হারিকেন হার্ভে: টেক্সাসের রাসায়নিক কারখানায় বিস্ফোরণ | বিশ্ব | DW | 31.08.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

হারিকেন হার্ভে: টেক্সাসের রাসায়নিক কারখানায় বিস্ফোরণ

হারিকেন হার্ভের প্রভাবে বন্যাকবলিত হিউস্টনের কাছেই একটি রাসায়নিক কারাখানায় পরপর দু'টি বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে৷ এরপর কারখানা থেকে আগুন ও ধোঁয়া বের হতে দেখা যায়৷ কারখানার আশেপাশের বাসিন্দাদের সরে যেতে বলা হয়েছে৷

টেক্সাসের ক্রসবিতে আরকেমা রাসায়নিক প্ল্যান্টের আশেপাশের প্রায় ২ দশমিক ৪ কিলোমিটার এলাকা থেকে সবাইকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে৷ কারখানার সব শ্রমিককেও সেখান থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ৷ কারখানায় কালো ধোঁয়া দেখার কথা জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা৷

প্ল্যান্টের ম্যানেজার ‘বিস্ফোরণের' কথা বললেও স্থানীয় কর্তৃপক্ষ বারবারই এটাকে ‘রাসায়নিক বিক্রিয়া' বলে উল্লেখ করছে৷

আকাশ থেকে তোলা কারখানার ভিডিও এবিসি নিউজে প্রচার করা হয়েছে৷ ভিডিওতে পানির নীচ থেকেও ছোট আকারে আগুন ও ধোঁয়া উড়তে দেখা গেছে৷

জন ভিলারিয়েল নামের স্থানীয় এক বাসিন্দা সংবাদ সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, ‘‘আমি প্রচুর ধোঁয়া দেখতে পেয়েছি, ধোঁয়ার মধ্যে মাঝেমধ্যে আগুনের শিখাও দেখা যাচ্ছিল৷'' তিনি বলেন, ‘‘অ্যারোসলের বোতল আগুনে পড়লে যেমন শব্দ হয়, তেমন শব্দ আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম৷''

কর্তৃপক্ষ বাসিন্দাদের সরিয়ে নেয়ার কথা বললেও রাসায়নিক কারখানাটির সাবেক কর্মী ভিলারিয়াল জানিয়েছেন, কোনো স্পষ্ট নির্দেশনা না পাওয়ায় তার অনেক প্রতিবেশীই এখনও সেখান থেকে সরে যাননি৷

তবে যেসব সংবাদকর্মী কারখানার সবশেষ তথ্য জানাচ্ছেন, তাদের অন্তত ৮ কিলোমিটার দূরে সরে যেতে বলা হয়েছে৷

আরো কিছু বিস্ফোরণ ঘটতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছে আরকেমা কর্তৃপক্ষ৷ তবে রাসায়নিকে লাগা এই আগুন নিজে থেকে জ্বলে শেষ হতে দেয়া ভালো বলে মনে করছে তারা৷

হ্যারিস কাউন্টি শেরিফের অফিস জানিয়েছে, বিষাক্ত গ্যাস নিঃশ্বাসের সাথে যাওয়ায় ১৫ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়৷ তবে প্রাথমিক চিকিৎসার পরই তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছে পুলিশ৷ শেরিফ এড গনজালেজ জানিয়েছেন, কারখানাটির ফলে এই এলাকায় কোন স্বাস্থ্যঝুঁকি আছে বলে তারা মনে করেন না৷ যারা সরে যাননি, তাদেরও কোন হুমকিতে পড়তে হবে বলেও মনে করেন না তিনি৷

কারখানাটিতে প্লাস্টিক রেজিন, পলিস্টিরিন এবং পেইন্টের মতো জিনিস তৈরিতে ব্যবহৃত অর্গ্যানিক পারঅক্সাইড উৎপাদন করা হতো৷

বন্যার জলে রাসায়নিক

কারখানার রাসায়নিক বন্যায় জলে মিশতে পারে বলে আগেই সতর্ক করে দিয়েছিল আরকেমা কর্তৃপক্ষ৷ ‘‘সেক্ষেত্রে আমরা আশা করছি পানির সংস্পর্শে এসে অর্গ্যানিক পারঅক্সাইড দ্রুতই হাইড্রোকার্বন এবং অ্যালকোহলে রূপান্তরিত হবে'', বিবৃতিতে জানিয়েছে কারখানাটি৷ এর ফলে তেলের মতো পদার্থ দেখা যাবে এবং অল্প কিছুটা দুর্গন্ধের সৃষ্টি হবে বলেও জানিয়েছে আরকেমা৷ তবে তাতে কোনো পরিবেশগত বা স্বাস্থ্যঝুঁকি হবে না বলে মনে করছে আরকেমা৷

ঝড়ে রাসায়নিক শীতলীকরণ প্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে যায়, এরপর বন্যায় ব্যাকআপ জেনারেটরও তলিয়ে যাওয়ায় এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ৷

হারিকেন হার্ভেরআঘাতে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হিউস্টন থেকে ৪০ কিলোমিটার উত্তরপূর্বে অবস্থিত ক্রসবি৷ ফেডারেল বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এরই মধ্যে কারখানাটির আশেপাশে বিমান চলাচলেও সতর্কতা জারি করা হয়েছে৷ এদিকে, এ দুর্ঘটনার পর বৃহস্পতিবার ফরাসি এই রাসায়নিক উৎপাদন প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দর কমেছেন ২ দশমিক ৩ শতাংশ৷

এডিকে/ডিজি (এএফপি, এপি, রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন