স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, নিজের মুখ ‘সামলাতে′ না পারলে দেশ সামলাবেন কিভাবে? | বিশ্ব | DW | 16.05.2016
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, নিজের মুখ ‘সামলাতে' না পারলে দেশ সামলাবেন কিভাবে?

বন্দুক আর মুখ – এই দু'টো জিনিস সামলাতে না পারলে খুব মুশকিল৷ গুলি ফসকালে প্রাণহানির আশঙ্কা৷ মুখ ফসকালে মান –প্রাণ দু'টোই যেতে পারে৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন যা-ই বলুন, তিনি কিন্তু কোনোটাই সামলাতে পারছেন না৷

বাংলাদেশে চলছে হত্যার ধারাপাত৷ আজ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কাল হিন্দু দর্জি, পরশু ব্লগার বা সমকামী অধিকারকর্মী, পরের সপ্তাহে পীর সাহেব, তারপর হিন্দু পুরোহিত, পরের সুর্যোদয়ে খ্রিষ্টান, সুর্যাস্তেই হয়ত কোনো বিদেশি নাগরিক বা শিয়া মসজিদের মুয়াজ্জিন...৷ নিয়মিতই কেউ-না-কেউ বর্বরতার শিকার৷ ধর্ম অবমাননার দোহাই দিয়ে কিংবা না দিয়ে কাপুরুষ গুপ্ত ঘাতকেরা খেলেই যাচ্ছে রক্তের হোলি৷ শনিবার বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী ইউনিয়নের উপর চাকপাড়া গ্রামে রক্তাক্ত লাশ হলেন বৌদ্ধ ভিক্ষু ধাম্মা ওয়াসা ওরফে উ গাইন্দ্যা৷

৭৫ বছর বয়সি এই ভিক্ষুকেও কুপিয়েই হত্যা করা হয়৷ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে এ পর্যন্ত তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে দু'জন রোহিঙ্গাও রয়েছে৷ পুলিশ জানিয়েছে, হত্যার সঙ্গে কোনো জঙ্গিগোষ্ঠী জড়িত কিনা, নাকি জমি নিয়ে বিরোধ বা বৌদ্ধ ভিক্ষুদের মধ্যে দ্বন্দ্বের কারণে উ গাইন্দ্যাকে প্রাণ দিতে হলো, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷

কিন্তু পুলিশের তদন্ত নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠেছে৷ তদন্ত ঠিকভাবে হবে কিনা এ নিয়ে দেখা দিয়েছে সংশয়৷ সংশয়ের কারণ স্বয়ং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এবং তাঁর একটি মন্তব্য৷

এমন ঘটনার পর সবাই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দিকেই সবার আগে তাকান৷ বড় কিছু প্রত্যাশার তো উপায় নেই৷ এমনটি ভাবার জো নেই যে, আজ কাউকে হত্যা করা হলো আর কালই প্রকৃত হত্যাকারীকে বা হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার করে ফেলবে পুলিশ৷ দেশের মানুষ তো কত হত্যাকাণ্ডের পর কত ২৪ ঘণ্টা, ৪৮ ঘণ্টা, সপ্তাহ-মাস-বছর পার হতে দেখেছে, প্রকৃত অপরাধী টিকিটিও কেউ দেখেনি৷ বড় আশা মানুষ করবে কীভাবে!

আজকাল মানুষ প্রাথমিকভাবে শুধু আশা করে পুলিশের বিবৃতিটা, প্রতিমন্ত্রী-মন্ত্রী বা প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যটা একটু বাস্তবানুগ এবং দায়িত্বশীল হবে এবং সেই অনুযায়ী ধীরে হলেও তদন্তটাও এগোবে৷ বৌদ্ধ ভিক্ষু ধাম্মা ওয়াসা ওরফে উ গাইন্দ্যা হত্যার পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ওই প্রত্যাশাটুকু পূরণেও নিদারুণভাবে ব্যর্থ হয়েছেন৷

বান্দরবানে শনিবার ভোরে পাওয়া যায় বৌদ্ধ ভিক্ষুর লাশ৷ সেদিন দুপুরেই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলে দেন, ‘‘এটি একটি ‘বিচ্ছিন্ন ঘটনা'৷ এর সঙ্গে তাঁর (ভিক্ষু) আত্মীয়-স্বজন জড়িত রয়েছে বলে মনে করছি৷''

অথচ তদন্ত কর্মকর্তা নন, অকুস্থলে তিনি যাননি, আলামত দেখেননি, এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলেননি, এমনকি কোনো তদন্তকর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করেও এমন বক্তব্য দেননি৷ তাঁর শুধু মনে হয়েছে বান্দরবানে প্রৌঢ় ভিক্ষুকে তাঁর স্বজনরা হত্যা করে থাকতে পারে এবং সেই মনে হওয়া কথটাই তিনি বলে দিয়েছেন৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মতো দায়িত্বশীল ব্যক্তির কাছে তো দূরের কথা, স্বাভাবিক দায়িত্ববোধসম্পন্ন সাধারণ কোনো মানুষের কাছেও এমন বক্তব্য কেউ আশা করে না৷

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এই অপ্রত্যাশিত এবং দুঃখজনক বক্তব্যে অনেকেই ক্ষুব্ধ৷ অনেকেই ইতমধ্যে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন৷ বান্দরবান রাজগুরু কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ মহাথের উচহ্লা ভান্তে বলেছেন, ‘‘স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হয়ত দিব্যজ্ঞানসম্পন্ন ব্যক্তি, নয়ত তাঁর মাথা খারাপ৷ নইলে তিনি এ কথা কেন বললেন যে স্বজনরা জড়িত? দেশের একজন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, তাঁর প্রতিটি কথা সারা বিশ্ব শোনে৷''

সমালোচনার মুখে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অবশ্য বলেছেন, ‘‘কথাটা মুখ ফসকে বেরিয়ে গেছে৷'' এর জবাবও দিয়েছেন অধ্যক্ষ মহাথের উচহ্লা ভান্তে, এ প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘‘ আমরা চাই, মুখ ফসকেও যেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কোনো কথা না বলেন৷ আমরা চাই তাঁর প্রতিটি পদক্ষেপ হবে লোহার মতো শক্ত৷ আর চাই প্রতিটি আইনি ব্যবস্থায় বিশ্ববাসী যেন বুঝতে পারে বাংলাদেশে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা শান্তিতে আছে৷''

দেখে তো মনে হয় বাংলাদেশে শুধু বর্বর গুপ্তঘাতকরাই শান্তিতে আছে৷ প্রতিটি হত্যাকাণ্ডের পর বড় বড় বিবৃতি আর আশ্বাস তো অনেক মন্ত্রীকেই দিতে শোনা যায়৷ কাজ কি খুব একটা দেখা যায়?

আশীষ চক্রবর্ত্তী

আশীষ চক্রবর্ত্তী, ডয়চে ভেলে

মন্ত্রীরা সবসময়ই যেন কথা বলার জন্য অস্থির৷ তাই আমরা শুধু বড় বড় কথা শুনি৷ ক্যামেরা বা মাইক্রোফোন পেলেই ঝাঁপিয়ে পড়েন এমন মন্ত্রী-মিনিস্টার অবশ্য কখনোই খুব কম ছিলনা৷ আগের ‘নিয়ম' অনুসরণ করে এখনকার মন্ত্রীরাও প্রায়ই কথা বলার সময় নিজের মন্ত্রনালয়ের সঙ্গে বক্তব্যের বিষয় মিলছে কিনা তা-ও ভেবে দেখেন না৷

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সেটা দেখেছেন৷ নিজের মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট বিষয়েই কথা বলেছেন তিনি৷ শুধু এত তাড়াতাড়ি কিছু বলা উচিত কিনা, বললে কী বলা উচিত – এ সব না ভেবেই তিনি স্বজনদের ‘টার্গেট' করে ফেলেছিলেন৷ তবু ভালো, ‘মুখ ফস্কে বলে ফেলেছি' বলে নিহত বৌদ্ধ ভিক্ষুর আত্মীয়-পরিজন কিংবা অন্য কোনো ভিক্ষুকে ‘পুলিশের ছত্রিশ ঘা' থেকে বাঁচিয়েছেন৷

এবার সন্ত্রাসীদের বন্দুক, চাপাতি সামলিয়ে দেশটাকে বাঁচান৷ কথা ফস্কে যাওয়া বন্ধ করতে মুখটাকেও একটু ‘সামলান' এবার৷ মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, নিজের মুখই সামলাতে না পারলে, পুরো দেশটা সামলাবেন কিভাবে?

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন