আবারো মোটরসাইকেল আরোহী, কুপিয়ে হত্যা | বিশ্ব | DW | 22.03.2016
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

আবারো মোটরসাইকেল আরোহী, কুপিয়ে হত্যা

কুঁড়িগ্রামে একজন ধর্মান্তরিত খ্রিষ্টান মুক্তিযোদ্ধাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা৷ নাম হোসেন আলী৷ ধারণা করা হচ্ছে দুর্বৃত্তরা উগ্রবাদী গ্রুপের সদস্য৷ অতীতের মতো তিনজন মোটরসাইকেলে এসে তাঁকে কুপিয়ে হত্যা করে পালিয়ে যায়৷

পু‌লিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল সাতটার দিকে মুক্তিযোদ্ধা হোসেন আলী তাঁর বাসার পাশের রাস্তায় হাঁটছিলেন৷ এ সময় একটা মোটরসাইকেলে তিন দুর্বৃত্ত এসে তাঁকে পেছন থেকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথারি কুপিয়ে হত্যা করে৷ আর হত্যার পর দুর্বৃত্তরা ককটেল ফাটিয়ে পালিয়ে যায়৷

নিহত হোসেন আলী (৬৮) ১৭ বছর আগে স্বপরিবারে ধর্মান্তরিত হয়ে খ্রিষ্টধর্ম গ্রহণ করেন৷ কুঁড়িগ্রামের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মাসুদুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, ‘‘বিষয়টির তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হচ্ছে৷ আপাতত তদন্তের স্বার্থে এখনই পুরো বিষয়টি বলা যাচ্ছে না৷ তবে উগ্রবাদীদের হাতে আগের হত্যাকাণ্ডগুলোর সঙ্গে এই হত্যাকাণ্ডের ধরণ মিলে যায়৷''

হামলা-হত্যার মোটরসাইকেল স্টাইল

গত ছ'মাসে বিদেশি নাগরিক হত্যাসহ, ধর্মযাজক, পুরোহিত এবং পুলিশ হত্যার ঘটনা বিশ্লেষণ করলে একটি বিষয় স্পষ্ট হয় যে, প্রতিটি ঘটনাতেই দুর্বৃত্তরা মোটরসাইকেলে গিয়ে হামলা চালায়৷ আর প্রতিটি ক্ষেত্রেই মোটরসাইকেলের আরোহী ছিল কম-বেশি তিনজন৷ তাদের হামলার ধরণও এক৷ অর্থাৎ তারা কুপিয়ে বা জবাই করে হত্যা করে৷ মঙ্গলবার কুঁড়িগ্রামে হোসেন আলীকেও ঐ একইভাবে হত্যা করা হয়৷

এর আগে গত ২১শে ফেব্রুয়ারি সকালে পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে সন্তগৌরীয় মঠের অধ্যক্ষ যজ্ঞেশ্বর রায়কে (৫০) গলা কেটে হত্যা করা হয়৷ হামলাকারী ছিল তিনজন এবং তারাও এসেছিল মোটরসাইকেলে৷

গত ২৮শে সেপ্টেম্বর গুলশানের ৯০ নম্বর সড়কে দুর্বৃত্তরা গুলি করে ইটালির নাগরিক তাবেলা সিজারকে হত্যা করে৷ এখানেও হত্যাকারীরা আসে মোটরসাইকেলে চড়ে৷

৩রা অক্টোবর রংপুরে জাপানি নাগরিক হোশি কুনিও হত্যাকাণ্ডও ঘটানো হয় একই স্টাইলে৷ এখানে ঘাতকরা মোটরসাইকেলে এসে হত্যার পর আবার মোটরবাইক যোগেই পালিয়ে যায়৷

এর আগে ৫ই অক্টোবর ঈশ্বরদীতে ফেইথ বাইবেল চার্চের যাজক লুক সরকারকে গলা কেটে হত্যার চেষ্টা করে দুর্বত্তরা৷ তিন যুবক মোটরসাইকেল যোগে ঈশ্বরদী বিমানবন্দর সড়কে ভাড়া বাসায় ঢুকে ধর্মগ্রন্থ পাঠ শোনার কথা বলে তাঁর ওপর হামলা চালায়৷

১৮ই নভম্বের র্দুবৃত্তরা দিনাজপুরে খ্রিষ্টান ধর্মযাজক পিয়ারো পারোলারি পচিমোকে হত্যার চেষ্টা করে৷ তিনজন মোটরসাইকেল আরোহী এ হামলা চালায় বলে জানা গেছে৷ হামলাকারীদের একজনের মাথায় হেলমেট ও অন্য দু'জনের মুখ চাদর দিয়ে ঢাকা ছিল৷

অডিও শুনুন 03:50

‘উগ্রবাদীরা সংখ্যালঘু এবং ভিন্ন ধর্মীয় চিন্তার মানুষ ও স্থাপনাকে টার্গেট করছ’

তারও আগে ৪ঠা নভেম্বর আশুলিয়ায় পুলিশ চেকপোস্টে তল্লাশির সময় পুলিশের ওপর হামলা এবং হত্যার ঘটনাও ঘটিয়েছে তিন মোটরসাইকেল আরোহী৷ সে সময় এক পুলিশ সদস্যকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছিল৷

পুলিশ ও গোয়েন্দারা যা মনে করেন

পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম জানান, ‘‘আমরা এ পর্যন্ত তদন্তে দেখেছি যে, এই হত্যাকাণ্ডগুলোর সঙ্গে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জেএমবি-র সদস্যরা জড়িত৷ সম্প্রতি তারা কয়েকজন ধর্মীয় পীর এবং আইনজীবীকে হত্যারও পরিকল্পনা করেছিল৷ ঐ আইনজীবী রাষ্ট্রধর্ম নিয়ে উচ্চ আদালতে একটি রিট করেছিলেন৷ সোমবার রাতে এ ধরণের হত্যা পরিকল্পনার সঙ্গে জড়িত চারজন জেএমবি সদস্যকে আটক করা হয়েছে৷'' এই আটক চারজন হলেন, আব্দুর রাজ্জাক উমায়ের, ফয়সাল আহম্মেদ, আহমেদ ফজলে আকবর ও আবু নাঈম মোহাম্মদ জাকারিয়া৷

বিশ্লেষকরা যা বলছেন...

এ নিয়ে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের পরিচালক ও জঙ্গি বিষয়ক গবেষক নূর খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘হামলার ধরণ এবং টার্গেট দেখে এটা নিশ্চিতভাবেই বোঝা যায় যে যারাই এই কাজ করুক না কেন, তাদের উদ্দেশ্য এক৷ তারা একই ধরণের উগ্রবাদী গ্রুপের সদস্য৷ তারা বিদেশি, সংখ্যালঘু এবং ভিন্ন ধর্মীয় চিন্তার মানুষ ও স্থাপনাকে টার্গেট করছে৷''

তিনি বলেন, ‘‘এই গোষ্ঠীটি ধর্মান্ধ এবং মৌলবাদী, তারা ধর্মনিরপেক্ষতার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে৷ তারা হয়ত আরও বড় ধরণের হামলার পরিকল্পনা করছে৷''

নূর খান বলেন, ‘‘এর সঙ্গে বিশ্বে যে জঙ্গিবাদের উত্থান দেখা যাচ্ছে, তার সম্পর্ক আছে৷ তাই সরকারের উচিত হবে অন্ধকারে সুঁই না খুঁজে জাতীয় ঐক্যের মাধ্যমে এই অপতৎপরতা ও হামলাকে প্রতিহত করা৷''

আপনার কী মনে হয় বন্ধু? সরকার কি পারবে এহেন অপতৎপরতা ও হামলাকে প্রতিহত করতে? লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন