সংকট গভীর হচ্ছে ইরানে | বিশ্ব | DW | 01.01.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ইরান

সংকট গভীর হচ্ছে ইরানে

সরকারবিরোধী বিক্ষোভে এ পর্যন্ত ১০ জন নিহতের খবর পাওয়া গেছে৷ দেশটির প্রেসিডেন্ট হাসান রোহানি সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন৷ তবে সহিংসতা বরদাস্ত করা হবে না বলেও হুঁশিয়ার করেছেন৷

এক রাতেই ১০ জন নিহত হওয়ায় নড়েচড়ে বসেছে ইরান সরকারের উচ্চ মহল৷ জরুরি বৈঠক ডাকার কথাও শোনা গেছে৷ চারদিনের বিক্ষোভে এ পর্যন্ত ১২ জন নিহত হয়েছেন৷ গ্রেফতার হয়েছেন শতাধিক৷

স্থানীয় টেলিভিশনের খবর মতে, মৃতদের ছ'জন মারা গেছেন তুয়াসের্কান নামের একটি ছোট্ট শহরে৷ আরো দু'জন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের শহর ইজেহতে৷ সরকারি টেলিভিশনটির খবরে বলা হয়, তুয়াসের্কানে তিন জন গুলিবিদ্ধ হয়ে এবং তিন জন সংঘর্ষে মারা যান৷

বিক্ষোভে ক্ষয়ক্ষতির ছবি দেখিয়ে সংবাদমাধ্যমটির খবরে আরো বলা হয়, ‘‘গত রাতের ঘটনায় দুঃখজনকভাবে বিভিন্ন শহরে ১০ জন মারা গেছেন৷'' তবে এর বেশি কোনো তথ্য উপস্থাপন করেনি তারা৷

ইজেহ শহরের সংসদ সদস্য হেদায়েতুল্লাহ খাদেমি শহরটিতে সোমবার দু'জনের মৃত্যুর খবর জানান৷ বলেন, ‘‘আমি ঠিক জানি না কে গুলি চালিয়েছিল, পুলিশ না বিক্ষোভকারীরা৷'' একটি সংবাদ সংস্থাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলছিলেন তিনি৷

সরকারি টেলিভিশনের রিপোর্টে বলা হয়, ‘‘সশস্ত্র বিক্ষোভকারীরা কয়েকটি পুলিশ স্টেশন ও সামরিক ঘাঁটি দখলের চেষ্টা করে৷ কিন্তু নিরাপত্তা বাহিনী দৃঢ়তার সাথে তা মোকাবেলা করে৷'' তবে ঠিক কোথায় এই ঘটনাগুলো হয়েছে, তা পরিষ্কার করে বলেনি তারা৷

এর আগে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির বিরুদ্ধে শুরু হওয়া প্রতিবাদ চার দিনে সরকার বিরোধী বিক্ষোভে রূপ নেয়৷ ইরানে চতুর্থ প্রেসিডেন্ট হাসান রোহানি সবাইকে শান্ত হবার আহ্বান জানান৷ তিনি বলেন যে, সরকারের সমালোচনা করার অধিকার জনগণের আছে৷ কিন্তু কোনো ধরনের সহিংসতা বরদাস্ত না করার ঘোষণা দেন তিনি৷ এরপরও বিক্ষোভ থামেনি৷ বরং সামাজিক গণমাধ্যমে রাজধানী তেহরানসহ ৫০টি শহরে বিক্ষোভের ঘোষণা দেয়া হয়৷

ভিডিও দেখুন 01:47
এখন লাইভ
01:47 মিনিট

Iranian protesters defy government warning

জেডএ/ডিজি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন