সমুদ্রের ঢেউ থেকে বিদ্যুৎ | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 21.09.2011
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞান পরিবেশ

সমুদ্রের ঢেউ থেকে বিদ্যুৎ

বাতাস, সূর্যের আলো এবং বর্জ্য থেকে জ্বালানি আহরণ এখন আর কষ্টকল্পিত কোন ব্যাপার নয়৷ এবার স্পেনের আটলান্টিক উপকূলের ছোট্ট একটা গ্রামে সমুদ্রের ঢেউ থেকে বিদ্যুৎ তৈরির প্রকল্প চালু হয়েছে৷

Sea Surfing is getting popularity in Bangladesh. First Bangladeshi surfer, Jafar Alam, Initiated a center for Surfing in Cox’s Bazar. First Bangladeshi Surfer Jafar Alam Shared these photos with Deutsche Welle for Online use only.

সমুদ্রের ঢেউ থেকে বিদ্যুৎ তৈরির প্রকল্প চালু করলো স্পেন

এই বাস্ক গ্রামটির নাম মুট্রিকু৷ পাঁচ হাজার মানুষের বাস সেখানে৷ সমুদ্র তট, মাছ ধরার ট্রলার, সখের প্রমোদতরি অর্থাৎ ইয়ট৷ সব মিলিয়ে ছবির মত এক নিসর্গ৷ কেউ যদি হঠাৎ করে এখানে উপস্থিত হয়, সে ভাবতেই পারবে না যে এরকম একটা ছোট্ট গাঁয়ে রয়েছে অতি আধুনিক এক বিদ্যুৎ প্রকল্প৷ সমুদ্রের ঢেউ থেকে বিদ্যুৎ তৈরি করছে এই ওয়েভ জেনারেটর প্ল্যান্ট৷ এই প্রকল্প চালু হয়েছে গত জুলাই মাসে৷ প্রায় ৬০০ বাসিন্দার জন্য সরবরাহ করছে বিদ্যুৎ৷

সমুদ্রের পারে বসানো আছে কংক্রিটের এক স্থাপনা, তাতে মোট ১৬টি কুঠুরি৷ কুঠুরিগুলো খোলা৷ আছে জেনারেটরের সঙ্গে লাগানো টার্বাইন৷ সমুদ্রের বিশাল বিশাল ঢেউ যখন এসে আছড়ে পড়ে, বাতাস ঢুকে যায় সবেগে ঐ শূন্য কুঠুরিগুলোতে৷ বাতাস ওপরে উঠে যায়৷ তার শক্তিতে টার্বাইনগুলো ঘুরতে থাকে৷ তৈরি হয় বিদ্যুৎ৷

Oily waves come ashore in Orange Beach, Ala., Tuesday, June 29, 2010. Heavy seas from Tropical Storm Alex helped push more oil from the Deepwater Horizon disaster towards the Florida and Alabama coasts. (AP Photo/Dave Martin)

স্পেনের একটি সমুদ্র সৈকত

কিছু পরীক্ষামূলক প্রকল্পে এই প্রযুক্তি ব্যবহৃত হচ্ছে৷ তবে কিনা মুট্রিকুর এই ওয়েভ এনার্জি প্ল্যান্টটিই প্রথম বাণিজ্যিকভাবে চালু হয়েছে৷ টার্বাইনগুলো সরবরাহ করেছে জার্মান একটি কোম্পানির স্কটিশ অঙ্গ সংস্থা৷ প্রকল্পের বাকি অংশ তৈরি করেছে স্থানীয় বাস্ক কোম্পানি৷ প্রায় ৭ মিলিয়ন ইউরো ব্যয় হয়েছে মুট্রিকুর এই প্রকল্পে৷ বাস্ক অঞ্চলের বিদ্যুৎ সরবরাহকারী কোম্পানি ইভ-এর প্রধান হাভিয়ের মার্কেস জানিয়েছেন, নবায়নযোগ্য জ্বালানি ক্ষেত্রে মুট্রিকু একমাত্র মডেল প্রকল্প হয়ে থাকবে না৷ তিনি বললেন: ‘‘আমরা বাস্ক অঞ্চলের সমুদ্রের ঢেউ'এর একটা অ্যাটলাস তৈরি করেছি৷ কোন্ জায়গার ঢেউ থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সম্ভাবনা বেশি তার হিসাব করে নিয়েছি আমরা৷ আমরা মনে করছি, এই প্রযুক্তির সাহায্যে আমরা বাস্ক অঞ্চলের বিদ্যুৎ চাহিদার শতকরা ১০ ভাগ পূরণ করতে পারবো৷''

তবে এই প্রযুক্তি যে একেবারে সমস্যাহীন তা নয়৷ মুট্রিকুর প্রকল্পটি চালু করা সম্ভব হয়েছে পরিকল্পিত সময়সূচির প্রায় দুই বছর পর৷ বছরে এই প্রকল্প মাত্র ৬০০ মেগাওয়াট ঘন্টা বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে সক্ষম৷ সেই হিসেবে তার ব্যয়ভার খুব বেশি বলে মনে করছেন সমালোচকরা৷ বাস্ক জ্বালানি এজেন্সির কর্মকর্তা হোসে ইগনাসিও কিন্তু তা মনে করেননা৷ তিনি বলেন, এধরনের প্রতিটি বিদ্যুৎ প্রকল্পই পরিবেশবৈরী বিদ্যুৎ উৎপাদন এবং বিদ্যুৎ আমদানি ঠেকাতে সাহায্য করবে৷ তাছাড়া এর মধ্য দিয়ে শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো এবং উদ্যোক্তারা নতুন প্রযুক্তি বের করার, নতুন নতুন বাজার সৃষ্টি করার সুযোগ পাবে৷

প্রতিবেদন: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন   

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন