ুয়াদের জন্য যে নিয়ম রয়েছে, সেটি অনুযায়ী ওই ছাত্রীর চুলের রং কালো ছিল না৷

সংবাদপত্রের প্রতিনিধিকে ওই ছাত্রী জানিয়েছিল, পুলের রাসায়নিকের ফলে তার চুলগুলি কিছুটা গাঢ় বাদামি হয়ে গিয়েছিল৷ ওই ক্লাবে সে নিয়মিত সাঁতার কাটতে যায়৷ স্কুল কর্তৃপক্ষ আগে তাকে নিশ্চিত করেছিল যে তার চুলের রংয়ের নিয়ম তার ক্ষেত্রে অনুসরণের প্রয়োজন নেই৷

কিন্তু তারপরেও শিক্ষকের ওই আচরণের ফলে উদ্বেগজনিত রোগে ভুগছে ওই ছাত্রী ৷ দুই সপ্তাহ স্কুলে যেতে পারেনি সে৷

শিক্ষার্থীদের  জন্য কঠোর নিয়ম

জাপানের স্কুলগুলি দীর্ঘদিন ধরে পোশাক এবং চেহারাসংক্রান্ত কঠোর নিয়মের জন্য কুখ্যাত৷ এমনকি ছাত্রদের অন্তর্বাসের রং নিয়েও নিয়ম ছিল৷

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে এই বিধি নিয়ে নানা কথা ওঠায় অনেক স্কুল ধীরে ধীরে কিছু নিয়ম শিথিল করেছে৷ তবে অনেক নিয়ম রয়ে গিয়েছে এবং সমালোচকরা বলছেন যে তারা অন্য যুগের ‘হ্যাংওভার' নিয়ে বসে আছে৷

‘‘আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের বেশিরভাগ পড়ুয়াই চুলে রং করে,'' এমনটাই বলেন সাপোরোর হোক্কাইডো বুনকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের গণমাধ্যম ও জনসংযোগ বিভাগের অধ্যাপক মাকোতো ওয়াতানাবে৷ তিনি বলেন, ‘‘স্কুলে এই ধরনের কঠোর নিয়ম মেনে চলার পর সচেতনভাবেই বিষয়টিকে অবমাননা করে তারা৷''

তার কথায়, ‘‘সমাজ পাল্টে গিয়েছে৷ কিন্তু বিদ্যালয়গুলি এখনও অত্যন্ত রক্ষণশীল৷এটি সত্যি উন্মাদের মতো আচরণ৷ প্রত্যেকেরই সোজা, কালো চুল থাকতে হবে এই কথা কর্তৃপক্ষই বলছে৷ একই সময়ে সরকার বিশ্বায়নের আহ্বান জানাচ্ছে৷এদিকে,  জাপানে এখন আরো বেশি বিদেশি নাগরিকরা বাস করেন৷''

ওয়াতানাবে বলেন, পরস্পরবিরোধী, প্রাচীন বিধি নিয়ে ক্রমাগত কাভারেজের কারণে স্কুলগুলি অপ্রয়োজনীয় নিয়মগুলিকে সহজ করতে শুরু করেছে৷

উদাহরণস্বরূপ, একটি স্কুল পড়ুয়াদের চুলে রং করতে নিষেধ করেছিল কিন্তু তারপর স্বাভাবিকভাবে গাঢ় বাদামি চুলের একজন ছাত্রকে চুলে কালো রং করার নির্দেশ দিয়েছিল৷

কী  নিয়ম  রয়েছে?

ওয়াতানাবে বলেন তিনি এতটা নিশ্চিত নয় যে কঠোর নিয়মগুলি দ্রুত পাল্টে যাবে৷ তার মতে, ‘‘জাপানের স্কুলগুলির সঙ্গে বহির্বিশ্বের সম্পর্ক খুব কম৷ স্বাভাবিক নিয়মেই একটা রক্ষণশীল প্রবণতা রয়েছে তাদের৷ তাই তাদের পক্ষে সবকিছু মেনে নেওয়া সম্ভব নয়৷ তারা জানে না বিশ্বে পরিবর্তন হচ্ছে৷''

এমি ইজাওয়া টোকিওর একটি বিশ্ববিদ্যালয়েপ্রথম বর্ষের পড়ুয়া৷ তার লম্বা চুলের প্রান্তে রুপোলি-ধূসর রং করেছেন তিনি৷ এই মুহূর্তে এটি তরুণ জাপানিদের মধ্যে ফ্যাশন বলা যেতে পারে৷

এমি বলেন, ‘‘উচ্চ বিদ্যালয়ের নিয়মগুলি কঠোর হওয়ার বিষয়ে সত্যিই ভাবিনি কারণ প্রত্যেককে এমনটা মেনে চলতে হতো৷ আমি মেয়েদের স্কুলে পড়তাম৷ আমাদের নির্দিষ্ট ইউনিফর্ম ছিল৷ কানের দুল বা কোনো ধরনের গয়না বা মেকআপ পরতে দেওয়া হয়নি৷''

তার কথায়, ‘‘কেউ নিয়ম নিয়ে প্রশ্ন তোলেনি৷ স্কুলে পোশাক নিয়ে নিয়ম ভাঙার জন্য কাউকে কিছু বলা হয়েছিল কি না খেয়াল নেই৷ এখন আরো স্বাধীনতা পেয়েছি, আমি খুবই খুশি৷ তবে আমার জন্য, সেই সময়ে নিয়ম মেনে চলা খুব একটা বড় সমস্যা ছিল না কিন্তু আমি এটাও বুঝি যে তরুণ প্রজন্ম স্বাতন্ত্র্যে বিশ্বাসী৷''

জলের নীচে আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত, সুনামিতে বিপর্যস্ত টোঙ্গা

জাপানের শিক্ষক সংগঠনগুলিও স্কুলে পোশাক এবং চুলের স্টাইল নিয়ে নিয়মের অতিরিক্ত বিধিনিষেধের সমালোচনা করেছে৷

ন্যাশনাল টিচার্স ফেডারেশনের একজন মুখপাত্র তামাকি তেরাজাওয়া ডিডাব্লিউ-কে বলেন, তারা পুরনো আমলে পড়ে রয়েছে৷

সামরিক প্রভাব

তেরাজাওয়া ডয়চে ভেলেকে বলেন,‘‘বর্তমানে জাপানে যে শিক্ষাব্যবস্থা রয়েছে, তা মেইজি যুগে শুরু হয়েছিল৷ সেটি সামরিক অনুশাসন মেনে হতো, তাই পোশাকে অভিন্নতা, বাচ্চারা স্কুলে নিয়ে যাওয়া ব্যাগ এবং তাদের চুলের স্টাইল এবং রং পর্যন্ত এক ছিল৷

তেরাজাওয়া  জানান, সেই সময়ে, সরকার বলেছিল যে জাতির উন্নয়নের জন্য সমাজে অভিন্নতা প্রয়োজন, কিন্তু এটি ১০০  বছরেরও বেশি আগের নিয়ম এবং জাপান তার থেকে এখন অনেক আলাদা৷ তবে কিছু নিয়ম পরিবর্তন করা হয়েছে এবং শিশুদেরকে নিজের মতো হতে দেওয়া হয়েছে৷ বিশেষ করে বিদেশ থেকে আসা শিশুদের ক্ষেত্রে বা যাদের বাবা-মা বিদেশি, কিন্তু জাপানে বসতি স্থাপন করেছেন, তাদের ক্ষেত্রে নিয়ম বদল হয়েছে৷

তার মতে, ‘‘রক্ষণশীল স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ক্রমাগত প্রতিরোধ দেখতে পাচ্ছি এবং এটি দীর্ঘ সময় ধরে চলবে বলে মনে হয়৷তবে নতুন প্রজন্মের তরুণ শিক্ষকরা এখন স্কুলে প্রবেশ করছে এবং শিক্ষা ব্যবস্থার মাধ্যমে ধীরে ধীরে বেড়ে উঠছে৷আমরা আশা করি তারা স্কুলের পরিবেশে একটু বেশি স্বস্তি দিতে পারবে৷ স্কুল আরো একটু উন্মুক্ত হবে৷''

জুলিয়ান রাইয়াল/আরকেসি

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

উত্তর কোরিয়া

জাপানের উপর দিয়ে মিসাইল ছুঁড়ল উত্তর কোরিয়া

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ
প্রথম পাতায় যান