যোধপুরে বাউরি সংরক্ষণ করছেন আয়ারল্যান্ডের ব্যক্তি | অন্বেষণ | DW | 11.03.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

যোধপুরে বাউরি সংরক্ষণ করছেন আয়ারল্যান্ডের ব্যক্তি

গোটা বিশ্বে পানিসম্পদের ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তা বাড়ছে৷ আধুনিক, প্রযুক্তিভিত্তিক সমাধানসূত্র ছাড়াও আমাদের পূর্বপুরুষদের দেখানো পথে এগোলেও পানি সংরক্ষণ করা যে সম্ভব, এক ব্যক্তি হাতেনাতে তার প্রমাণ দিয়ে চলেছেন৷

ভারতের রাজস্থান রাজ্যের যোধপুর শহরে প্রায় তিনশো বছর পুরানো ‘বাউরি' বা সিঁড়ির মতো দেখতে কুয়ার পানি একেবারে স্বচ্ছ৷ ক্যারন রন্সলি সময় পেলেই সেখানে যেতে খুব ভালোবাসেন৷ ক্যারন রন্সলি নামের ৭৫ বছর বয়সি আইরিশ এই ব্যক্তি ঐতিহাসিক এই শহরে প্রাচীন জলাধার সংস্কারের কাজ করেন৷ তিনি মনে করিয়ে দেন. ‘‘সাধারণত মহারানিদের নির্দেশেই এমন সব স্থাপনা তৈরি করা হয়েছিল৷ তাঁরা এই শহরের মহারাজাদের রাজকুমারী অথবা রানি ছিলেন৷ পানি ও সাধারণ মানুষের জন্য পানির সরবরাহ নিয়ে তাঁরা সব সময়ে চিন্তা করতেন৷ নির্ভরযোগ্য ও স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে পানি ধরে রাখার কারণেই শহরের অস্তিত্ব নিশ্চিত করা গেছে৷ আমার মতে, শহরের সেরা পানি নীচেই দেখা যাচ্ছে৷ এটি ভূগর্ভস্থ পানি৷''

পানি সংরক্ষণের ঐতিহ্য

ভারতের যে সব জায়গায় সবচেয়ে কম বৃষ্টিপাত হয়, যোধপুর সেগুলির মধ্যে একটি৷ পুরানো দিনে স্টেপ ওয়েলই শহরের পানির মূল উৎস ছিল৷ টিউবওয়েল ও ভূগর্ভস্থ পানি তোলার অন্যান্য পদ্ধতি আসার পর সেই ঐতিহ্য বিস্মৃত হয়ে যায়৷ মাত্র এক বছর আগে রন্সলি জায়গাটির সংস্কার করেছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি হৃদয়বিদারক এক সংগ্রামে জড়িয়ে রয়েছি৷ মূল্যবান ঐতিহ্য রক্ষার তাগিদেই আমি এই কাজ করি৷ এ সব জায়গা সত্যি মূল্যবান৷ এগুলি কোনো সাজানো পরিত্যক্ত ভবন নয়৷ পানি সঞ্চয়ের এই প্রণালী রাজস্থানের প্রাচীন যুগে সমাজের বাস্তববুদ্ধির অমূল্য দৃষ্টান্ত৷ তারা কীভাবে পানি সম্পদ একত্রিত করতো, তাদের অস্তিত্বের জন্য যার মূল্য ছিল অপরিসীম৷ আমাদের জীবনে পানির মূল্যের পবিত্র মর্যাদা দিতে এই স্থাপনাকে মন্দির হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে৷ '' 

ভিডিও দেখুন 05:55

ভারতে পানি সংকটের সমাধান দিচ্ছেন আইরিশ পরিবেশবিদ

পাম্পের মাধ্যমে এখান থেকে পানি সংগ্রহ করে পানি সরবরাহ বিভাগে পাঠিয়ে দেওয়া হয়৷ রন্সলি বলেন, ভারতের প্রতি ভালবাসা আসলে তাঁর দাদার কাছ থেকে পাওয়া, যিনি ঔপনিবেশিক ভারতে ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজ করেছিলেন৷ রন্সলি নিজে অনেক দেশে বসবাস করেছেন৷ কিন্তু যোধপুরের প্রাচীন জলাধারগুলি তাঁর জীবনে নতুন লক্ষ্যমাত্রা যোগ করেছে৷

জলাধার সংস্কারের প্রাসঙ্গিকতা

রন্সলি মাহিলাবাদ ঝলরা জলাধার বেশ দ্রুত পরিশোধন করেছেন৷ এককালে রাজপরিবারের নারী সদস্যরা ঝালরায় গিয়ে সাঁতার কাটতেন ও নিজেদের মনোরঞ্জন করতেন৷ যোধপুর শহরে পাঁচশোরও বেশি ঐতিহাসিক জলাধার রয়েছে, যেগুলি আজও মানুষের কাজে লাগতে পারে৷ পৌর কর্তৃপক্ষকে শুধু সেগুলি সংস্কার করে রক্ষণাবেক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে৷ স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে প্রত্যুষ যোশী বলেন, ‘‘এ বিষয়ে সচেতনা বাড়াতে বিভিন্ন সংগঠন একাধিক স্তরে কর্মসূচি চালিয়েছে৷ তা সত্ত্বেও মানুষ প্রাচীর নষ্ট করে বা পানি দূষণের চেষ্টা করে৷ কিন্তু আমাদের সেটা থামাতে হবে৷ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে আমরা পানি সংকট দেখতে পাচ্ছি৷ এই সম্পদ সংরক্ষণ না করলে আমাদেরও জলসংকটের মুখোমুখি হতে হবে৷''

মান্দোর রাজ্যের শাসক রাও যোধা ১৪৫৯ সালে যোধপুর শহর পত্তন করেছিলেন৷ তখন থেকেই মেহরানগড় দুর্গ শহরের মূল প্রতীক৷ সেই দুর্গের রক্ষণাবেক্ষণের জন্য তৈরি ট্রাস্টই স্টেপওয়েল সংস্কারের জন্য অর্থ ও অন্যান্য সহায়তা দিচ্ছে৷ ট্রাস্টের প্রতিনিধি করণী সিং জসৌল বলেন, ‘‘সামগ্রিকভাবে বলতে গেলে আমাদের সামনে দুটি চ্যালেঞ্জ রয়েছে৷ প্রথমত মানুষের মধ্যে সচেতনতার অভাব৷ দ্বিতীয়ত, ব্যবহারের অভাবে সেগুলির মধ্যে নোংরা জমে গেছে৷ সে সব হাতে করে দূর করতে হবে৷ যন্ত্রপাতি ব্যবহারের সুযোগ নেই৷ শহরের যুব প্রজন্ম ও কিছু সংগঠন একযোগে স্টেপওয়েলগুলি পরিস্কার ও সংরক্ষণের কাজ শুরু করেছে৷''

রন্সলির ছেলে ও মেয়ে ব্রিটেনে নিজেদের পরিবারের সঙ্গে থাকেন৷ মাঝেমধ্যে তিনি তাদের সঙ্গে দেখা করতে যান৷ তবে তাঁর মতে, যোধপুরের পুরানো জলাধারগুলিও তাঁর পরিবারের মতো৷ ক্যারন রন্সলি বলেন, ‘‘আমার হৃদয়ে এক মা আছেন, আর সেটাই যথেষ্ট৷ এই সব জায়গাও আমার মা৷ তাই যেখানেই যাই না কেন, আমার গ্রহের সঙ্গে, আমার পূর্বপুরুষদের সঙ্গে এক অসাধারণ সংযোগের অনুভূতি পাই৷ আমি জানি, আমার মা-ই সেরা পূর্বপুরুষ৷ অর্থাৎ এ সবও আমার মা৷ আর আমি তাদের জন্য এসেছি, তাদের যত্ন নিতে চাই৷ যে বাউরি নিয়ে কাজ করি, সেটি আমার পরিবারও বটে৷''

রন্সলির বয়স ৭৫৷ কিন্তু তিনি আরও বেশি স্টেপওয়েল বাঁচাতে আরও ৫০ বছর বাঁচতে চান৷

অশোক কুমার/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন