বর্ণবাদকেই ‘বড় সমস্যা’ মনে করেন অধিকাংশ জার্মান | বিশ্ব | DW | 03.08.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

বর্ণবাদকেই ‘বড় সমস্যা’ মনে করেন অধিকাংশ জার্মান

অর্ধেকেরও বেশি জার্মানকে নিয়ে করা মাসিক জরিপে উঠে এসেছে এমন তথ্য৷ জরিপে অংশগ্রহণকারীরা এছাড়াও বলছেন যে, সামাজিক বিষয়গুলো আশ্রয় ও শরণার্থী সমস্যার চেয়েও বেশি গুরুত্বপূর্ণ৷

জার্মান প্রচারমাধ্যম এআরডির হয়ে প্রতিমাসে একটি জরিপ করে দেশটির গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইনফ্রাটেস্ট-ডিম্যাপ৷ ‘জার্মানি ট্রেন্ড' নামের এই জরিপের আগস্ট মাসের ফলাফল বলছে, দেশটিতে এখন বড় সমস্যা হলো বর্ণবাদ

বৃহস্পতিবার প্রকাশিত জরিপের ফলাফলে দেখা যায়, জরিপে অংশ নেয়া ৬৪ ভাগ মানুষ মনে করেন যে, বর্ণবাদ একটি ‘অনেক বড় সমস্যা' (১৭ ভাগ) অথবা ‘বড় সমস্যা' (৪৭ ভাগ)৷ তবে ৩৫ ভাগ একে তেমন কোনো সমস্যা বা আদৌ কোনো সমস্যা বলে মনে করেন না৷

প্রতিষ্ঠানটি প্রাপ্ত তথ্য রাজনৈতিক পরিমণ্ডলে বিশ্লেষণ করে দেখিয়েছে যে, অতি ডানপন্থি অলটারনেটিভ ফর জার্মানি (এএফডি)-র সমর্থকদের মধ্যেই একে সমস্যা মনে না করার প্রবণতা বেশি৷ এদের ৩৭ ভাগই কেবল একে বড় সমস্যা বলে মনে করছেন৷

অন্যদিকে, বামপন্থি ও মধ্যবামপন্থি দলগুলোর সমর্থকের মধ্যে একে কঠিন সমস্যা মনে করার হার বেশি৷ যেমন গ্রিন পার্টি ও সামাজিক গণতন্ত্রী পার্টি (এসপিডি)-র সমর্থকদের মধ্যে ৭৭ ভাগ ও লেফট পার্টির ৭৩ ভাগ বর্ণবাদকে গভীর সমস্যা বলে মনে করেন৷

অন্যদিকে, আঙ্গেলা ম্যার্কেলের রক্ষণশীল দল সিডিইউ ও তাদের বাভেরিয়ান সহযোগী সিএসইউ-র ৫৯ ভাগেরও একই মত৷ আর মধ্য ডানপন্থি ফ্রি ডেমোক্র্যাটসের সমর্থকদের ৫৭ ভাগ বর্ণবাদকে বড় সমস্যা হিসেবে দেখেন৷

ভিডিও দেখুন 01:17

চ্যাম্পিয়ন হয়েও বর্ণবাদের শিকার

সম্প্রতি তুর্কি বংশোদ্ভূত জার্মান তারকা ফুটবলার মেসুট ও্যজিলকে নিয়ে ব্যাপক আলোচনার সমালোচনার পর বর্ণবাদ নিয়ে খুব মাথা ঘামাচ্ছেন জার্মানরা৷ তবে মজার ব্যাপার হলো, বর্ণবাদকে বড় সমস্যা হিসেবে মনে করাদের মধ্যে অভিবাসীদের (৬৮ ভাগ) সংখ্যা স্থানীয়দের (৬৩ ভাগ) চেয়ে খুব বেশি নয়৷

আবার, একে সমস্যা ভাবার ক্ষেত্রে সাবেক কমিউনিস্ট পূর্ব জার্মানির লোকেরা (৭১ ভাগ) পশ্চিমের লোকদের (৬২ ভাগ) চেয়ে এগিয়ে৷

এছাড়া, অভিবাসীদের মধ্যে (নতুন ও পুরোনো) কারা ভালোভাবে এই সমাজে একীভূত (ইন্টিগ্রেশন) হয়েছেন, তা নিয়েও বিস্তর মতভিন্নতা আছে৷ ম্যার্কেল ও তাঁর সহযোগী দলের লোকজন এক্ষেত্রে নতুনরা এগিয়ে আছেন বলে মত দিয়েছেন, যা অন্যদলগুলোর সমর্থকেরা মানছেন না৷

এদিকে, অভিবাসী বা শরণার্থী ইস্যুর চাইতে সামাজিক ইস্যুগুলোকেই বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছেন জার্মানরা৷ ৯৭ ভাগ মনে করছেন যে, স্বাস্থ্য ও অন্যান্য সেবাকেন্দ্রিক নীতিগুলোর সমাধানই সবচেয়ে গুরত্বপূর্ণ৷ ৯৫ ভাগের চিন্তা পেনশন ও সামাজিক সুবিধাগুলো নিয়ে৷ ৯০ ভাগ সামাজিক অপরাধগুলো কীভাবে কমানো যায়, তা নিয়ে চিন্তিত৷

এর বাইরে আরো কিছু সামাজিক ও রাজনৈতিক ইস্যু নিয়ে গবেষণা জরিপটি করেছে ইনফ্রাটেস্ট-ডিম্যাপ৷

জেফারসন চেজ/জেডএ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন