সুন্দর দ্বীপের মনোরম পরিবেশে অফিসের কাজ | অন্বেষণ | DW | 27.08.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

সুন্দর দ্বীপের মনোরম পরিবেশে অফিসের কাজ

করোনা মহামারির কারণে প্রায় গোটা বিশ্বে হোম অফিসের চল বেড়েছে৷ অনেক মানুষ আবার ডিজিটাল যাযাবর হিসেবে পছন্দের জায়গা বেছে নিয়ে ল্যাপটপ দিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন৷ মাদেইরা দ্বীপে তাদেরই এক গ্রাম নজর কাড়ার মতো৷

পর্তুগালের মাদেইরা দ্বীপের দক্ষিণ পশ্চিমে ইউরোপের ডিজিটাল যাযাবরদের প্রথম গ্রাম অবস্থিত৷ পন্টা দু সল গ্রামের স্বর্গীয় প্রকৃতির কোলে সারা বছর ধরে তাপমাত্রা অত্যন্ত মনোরম থাকে৷ যেসব মানুষ শুধু ল্যাপটপ সঙ্গে নিয়ে সব জায়গায় কাজ করতে পারেন, তাদের জন্য জায়গাটি একেবারে আদর্শ৷

আনা মারিয়া গিটসা প্রায় দুই মাস ধরে সেই গ্রামে বাস করছেন৷ রুমেনিয়ার এই অ্যাপ ডিজাইনার নিজের বাসা ছেড়ে সূর্যের কোলের এই জায়গা বেছে নিয়েছেন৷ এমন সিদ্ধান্তের কারণ ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, ‘‘আসলে আমি ডিজিটাল নোম্যাডের জীবনযাত্রা পরখ করে দেখতে চেয়েছিলাম৷ তবে শুরু থেকে পাকা সিদ্ধান্ত নিতে চাই নি৷ তাই ঠিক করলাম, এক মাস এখানে থেকে চেষ্টা করে দেখবো৷ জানতে পারলাম, মাদেইরা দ্বীপে পন্টা দু সল প্রথম ডিজিটাল নোম্যাড গ্রাম৷ এখানে আমাদের ‘কো ওয়ার্কিং স্পেস' রয়েছে৷ সমমনা মানুষের কারণে পরিবেশ বেশ নিরাপদ ও স্পষ্ট মনে হলো৷ তাই এখানে আসার ফ্লাইটের টিকিট কাটার সিদ্ধান্ত নিলাম৷''

ডিজাইনার হিসেবে তিনি প্রায় প্রতিদিন গ্রামের সংস্কৃতি কেন্দ্রে বিনামূল্যের ‘কো ওয়ার্কিং স্পেস' ব্যবহার করেন৷ আনা মারিয়া বলেন, ‘‘এর সুবিধা হলো, আমি সুন্দর নিসর্গের মাঝে সুন্দর পরিবেশে কাজ করতে পারি৷ ফলে আমার উৎপাদনশীলতা ও সৃজনশীলতা বেড়ে যাচ্ছে৷ তাছাড়া সারাদিন কাজের পর আমি কমিউনিটির লোকজনের সঙ্গে অনেক কিছু করতে পারি৷ ফলে মনে হয় সব সময়ে যেন ছুটি কাটাচ্ছি৷''

যেখানে বাকিরা ছুটি কাটাতে যায়, সেখানে কাজের মজাই আলাদা! ইন্দোনেশিয়ার বালি দ্বীপ অন্যতম জনপ্রিয় গন্তব্য৷ লিসবন ও বার্লিনের মতো বড় শহরও এমন মানুষের আকর্ষণ করে৷

ডিজিটাল যাযাবররা গোটা বিশ্বে কাজ করেন৷ কোনো জায়গা আর পছন্দ না হলে এবং মহামারি পরিস্থিতি অনকূল হলে তারা অন্য জায়গায় চলে যান৷ পর্তুগালের গনসালো হোল নিজে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরেছেন৷ তিনি মাদেইরা দ্বীপে ডিজিটাল যাযাবরদের গ্রামের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা৷ ভূ-পর্যটকরা যে কখনো কখনো নিঃসঙ্গ বোধ করেন, সে বিষয়ে তিনি সচেতন৷ গনসালো বলেন, ‘‘আমরা গোটা কাঠামো গড়তে চেয়েছিলাম, যাতে যাযাবর হিসেবে এখানে এলে সব প্রশ্নের জবাব পেয়ে যেতে পারেন৷ জানবেন যে সরকারই সব ইভেন্ট আয়োজন করছে৷ কোনো সমস্যা হলে কমিউনিটি লিডারের কাছে যেতে পারেন৷ আপনার কোনো বন্ধু হাসপাতালে গেলে আপনার দেখাশোনার ব্যবস্থা হবে৷ এখানকার মতো কাঠামো আমি বিশ্বের অন্য কোথাও দেখিনি৷''

পন্টা দু সল গ্রামের জনসংখ্যা প্রায় ৮,২০০৷ সেখানে ২০০ পর্যন্ত ডিজিটাল যাযাবর থাকতে পারেন৷ বাসা অথবা হোটেলে সেই ব্যবস্থা রয়েছে৷ তবে গ্রামের সীমানার বাইরেও এই কমিউনিটি বেড়ে চলেছে৷ স্থানীয় বাসিন্দা ও দোকানদার দিউনিসিউ আদ্রেউ বলেন, ‘‘এর ফলে পন্টা দু সল ও মাদেইরার অর্থনীতি শক্তিশালী হচ্ছে বলে আমরা খুশি৷ শুধু আমার দোকান নয়, এখানে সবারই উপকার হচ্ছে৷''

স্থানীয় বাসিন্দা ডেরিল ফ্রেইতাসও বহিরাগতদের সম্পর্কে ইতিবাচক ধারণা পোষণ করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমরা বিভিন্ন সংস্কৃতি থেকে শিখতে পারি৷ যারা এই দ্বীপে আসেন, তাঁদের সঙ্গে আলাপ করে অনেক কিছু জানতে পারি৷ তারাও আমাদের সংস্কৃতি সম্পর্কে শিখতে পারেন৷ আমার মতে বিষয়টি অত্যন্ত ইতিবাচক এবং এটা খুব ভালো আইডিয়া৷''

মার্চ মাস থেকে ফেদেরিকো ভিওলান্তে গ্রামের একটি ভিলায় বাস করছেন৷ ২০১৯ সাল থেকে আইটি ম্যানেজার হিসেবে তিনি ডিজাটাল যাযাবরের জীবন বেছে নিয়েছেন৷ ইটালির এই মানুষটি অনেক আগেই রোমে নিজের ফ্ল্যাট ছেড়ে দিয়েছেন৷ ফেদেরিকো মনে করেন, ‘‘বিভিন্ন সংস্কৃতি ও পরিস্থিতির সঙ্গে যোগাযোগ রেখে এবং অসাধারণ সব জায়গায় থাকার কারণে সত্যি আমি সমৃদ্ধ হচ্ছি৷ আমার মন ও দৃষ্টিভঙ্গি আরও উদার হচ্ছে৷ আমার মতে, সেটা খুব জরুরি৷''

পন্টা দু সল গ্রামে প্রতিদিন পেশাদারি প্রশিক্ষণের আসর বসে৷ কমিউনিটির সদস্যরা নিজেদের দক্ষতা বাকিদের সঙ্গে ভাগ করে নেন৷ ফেদেরিকো ভিওলান্তে বলেন, ‘‘এই গ্রাম সত্যি বিভিন্ন পেশা ও চাকুরির মানুষের মিলনকেন্দ্র৷ কারও অভিজ্ঞতা বেশি, কারও কম৷ ফলে আমার সৃজনশীলতা ও দক্ষতা আরও উদ্দীপনা পাচ্ছে৷ আমার চাকুরির উন্নতি ও পেশার জন্য সেটা সত্যি সহায়ক হচ্ছে৷''

কাজের পর স্নায়ু শিথিল করতে যোগাসন বা তাই চি-র ব্যবস্থা রয়েছে৷ মাদেইরা দ্বীপের এই গ্রাম ডিজিটাল যাযাবরদের শুধু সাময়িক বাসস্থান দিচ্ছে না, অবিস্মরণীয় অভিজ্ঞতার সুযোগও করে দিচ্ছে৷

টেওডোরা মাভ্রোপুলুস/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়