1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
ছবি: Huang Jingwen/Photoshot/picture alliance
সমাজ-সংস্কৃতিসলোমন দ্বীপপুঞ্জ

সলোমন দ্বীপপুঞ্জের সঙ্গে চীনা নিরাপত্তা চুক্তি নিয়ে উদ্বেগ

৩ এপ্রিল ২০২২

প্রশান্ত মহাসাগরের ছোট দ্বীপরাষ্ট্র সলোমন আইল্যান্ডসে চীনা গতিবিধি নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে৷ সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীরা সলোমনে চীনের সামরিক উপস্থিতি নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন৷

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%B8%E0%A6%B2%E0%A7%8B%E0%A6%AE%E0%A6%A8-%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A7%80%E0%A6%AA%E0%A6%AA%E0%A7%81%E0%A6%9E%E0%A7%8D%E0%A6%9C%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A6%99%E0%A7%8D%E0%A6%97%E0%A7%87-%E0%A6%9A%E0%A7%80%E0%A6%A8%E0%A6%BE-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%AA%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A6%BE-%E0%A6%9A%E0%A7%81%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A6%BF-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A6%89%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A7%87%E0%A6%97/a-61344921

চীনের আয়তন প্রায় ৯৬০ কোটি বর্গকিলোমিটার৷ ২০২১ সালের পরিসংখ্যান বলছে চীনে জনসংখ্যা প্রায় ১৪২ কোটি৷ এদিকে সলোমনের আয়তন প্রায় ২৮ হাজার ৪০০ বর্গকিলোমিটার বিশ্ব ব্যাংকের তথ্য বলছে, সলোমনের জনসংখ্যা ছয় লাখ ৮৬ হাজার, যা চীনের তুলনায় খুবই কম৷

দ্বীপরাষ্ট্রটি ২০১৯ সালে তাইওয়ানকে বাদ দিয়ে বেইজিংয়ের প্রতি তার কূটনৈতিক সমর্থনের নীতি পরিবর্তন করে৷ এরপরই দুই দেশের ঘনিষ্ঠতা নিয়ে জল্পনা আরও বেড়েছে৷

সলোমন দ্বীপপুঞ্জ কর্তৃপক্ষ অবশ্য স্পষ্ট জানিয়েছে, সে দেশে সামরিক ঘাঁটি তৈরির অনুমতি পাবে না চীন৷ চীনের সঙ্গে একটি নিরাপত্তা চুক্তির পরিকল্পনা চলাকালেই দেশটির প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে এই বার্তা দেয়া হয়েছে৷ দুই দেশের মধ্যে নিরাপত্তা সংক্রান্ত খসড়া চুক্তি নিয়ে কথা এগিয়েছে৷ তবে শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী মানাসে সোগাভারে জানিয়েছেন, তিনি সামরিক ঘাঁটি বানানোর জন্য চীনকে আমন্ত্রণ করেননি৷

সম্প্রতি দুই দেশের মধ্যে নিরাপত্তা ব্যবস্থা সংক্রান্ত একটি খসড়া চুক্তি ফাঁস হয়েছে৷ ফাঁস হওয়া সেই নথিতে ইঙ্গিত ছিল, চীন যুদ্ধজাহাজ-সহ দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপের দেশটিতে তার সামরিক উপস্থিতি বাড়াতে পারে৷ আশঙ্কা রয়েছে চুক্তি সই হলে চীনের নৌবাহিনীর জাহাজ এই অঞ্চলে প্রবেশ করতে পারে৷ তবে ওই খসড়া চুক্তিতে এখনও মন্ত্রীরা সই করেননি৷

সরকারের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, নিরাপত্তার বিস্তার নিয়ে প্রশাসন যথেষ্ট সচেতন৷ এ বিষয়ে নজরদারি বজায় রাখবে৷ তবে সোগাভারে চীনের সঙ্গে নিরাপত্তা চুক্তির বিষয়ে বিস্তারিতভাবে কিছু জানাননি৷

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তরফে এই বিষয়ে বলা হয়েছে, এটি নিরাপত্তা চুক্তির ‘স্টার্টিং পয়েন্ট'৷ সাধারণ মানুষের এবং সম্পদের নিরাপত্তার কথা ভেবে এই চুক্তি৷ চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ানের বক্তব্য, ‘‘সংবাদমাধ্যমের মন্তব্য, জল্পনা ভিত্তিহীন৷''

