বিজেপি মুখ্যমন্ত্রীরা এবার অযোধ্যায় রামলালা দর্শনে | বিশ্ব | DW | 15.12.2021

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

বিজেপি মুখ্যমন্ত্রীরা এবার অযোধ্যায় রামলালা দর্শনে

বারাণসীর পর এবার অযোধ্যা। বাবা বিশ্বনাথের পর রামলালা। উত্তরপ্রদেশে নির্বাচনের আগে বিজেপি নেতৃত্বের মন্দির পরিক্রমা চলছে।

প্রধানমন্ত্রী মোদীর বারাণসীর কর্মসূচি শেষ হওয়ার পরেই অযোধ্যায় বিজেপি-র মুখ্যমন্ত্রীরা।

প্রধানমন্ত্রী মোদীর বারাণসীর কর্মসূচি শেষ হওয়ার পরেই অযোধ্যায় বিজেপি-র মুখ্যমন্ত্রীরা।

গত সোমবার অযোধ্যায় বিশ্বনাথ মন্দির করিডোরের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। গঙ্গায় ডুব দিয়েছেন, পুজো করেছেন। বিজেপি-র বারোজন মুখ্যমন্ত্রী, তিনজন উপ-মুখ্যমন্ত্রী, প্রচুর সাধু-সন্ত সেখানে উপস্থিত ছিলেন। তারপর মোদী মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে আলাদা করে বৈঠক করেছেন। তিনিই তাদের অযোধ্যায় নির্মীয়মান রামমন্দির দর্শন এবং রামলালার পুজো করার নির্দেশ দিয়েছেন বলে সূত্র জানাচ্ছে।

সেইমতো বিজেপি-শাসিত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, উপ মুখ্যমন্ত্রী এবং দলের সভাপতি জে পি নাড্ডা অযোধ্যায় গেছেন।

এতজন মুখ্যমন্ত্রী এই প্রথম

অযোধ্যায় এতজন মুখ্যমন্ত্রী একসঙ্গে আগে কখনো আসেননি। বিজেপি-র মুখ্যমন্ত্রী, উপমুখ্যমন্ত্রী ও নেতারা রামলালা দর্শন করছেন, হনুমান গড়িতে পুজো দিয়েছেন, তারা সরযূ ঘাট দর্শন করেও পুজো করেছেন। নির্মীয়মান রামমন্দিরও ঘুরে দেখবেন। উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ এবং উপমুখ্যমন্ত্রী কেশব প্রসাদ মৌর্যও তাদের সঙ্গে আছেন। 

নির্বাচন, মন্দির দর্শন ও রাজনীতি

উত্তরপ্রদেশে বিধানসভা নির্বাচন আসন্ন। আরো দুইটি বিজেপি শাসিত রাজ্যেও আগামী ফেব্রুয়ারি-মার্চে ভোট হবে। গোয়া ও মণিপুর। নির্বাচনের আগে বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব ও মুখ্যমন্ত্রীদের এই কাশী, অযোধ্যা দর্শন নিয়ে ইতিমধ্যেই সোচ্চার সমাজবাদী পার্টির নেতা অখিলেশ যাদব। তিনি বলেছেন, বিজেপি নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে এই কাজ করছে।

অখিলেশ বলেছেন, ''মোদী বারাণসীতে বলেছেন, এক মাস ধরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা করেছেন। খুব ভালো। একমাস কেন, তিনমাস ধরে হোক। শেষ সময়ে অনেকে ওখানেই থাকেন।''

এরপরই বিজেপি নেতারা অখিলেশের প্রবল সমালোচনা করেছেন। সংসদীয়মন্ত্রী প্রহ্লাদ প্যাটেল বলেছেন, ''কাশী বিশ্বনাথ নিয়ে হিন্দুদের বিশ্বাস অখিলেশের মধ্যে নেই। তিনি তার ভোটব্যাঙ্ককে তুষ্ট করতে চান। তাছাড়া সমাজবাদী সরকারই পাঁচ করসেবককে গুলি করে হত্যা করেছিল।''

আরেক মন্ত্রী অর্জুন রাম মেঘওয়াল বলেছেন, ''আওরঙ্গজেব বিশ্বনাথ মন্দির ধ্বংস করতে চেয়েছিলেন। আজ অখিলেশ তাদের পাশে আছেন।''

লোকমত পত্রিকার রাজনৈতিক সম্পাদক শরদ গুপ্তা ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, ''বিজেপি জানে, উত্তরপ্রদেশে যোগী আদিত্যনাথ সরকারের উপর মানুষ ক্ষুব্ধ। তাই কাশী, অযোধ্যা, হিন্দুত্ব ছাড়া তাদের জেতার কোনো পথ নেই। তাই তারা সেই পথেই হাঁটছে।''

প্রবীণ সংবাদিক জয়ন্ত ভট্টচার্য ডয়চ ভেলেকে জানিয়েছেন, ''সম্প্রতি দুইটি জনমত সমীক্ষা অনুযায়ী, বিজেপি-র আসন কমবে। তারা ২২১ থেকে ২২৪ আসন পেতে পারে। মানুষ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ও প্রশাসন নিয়ে ক্ষুব্ধ।  তাই এখন ধর্মকে সামনে নিয়ে আসার প্রচেষ্টা চলছে।''

রামমন্দিরের কাজ চলছে

অযোধ্যায় এখন রামমন্দির নির্মাণের কাজ চলছে। ২০২৩ সালের ডিসেম্বর থেকে দর্শন শুরু হওয়ার কথা। তার আগে নির্মাণকাজ শেষ করতে হবে। রামলালার মূর্তি মন্দিরে প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

৪০ ফুট গভীর করে ভিত করা হয়েছে। মির্জাপুর ও বেঙ্গালুরু থেকে গ্রানাইট আনা হয়েছে। রাজস্থানের মারকানা থেকে মার্বেল আসছে। মন্দিরের ভিত তৈরির কাজ শেষ হয়ে গেছে বলে সূত্র জানাচ্ছে। মন্দির হবে ৩৬০ ফুট লম্বা, ২৩৫ ফুট চওড়া এবং ১৬১ ফুট উঁচু। মন্দিরের মাথায় পাঁচটি শিখর থাকবে। মন্দির হবে তিনতলা। প্রতিটি তলা ২০ ফুট করে উঁচু।   

জিএইচ/এসজি (পিটিআই, এনডিটিভি)