রাজাকারের তালিকা তৈরি করছে কে? | বিশ্ব | DW | 13.12.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

রাজাকারের তালিকা তৈরি করছে কে?

বিজয় দিবসে রাজাকারের তালিকা প্রকাশের কথা বলা হয়েছিল৷ তবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী ডয়চে ভেলেকে বলেছেন সেটা একদিন এগিয়ে ১৫ ডিসেম্বর প্রকাশ করা হবে৷ কিন্তু তালিকার কী অবস্থা এরং কারা করছে কেউই নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না৷

গত এপ্রিলে রাজাকারের তালিকা প্রকাশের বিষয়টি সামনে আসে৷ ২৮ এপ্রিল মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে মুক্তিযুদ্ধের সময় বেতন-ভাতা নেওয়া রাজাকারদের তালিকা জেলা প্রশাসন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে সংগ্রহের সুপারিশ করা হয়৷ ২১ মে জেলা প্রশাসকদের চিঠি দেয়া হয়৷

গত ২৮ আগস্ট আবারো তালিকার পঠানোর জন্য তাগিদ দিয়ে জেলা প্রশাসকদের চিঠি দেয়া হয়৷ প্রথম চিঠিতে শুধু তালিকা সংরক্ষণের নির্দেশ দেয়া হয়েছিল৷

তবে এখন পর্যন্ত মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় থেকে কোনো তালিকা পায়নি বলে জানানো হয়েছে৷ আর মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ও জেলায় জেলায় চিঠি দিয়ে তেমন সাড়া পায়নি৷ মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব এস এম আরিফ-উর-রহমান ডয়চে ভেলেকে বলেন,‘‘স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে বলা হয়েছিলো একটি তালিকা তৈরির জন্য জেলা প্রশাসকদেরও বলার কথা৷  তারা হয়তো একটা তালিকা করেছে৷ কিন্তু আমার হাতে সেই তালিকা আসেনি৷

অডিও শুনুন 01:26

জেলা প্রশাসকদের তালিকা হাতে আসেনি: সচিব

এখানে ক্রাইটেরিয়া কি হবে, কিভাবে তালিকাভূক্ত হবে-এনিয়ে এখানো সিদ্ধান্ত হয়নি৷ মন্ত্রী মহোদয় হয়তো  তালিকা প্রকাশের ঘোষণা দিতে পারেন দু-একটি জায়গায়৷ অনেকে হয়তো সেই রেফারেন্সে কথা বলতে চান৷ তালিকা যেহেতু আমার হাতে আসেনি তাই তালিকার ব্যাপারে আমি কিছু বলতে পারব না৷'' রাজাকারের তালিকা তৈরিতে কি নীতিমালা অনুসরণ করা হচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,‘‘আমি এখনো এ ব্যাপারে খুব একটা ভালো জানি না৷ আমারা জেলা  উপজেলা থেকে যে তালিকা চেয়েছিলাম ওদের লিস্টেড যেগুলো তার রেসপন্স খুব কম৷ বিভিন্ন জেলা উপজেলা থেকে ২৭০ জনের একটা তালিকা আমরা পেয়েছি৷ কোনো কোনো জেলা উপজেলা থেকে একটা- দুইটা নাম এসেছে৷''

এই তালিকার ব্যাপারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে দায়িত্বে দেয়া হয়েছে অতিরিক্ত সচিব আবুবকর সিদ্দিককে তিনি কাজের অগ্রগতি নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাননি৷ তবে মন্ত্রনালয় সূত্র জানায়, জেলা প্রশাসকদের চিঠি দেয়া হলেও কাজের অগ্রগতি নেই৷ কারণ রাজাকারের সংজ্ঞা নিয়ে জটিলতা আছে৷ কোনো স্পষ্ট নির্দেশনা নেই৷ আর দালাল আইনে যারা ক্ষমা পেয়েছে তাদের ব্যাপারে কি করা হবে তাও বলা হয়নি৷ সবচেয়ে বড় কথা হলো কাজটি কোথা থেকে শুরু হবে আর কেথায় শেষ হবে তা পরিষ্কার নয়৷ ফলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় চিঠি পাঠানো ছাড়া আর কোনো কাজ এগোতে পারেনি৷

এদিকে আর মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান শাজাহান খান বলেন,‘‘আমরা ১৬ ডিসেম্বর থেকে রাজাকারদের তালিকা প্রকাশ শুরু করবো৷ কাজ চলছে৷''

কতজনের তালিকা ১৬ ডিসেম্বরে প্রকাশ করা হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন,‘‘এটা জামুকার (জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল) মহাপিরচালক বলতে পারবেন৷ তারা কাছে তালিকা জমা আছে৷''

অডিও শুনুন 00:39

হাতে ২০ হাজারের একটি তালিকা আছে: মন্ত্রী

কিন্তু জামুকার মহাপরিচালক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন,‘‘এই তালিকা নিয়ে আমাদের সঙ্গে কোনো কথা, আলোচনা বা বৈঠক হয়নি৷ আর এটার সঙ্গে আমরা যুক্ত নই৷''

গত ১ ডিসেম্বর সংসদীয় কমিটি জানিয়েছিলো জামুকার সঙ্গে এই তালিকা চূড়ান্ত করতে ১০ ডিসেম্বর বৈঠক হবে৷ কিন্তু এধরনের কোনো বৈঠক হয়নি বলে জানান জামুকার মহাপরিচালক৷

সংসদীয় কমিটির ১ ডিসেম্বরের বৈঠকেই তালিকার কাজের অগ্রগতি প্রতিবেদন পেশ করা হয়৷ জানানো হয়, চাঁদপুর থেকে নয় জন, মেহেরপুরে ১৬৯ জন, শরীয়তপুরে ৪৪ জন, বাগেরহাটে এক জন এবং নড়াইল থেকে ৫০ জন রাজাকারের তালিকা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে৷ খাগড়াছড়ি, মাগুরা, শেরপুর, গাইবান্ধা ও যশোরের শার্শা উপজেলায় কোনো বেতনভোগী রাজাকার ছিল না৷

কয়েকজন জেলা প্রশাসকের সঙ্গে কথা বলে জানাগেছে তারা রাজাকারের তালিকা পাঠানোর জন্য মন্ত্রণালয়ের চিঠি তারা পেয়েছেন৷ তবে তারা ঠিক জানেন না কবের মধ্যে তালিকা পাঠাতে হবে বা কবে প্রকাশ করা হবে৷  সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল হক জানান, ‘‘আমরা চিঠি পাওয়ার পর তালিকার কাজ শুরু করেছি৷ তৈরি হলেই পাঠিয়ে দেব৷''

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক অবশ্য ডয়চে ভেলেকে বলেন,‘‘আমাদের হাতে ২০ হাজারের একটি তালিকা আছে সেটা আমরা যাচাই বাছাই করছি৷ ১৫ ডিসেম্বরে আশা করি আমরা প্রথম দফার তালিকা প্রকাশ করব৷ আমরা চেষ্টা করছি , দেখি কি করা যায়৷''

তিনি নিশ্চিত করেন ১৬ ডিসেম্বর নয় ১৫ ডিসেম্বর প্রথম দফা তালিকা প্রকাশ করা হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন