1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

গিরগিটির ত্বকের আশ্চর্য গুণ

গিরগিটি শুধু রং বদলায় না, তাদের মধ্যে আরও গুণাগুণ রয়েছে৷ যেমন টেক্সাসের এক প্রজাতি ত্বক থেকেই তরল পদার্থ শুষে নিয়ে মুখে পাঠিয়ে দিতে পারে৷ জার্মান বিজ্ঞানীরা সেই বৈশিষ্ট্য কৃত্রিম সারফেসের উপর প্রয়োগ করার পথে এগোচ্ছেন৷

টেক্সাসের ‘পিগমি শর্ট-হর্নড লিজার্ড' বা বামন একশৃঙ্গ গিরগিটির একটি বিশেষ ক্ষমতা রয়েছে৷ তেষ্টা পেলে সরাসরি জল পান করার প্রয়োজন নেই – সরাসরি ত্বকের মাধ্যমেই তরল পদার্থ গ্রহণ করতে পারে এই প্রাণী৷ ত্বকের অতি ক্ষুদ্র ছিদ্রের মাধ্যমে ভিজে বালুর মতো উৎস থেকে সে জল শুষে নেয়৷ সূক্ষ্ম নালীর মাধ্যমে সেই জল মুখে চলে আসে৷ আখেন শহরের আরডাব্লিউটিএইচ বিশ্ববিদ্যালয়ের আনা-ক্রিস্টিন জোয়েল বলেন, ‘‘আর্দ্রতা পাঠানোর এই প্রক্রিয়া আসলে অতি শুষ্ক পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার কায়দা৷ অর্থাৎ জলের প্রতিটি বিন্দু কাজে লাগাতে হবে, মুখে পাঠাতে হবে৷''

আখেন শহরের আরডাব্লিউটিএইচ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা গিরগিটির ত্বকের এই নালী পরীক্ষা করে প্লাস্টিক ও ধাতুর সারফেসের উপর তা সফলভাবে অনুকরণ করতে পেরেছেন৷ সারফেসের অত্যাধুনিক কাঠামো – এমনকি মাধ্যাকর্ষণ শক্তির পরোয়া না করেও পরোক্ষভাবে নির্দিষ্ট একটি দিশায় তরল পাঠাতে পারছে৷ এর জন্য কোনো শক্তিরও প্রয়োজন পড়ছে না৷

মূল পরীক্ষার জন্য গবেষকরা টেক্সাসের বামন গিরগিটির সংরক্ষিত দেহ ব্যবহার করছেন৷ হাইস্পিড ক্যামেরার সাহায্যে তাঁরা ত্বকের উপর জল ছড়িয়ে পড়ার প্রক্রিয়া বিশ্লেষণ করেছেন৷ তাতে দেখা গেছে, যে জলের বিন্দু অন্যান্য দিকের তুলনায় মুখের অভিমুখে দ্রুত গতিতে এগিয়ে যায়৷ বায়োলজিস্ট ফিলিপ কোমান্স বলেন, ‘‘আমরা এই ত্বক ভালোভাবে পরীক্ষা করে দেখেছি, যে প্রতিটি আঁশের মাঝে ক্ষুদ্র নালী রয়েছে৷ এত ক্ষুদ্র হওয়ার ফলে ‘ক্যাপিলারি এফেক্ট' বা কৈশিক প্রভাব দেখা যায়৷ অর্থাৎ জল নিজে থেকেই এগিয়ে যায়৷ এ ক্ষেত্রে গতি থাকে মুখের দিকে৷ অন্য যে বিষয়টি আমরা লক্ষ্য করেছি সেটা হলো এই, যে ত্বকের খাঁজে নালীর মোড়গুলি এমনভাবে সাজানো রয়েছে, যাতে জল মুখের দিকেই এগিয়ে যেতে পারে৷''

আরও একটি পরীক্ষার মাধ্যমে কোমান্স দেখালেন, পানি কত দ্রুত আঁশের ফাঁকে নালী দিয়ে গন্তব্যের দিকে এগিয়ে যায়৷ গিরগিটির পা নীল পানিতে ডোবালে সেই রঙিন পানির স্রোত উলকার বেগে পা থেকে বুকের উপর দিয়ে মুখের দিকে ধেয়ে যায়৷ ফিলিপ কোমান্স বলেন, ‘‘এখানে দেখা যাচ্ছে, যে পানি গিরগিটির শরীর বেয়ে উপরে উঠে যাচ্ছে৷ অর্থাৎ পা থেকে কনুই দিয়ে মাথার দিকে৷ গিরগিটির শরীর কিছুটা ঘোরালে নীল পানি সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ছে৷ মানে সারা শরীরেই জলের বণ্টন ঘটে চলেছে এবং মুখের দিকে ধাবিত হচ্ছে, যাতে গিরগিটি সেই জল পান করতে পারে৷''

ইলেকট্রন মাইক্রোস্কোপের মাধ্যমে আঁশের মাঝে নালী স্পষ্ট দেখা যায়৷ ক্ষুদ্র এই কাঠামো বিশ্লেষণ করে তার বৈশিষ্ট্য ধাতব বা প্লেক্সিগ্লাস সারফেসে প্রয়োগ করা ছিল এক বিশাল চ্যালেঞ্জ৷ আকার-আয়তন ও ক্ষুদ্র জ্যামিতিক কাঠামো হুবহু নকল করতে হয়, যাতে জল নির্দিষ্ট লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যেতে পারে৷

Reptilien (Bildergalerie) Pantherchamäleon

গিরগিটির একটি বিশেষ ক্ষমতা রয়েছে

গিরগিটির আঁশের কাঠামো নকল করতে গবেষকরা এমন এক সফটওয়্যার তৈরি করেছেন, যা জৈব কাঠামো হুবহু বুঝে নিয়ে লেজার রশ্মির মাধ্যমে কৃত্রিম সারফেসের উপর প্রয়োগ করতে পারে৷

এবার এই সারফেসের উপরেও গিরগিটির মতো পরোক্ষভাবে পানি চলাচল দেখা যাচ্ছে৷ ইলেকট্রন মাইক্রোস্কোপের নীচে গিরগিটির ত্বকের সঙ্গে কৃত্রিম সারফেসের কাঠামো তুলনা করলে অবশ্য বড় ধরনের পার্থক্য চোখে পড়ে৷ কিন্তু সেটাই তো কাম্য ছিল৷ ফিলিপ কোমান্স বলেন, ‘‘গিরগিটির ঘাটতি পূরণ করতে ত্বকের মধ্যে নানা বৈশিষ্ট্য তৈরি হয়েছে৷ আমরা তার মধ্যে শুধু তরল পদার্থ চলাচলের গুণটি বেছে নিয়েছি৷ সেই প্রক্রিয়া খতিয়ে দেখে কৃত্রিম সারফেসের উপর তা প্রয়োগ করেছি৷''

গিরগিটির এই গুণ সম্ভবত কয়েক বছরের মধ্যে ইঞ্জিনের লুব্রিকেশন, কাচের উপর কন্ডেনসেশন পানি সরানো অথবা রেফ্রিজারেটরের ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা সম্ভব হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়