বিদায় নিলেন ম্যার্কেল | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 03.12.2021

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

বিদায় নিলেন ম্যার্কেল

দীর্ঘ প্রায় ১৬ বছরের কার্যকালের পর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় নিলেন জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ আগামী সপ্তাহে নতুন সরকারের কার্যভার গ্রহণ করার কথা৷

ক্ষমতা হস্তান্তরের ঠিক আগে আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় নিলেন জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ যথাযোগ্য সামরিক মর্যাদার সঙ্গে বার্লিনে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দফতরে সেই অনুষ্ঠানে কুচকাওয়াজ ও সৈন্যদের অর্কেস্ট্রায় বাজনা শোনানো হলো৷ দীর্ঘ প্রায় ১৬ বছর সরকার প্রধান হিসেবে বিদায় নেবার আগে নিজের ভাষণে ম্যার্কেল গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ রক্ষার পক্ষে সওয়াল করলেন৷ তার মতে, যখনই কোথাও ঘৃণা ও হিংসাকে নিজস্ব স্বার্থ রক্ষার বৈধ হাতিয়ার হিসেবে গণ্য করা হয়, তখনই গণতন্ত্রকামী হিসেবে আমাদের সহিষ্ণুতার সীমা শেষ হওয়া উচিত৷ তিনি জার্মানির মানুষের উদ্দেশ্যে ঘৃণার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানালেন৷ অন্যের দৃষ্টিভঙ্গি থেকেও সবসময়ে জগতকে দেখার পরামর্শ দেন তিনি৷ কখনোই আশাবাদ ত্যাগ না করারও ডাক দেন ম্যার্কেল৷

ম্যার্কেল নিজের কার্যকালে বিভিন্ন সংকটের উল্লেখ করেন৷ জলবায়ু পরিবর্তন, ডিজিটালাইজেশন, শরণার্থী সংকটের মতো বিশাল চ্যালঞ্জে সামলাতে নিজের অভিজ্ঞতাও তুলে ধরেন তিনি৷ এ প্রসঙ্গে আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান ও বহুপাক্ষিক কাঠামোগুলিকে ম্যার্কেল অপরিহার্য বলে বর্ণনা করেন৷ রাজনীতিক ও মানুষ হিসেবে তিনি এমন চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও নিজেকে পরিপূর্ণ মনে করেছেন, বলেন ম্যার্কেল৷

বিদায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ম্যার্কেলের সম্ভাব্য উত্তরসূরী ওলাফ শলৎস৷ ম্যার্কেল তাঁকে ও তাঁর ভবিষ্যৎ প্রশাসনকে আন্তরিক শুভকামনা জানান৷ প্রেসিডেন্ট ফ্রাংক-ভাল্টার স্টাইনমায়ারও ম্যার্কেলকে বিদায় জানাতে উপস্থিত ছিলেন৷ করোনা সংকটের কারণে অনুষ্ঠানে বেশি সংখ্যক অতিথিকে আমন্ত্রণ জানানো সম্ভব হয় নি৷ তবে চরম দক্ষিণপন্থি এএফডি দল ছাড়া জার্মানির অন্য সব রাজনৈতিক শক্তির প্রতিনিধিরা ম্যার্কেলের বিদায়ী অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলেন৷

কোনো বেসামরিক ব্যক্তিকে সম্মান জানাতে জার্মান সেনাবাহিনীর সর্বোচ্চ সম্মান এই অনুষ্ঠান৷ সাধারণত চ্যান্সেলর, প্রেসিডেন্ট ও প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে বিদায় জানাতে এই কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়৷ ষোড়শ শতাব্দী থেকে এই ঐতিহ্য চলে আসছে৷ সন্ধ্যাকালীন এই অনুষ্ঠানে বিদায়ী নেতার পছন্দের সুরের পাশাপাশি জাতীয় সংগীতও পরিবেশন করা হয়৷ ম্যার্কেল নিজের পছন্দের তিনটি গান বাছাই করেছিলেন৷ সাবেক পূর্ব জার্মানিতে থাকাকালীন ও জীবনের বিভিন্ন পর্যায়ে এই গানগুলি তাঁর মনে রেখাপাত করেছে৷

আনুষ্ঠানিক বিদায়ের পরেও কয়েকদিন কার্যনির্বাহী চ্যান্সেলর হিসেবে কাজ চালিয়ে যেতে হবে ম্যার্কেলকে৷ বিশেষ করে করোনা সংকটের কারণে জার্মানিতে এই মুহূর্তে বিদায়ী সরকারের পক্ষেও নিষ্ক্রিয় হয়ে থাকা সম্ভব নয়৷ ভবিষ্যৎ সরকারের সঙ্গে সহযোগিতার মাধ্যমে করোনা সংকট মোকাবিলায় ইতোমধ্যেই একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হয়েছে৷

এসবি/এসিবি (ডিপিএ, এপি, এএফপি)

ভিডিও দেখুন 07:44

যেভাবে ক্ষমতার শিখরে ম্যার্কেল

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়