1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

আলাপ

হিন্দু, মুসলিম, খ্রিষ্টান নয়, সবার ওপরে মানবতা

‘সবার উপর মানুষ সত্য, তাহার উপর নাই' – জ্ঞান হওয়ার পর থেকে এ কথাটিকেই ‘মন্ত্র' ভেবেছি, ভালোবেসেছি মানবজাতিকে৷ অথচ আজ আমারই দেশের মানুষ দেশমাতৃকাকে কলঙ্কিত করছে৷ ধর্মের দোহাই দিয়ে হত্যা করছে ‘নাস্তিক' মানুষদের৷

হিন্দু বাড়িতে জন্ম৷ তাই খুব ছোটবেলা থেকেই দেব-দেবীদের নানা রকম গল্প – রামায়ণ, মহাভারত, পুরাণ – সব কিছুই পড়তে হয়েছিল৷ আর যতই পড়তাম, বাড়তো প্রশ্ন৷ স্বর্গ, মর্ত্য, পাতাল – শুনতাম এই তিনের অস্তিত্ব৷ পৃথিবী যদি মর্ত্য হয়, আর মাটির তলায় থাকে দৈত্য-দানবে ভরা পাতালপুরি, তাহলে স্বর্গ নিশ্চয় আকাশ৷ তা দেবতারা কি সত্যিই আকাশে থাকে? ইন্দ্রের সভায় ঊর্বশী, মেনকারা সত্যিই নাচে? ছোট বলেই হয়ত এদের নিজের চোখে দেখতে ইচ্ছে করতো খুব৷ কিন্তু দেখতে আর পেলাম কোথায়? এমনকি প্রথমবার যখন বিমানে চেপে আকাশপথে পাড়ি দিলাম, তখন অনেক চেষ্টাতেও মেঘের আনাচে-কানাচে দেব-দেবীর দেখা পাইনি৷

এরপর বয়স বাড়লো, আর তার সঙ্গে সঙ্গে বাড়লো পদার্থবিজ্ঞান, জীববিজ্ঞান, রসায়ন নিয়ে আগ্রহ৷ সব কার্যকারণের পিছনেই যে বিজ্ঞানের মস্ত বড় একটা হাত আছে, সেটাও ধীরে ধীরে বুঝতে পারলাম৷

একদিকে গ্যালিলিও-কোপার্নিকাস-ডারউইন, অন্যদিকে প্লেটো-সক্রেটিস-মিকেলঅ্যাঞ্জেলো-হেগেল-মার্ক্স অথবা জন স্টুয়ার্ট মিল – পড়াশোনার পরিধি বাড়ার সাথে সাথে মুগ্ধ হলাম ফরাসি বিপ্লবের ‘লিবার্টি, ইকুয়ালিটি, ফ্র্যাটারনিটি'-র মন্ত্রে, বিশ্বাস জন্মালো ঈশ্বরে নয়, ব্যক্তিস্বাধীনতায়৷

তাহলে কি আমি ‘নাস্তিক'? নিজের কাছে নিজেই প্রশ্ন করলাম একদিন৷ কিন্তু উত্তর এলো – না, আমি ধর্মনিরপেক্ষ৷ হিন্দুর বাড়িতে জন্ম হলেও, পরিবারে, বন্ধু-বান্ধবের মধ্যে বহু ইসলাম ধর্মাবলম্বী মানুষ ছিল আমার চারপাশে৷ তাছাড়া ছোটবেলা থেকে দুর্গা পূজার পাশাপাশি ঈদের খুশি আর বড়দিনের আনন্দও উপভোগ করেছি আমি, আমরা, এখনও করি৷ পরবর্তীতে ইউরোপে থাকার সুবাদে খ্রিষ্টধর্ম, বিশেষ করে ইউরোপীয় সংস্কৃতির প্রতি আমার অনুরাগও কম নয়৷ ইউরোপীয় স্থাপত্য, কলা, সংগীত ঘরানা, এমনকি রাজনীতিতেও ধর্মের পরোক্ষ অথবা প্রত্যক্ষ ছাপ আমি দেখেছি৷ বিয়েও করেছি এক খ্রিষ্টান পরিবারে৷ তাই অন্যের ধর্মের প্রতি সহিষ্ণুতাকেই আমার কাছে শ্রেয় মনে হয়েছে, মনে হয়েছে মানুষ, মানবতা, মানবিকতার প্রতি আস্থাই পরম ‘ধর্ম'৷

হ্যাঁ, ধর্মের আসল অর্থ আমার কাছে জীবনদর্শন৷ আর সেটা যদি হয়, তাহলে আমার জীবনবোধের সঙ্গে আপনার যে মিল থাকবেই – এমনটা তো না-ও হতে পারে৷ নাস্তিক্যবাদ বা নাস্তিকতা – ইংরেজি ভাষায় যাকে বলে ‘এথিইসম' (গ্রিক শব্দ এথোস থেকে যার উৎপত্তি) – এটাও কি একটা দর্শন, একটা ‘ধর্ম' নয়? হিন্দুত্ববাদ, ইসলাম বা খ্রিষ্টধর্মের সঙ্গে এর পার্থক্য এটাই যে এই দর্শনে ঈশ্বর বা ‘স্রষ্টার' অস্তিত্বকে স্বীকার করা হয় না৷ বরং এখানে প্রকৃতির ব্যাখ্যা দেয়া হয় সম্পূর্ণ ভৌত বা প্রাকৃতিক উপায়ে৷ অর্থাৎ এই মতবাদ বিশ্বাস নয় যুক্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত৷ অনেকে একে নিরীশ্বরবাদ বলেও চিহ্নিত করেন৷

তাছাড়া নাস্তিকদের মধ্যেও নানান বিভেদ আছে৷ পশ্চিমের দেশগুলোতে নাস্তিকদের সাধারণত পারলৌকিক বিষয়ে আস্থা নেই৷ তাঁরা কোনো বিশেষ মতাদর্শের অনুসারী নয় এবং বিশেষ কোনো আচার-অনুষ্ঠানও পালন করেন না৷ অনেকে আবার ‘নাস্তিক’ শব্দের শিকড়ে গিয়ে এর একটা ব্যাখা খোঁজেন৷ তাঁদের মতে, বেদের প্রতি যাঁদের বিশ্বাস নেই, তাঁরাই নাস্তিক৷ এই যেমন বৌদ্ধ বা জৈন ধর্মাবলম্বীরা৷ অন্যদিকে যাঁরা বেদে বিশ্বাসী, তাঁরা আস্তিক৷

অবশ্য এমন মানুষও আছেন, যাঁরা আমার মতো ধর্মনিরপেক্ষতায় বিশ্বাসী, বিশ্বাসী যুক্তিবাদ এবং প্রকৃতিবাদে৷ আমার মতে, ধর্ম বিশ্বাস ব্যক্তিগত৷ আর যাঁরা কোনো একটি বিশেষ ধর্মে বিশ্বাস করেন, তাঁদের সঙ্গে তর্ক করা চলে না৷ কথায় আছে না ‘বিশ্বাসে মিলায় বস্তু, তর্কে বহু দূর’? তাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো পরধর্ম-সহিষ্ণুতা৷ অর্থাৎ নিজের যে ধর্মের প্রতিই বিশ্বাস অথবা অবিশ্বাস থাকুক না কেন, অন্যের ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া চাই৷ ইসলাম শব্দের অর্থও কিন্তু শান্তি৷ তাই আপনি হিন্দু, মুসলিম, খ্রিষ্টান অথবা নাস্তিক – যা-ই হোন না কেন, অন্যের ধর্মে আঘাত করা অথবা অন্যের ব্যক্তিস্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা – কোনোটাই যে একটি আধুনিক, গণতান্ত্রিক সমাজে কাম্য নয়! তাছাড়া ধার্মিক হলেই যে সেই ব্যক্তি ধর্মসহিষ্ণু হবেন, তেমন কোনো কথা নেই৷ তাই তো বহু ধর্মপ্রাণ হিন্দু এবং মুসলমানের মধ্যে আমরা গোঁড়ামি, অসহিষ্ণুতা দেখতে পাই৷ অন্যদিকে এমন মানুষও আছেন, ইংরেজিতে যাঁদের বলা হয় ‘অ্যাগনস্টিক', তাঁরা ঈশ্বরের অস্তিত্ব সম্পর্কে নিশ্চিত নন, অর্থাৎ তাঁরা আস্তিক বা নাস্তিক কোনোটাই নন৷

Deutsche Welle Süd-Ost-Asien Debarati Guha

দেবারতি গুহ, ডয়চে ভেলের বাংলা বিভাগের সম্পাদক

বলা বাহুল্য, মুক্ত চিন্তা, সংশয়বাদী চিন্তাধারা এবং প্রতিষ্ঠিত ধর্মগুলোর সমালোচনা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ‘অ্যাগনস্টিক' এবং ‘এথিইস্ট'-দের প্রসার ঘটেছে৷ সেই অষ্টাদশ শতাব্দী থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত বহু মানুষ নিজেদের ‘নাস্তিক' বলে পরিচয় দিয়েছেন, দিচ্ছেন৷ সময়ের সঙ্গে ‘এথিইস্ট’ – এই শব্দটির গুণগত নানা পরিবর্তন ঘটেছে৷ নাস্তিক শব্দটি কখনও একটি নঞর্থক বা ‘নেগেটিভ’ শব্দ হিসেবে, কখনও আবার ‘গালি’ হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে৷ অথচ বিশ্বে আজ এমন অনেক দেশ আছে, এই যেমন জাপান অথবা সুইডেন, যেখানে অধিকাংশ মানুষই নিজেকে নাস্তিক বলে মনে করেন৷ কিন্তু তাই বলে তাঁরা কি কোনো অংশে ছোট? তাঁরা কি আমার-আপনার বা অন্য কারুর ধর্মকে অবজ্ঞা করছে? না৷ তাহলে? তাহলে উপমহাদেশের মানুষ নাস্তিক হলে তা দোষের কেন? কারুর ব্যক্তিস্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ বা অন্যের ধর্মকে আঘাত করে কথা বলা অবশ্যই অন্যায়৷ কিন্তু প্রচলিত ধর্ম না মেনে কেউ যদি আমার মতো মানবধর্মে বিশ্বাসী হন, তাহলে দোষটা কোথায়?

দেবারতি গুহ’র বক্তব্যের সঙ্গে আপনিও কি একমত? ভিন্নমত থাকলে লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন