1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ক্রুজ, ক্যাসিচ যাবার পর মাঠে এখন ট্রাম্প একা

ডোনাল্ড ট্রাম্প যে ‘প্রিজাম্পটিভ' রিপাবলিকান নমিনি, সেটা অস্বীকার করার আর কোনো উপায় নেই৷ যেমন নভেম্বরে ট্রাম্প-ক্লিন্টন প্রতিদ্বন্দ্বিতার সম্ভাবনা৷ প্রস্তুতি ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে, দু'পক্ষেই৷

মঙ্গলবার ইন্ডিয়ানায় জেতার পর থেকেই ট্রাম্প তাঁর সুর বদলাতে শুরু করেছেন,সেটাই সম্ভবত বড় খবর৷ অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসের মতো আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা যখন ‘‘ট্রাম্প কিভাবে আধুনিক রাজনীতির সব রীতিনীতি ভেঙেও জিতলেন'', তা নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছে, তখন হিলারি রডহ্যাম ক্লিন্টন ও তাঁর সোশ্যাল মিডিয়ার দলবল আরো বড় এবং বেশি করে ভবিষ্যৎ প্রতিদ্বন্দ্বীর দিকে কামান দাগতে শুরু করেছেন৷

হিলারি শিবিরের একটি পন্থা হল, ট্রাম্প বিভিন্ন রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক বিষয়ে যে সব মত প্রকাশ করেছেন, সেগুলিকে তুলে ধরা; যেমন ট্রাম্প বলেছেন, তিনি স্কুলে বন্দুক ঢুকতে দেবেন; অথবা মুসলিমদের যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকতে দেবেন না; মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর দেবেন; অথবা ওয়াটারবোর্ডিং-এর মতো বিতর্কিত জেরার পদ্ধতি আবার চালু করবেন৷

অপরদিকে ক্লিন্টন সম্পর্কে ট্রাম্পের মন্তব্য, ‘‘বাস্তবিক হিলারিকে হারানো অন্যান্য অনেক সেনেটর কিংবা গভর্নরকে হারানোর চেয়ে সহজ হবে'' – ট্রাম্প যেরকম এনবিসি টেলিভিশনকে বলেছেন৷ নয়ত সিএনএন-এর সর্বশেষ জরিপ অনুযায়ী জনসমর্থনের ক্ষেত্রে হিলারি ট্রাম্পের চেয়ে ৫৪ শতাংশ বনাম ৪১ শতাংশে এগিয়ে আছেন৷

ট্রাম্প তাতে বিচলিত হবার পাত্র নন৷ তাঁর লক্ষ্য আপাতত তাঁর নিজের দল, রিপাবলিকানদের পুনরায় একত্রিত করা৷ বুধবার রাত্রে তিনি সেনেটে সর্বোচ্চ রিপাবলিকান নেতা মিচ ম্যাককনেল-এর ‘এনডোর্সমেন্ট' অর্থাৎ সমর্থন পেয়েছেন৷ ম্যাককনেল-এর যুক্তি হলো, হিলারির জয় বস্তুত বারাক ওবামার ‘তৃতীয়' কর্মকালের সমতুল হবে, তাই তা রোখা প্রয়োজন৷ অপরদিকে রিপাবলিকান দলের অনেক অতীত ও বর্তমান হোমরা-চোমরা ট্রাম্পকে সমর্থন করতে রাজি নন৷ যেমন...

ট্রাম্প কিন্তু বুধবার ফক্স নিউজ-কে বলেছেন, ‘‘আমরা এবার দলকে একত্রিত করব, সকলকে একসঙ্গে আনব৷'' এমনকি ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রেসিডেন্সি কেমন হবে, সে বিষয়ে জনমানসে যদি কোনো দ্বিধা থাকে, তবে তা দূর করার চেষ্টা করেছেন ট্রাম্প৷ ‘‘লোকে এখনও ঠিক বুঝতে পারছে না, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কেমন হবে'', নিউ ইয়র্ক টাইমস পত্রিকাকে বলেছেন ট্রাম্প; ‘‘কিন্তু সবই ঠিক থাকবে৷ আমি দেশের অবস্থা আরো স্থিতিহীন করার জন্য প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হইনি৷''

বুকমেকার বা বুকি-রা বৃহস্পতিবার সকালে যা ধরছিল, তা অনুযায়ী আপাতত ক্লিন্টনের জেতার সম্ভাবনা ৭০ শতাংশের বেশি হলেও, ট্রাম্প প্রায় ৩২ শতাংশে পৌঁছে গেছেন৷

অপরদিকে লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস লিখছে, ট্রাম্প যতই অভব্য হোন না কেন, তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হতে পারেন, বলে ইউরোপের মানুষদের ধারণা৷

এসি/ডিজি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়