ছোট এই দেশে চীনের আধিপত্য নিয়ে আশঙ্কা বেড়েছে প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকার বাকি দেশগুলিতেও৷ ২০২১ সালের নভেম্বরে সরকারবিরোধী প্রতিবাদ আন্দোলনে চার জন প্রাণ হারান সলোমনে৷ রাজধানী হোনিয়ারার বড় একটি অংশে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়৷

প্রশান্ত মহাসাগরীয় নিরাপত্তার পরিপ্রেক্ষিতে চীনের উপস্থিতির প্রয়োজন নেই বলেই মন্তব্য করেছিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আর্ডার্ন৷ একই বক্তব্য, ফেডারেটেড স্টেটস অফ মাইক্রোনেশিয়ারও৷ নিরাপত্তার খাতিরে চীনের সঙ্গে এই চুক্তি থেকে সরে আসতে সলোমন প্রশাসনকে অনুরোধ জানিয়েছে তারা৷ এর ফলে অ্যামেরিকা ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশগুলির মধ্যে যুদ্ধের আশঙ্কা রয়েছে বলেও জানিয়েছে মাইক্রোনেশিয়া৷

২০১৭ সালের একটি দ্বিপক্ষীয় নিরাপত্তা চুক্তির অধীনে সলোমনের রাজধানী হোনিয়ারাতে শান্তি বজায় রেখেছে অস্ট্রেলিয়া৷ চীন-সলোমন চুক্তি প্রসঙ্গে স্বভাবতই উদ্বিগ্ন অস্ট্রেলিয়া৷ সেখানকার প্রতিরক্ষা মন্ত্রী পিটার ডাটন জানান, সোগাভারের দৃষ্টিভঙ্গিকে তিনি শ্রদ্ধা করেন৷ পাশাপাশি সলোমনকে নিরাপত্তা সতর্ক থাকারও আহ্বান জানিয়েছেন তিনি৷

স্কাই নিউজকে দেয়া একটি সাক্ষাৎকারে ডাটন বলেন, ‘‘দক্ষিণ চীন সাগরে ২০টি সামরিক উপস্থিতি তৈরি করেছে চীন৷ প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপগুলি নিয়ে চীন একই পথে এগোচ্ছে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে ক্যানবেরা৷ পাপুয়া নিউগিনিতে চীন সামরিক বন্দর গড়তে চায়৷ শ্রীলঙ্কাতে ইতিমধ্যে একটি বন্দর রয়েছে চীনের৷ নিশ্চিতভাবে অন্য কোথাও বন্দর তৈরির জায়গা দেখছে চীন৷''

২০১৮ সালে পাপুয়া নিউগিনির একটি নৌ ঘাঁটি পুনর্নিমাণ করতে চেয়েছিল চীন৷ তবে চীনের বদলে উত্তরের নিকটতম প্রতিবেশী অস্ট্রেলিয়াকে সে দায়িত্ব দেয় পাপুয়া নিউগিনি৷ এবার যদি চীন সলোমন দ্বীপপুঞ্জে সামরিক ঘাঁটি তৈরি করে,  সে ক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়াকেও সামরিক গতিবিধি, সেনা মোতায়েন বাড়াতে হবে৷ কারণ সলোমন দ্বীপপুঞ্জ অস্ট্রেলিয়া থেকে খুব বেশি দূরে নয়৷ চীন ও সলোমন দ্বীপপুঞ্জের এই চুক্তি প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় অস্থিরতা তৈরি করতে পারে, এমনই মত অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মারিসে পাইনেরও৷ তিনি বলেন, ‘‘প্রশান্ত মহাসাগরীয় পরিবারের বাইরে অন্য কারও নিরাপত্তা বিষয়ে উদ্যোগ নেয়ার প্রয়োজন আছে বলে মনে করি না৷''

চীনের প্রভাব কমাতে ইতিমধ্যে ওশেনিয়া অঞ্চলের দেশটিতে নতুন করে দূতাবাস খোলার কথা জানিয়েছে অ্যামেরিকা৷ চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে সলোমনে নিজেদের প্রভাব বাড়াতে উদ্যোগী হয়েছে মার্কিন প্রশাসনও৷

আরকেসি/এসিবি (রয়টার্স)

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

বুড়িগঙ্গায় নৌদুর্ঘটনায় নিহতদের লাশ

নৌদুর্ঘটনায় মৃত্যু : অব্যবস্থাপনা, অসচেতনতা ও সরকারের দায়

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান