পোশাক খাতে করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 17.01.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

পোশাক খাতে করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা

করোনার প্রথম ঢেউ কাটিয়ে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাত ঘুরে দাঁড়িয়েছিল৷ বিভিন্ন দেশে নতুন লকডাউনে আবারও নেতিবাচক প্রভাব পড়তে শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন রপ্তানিকারকরা৷ তবে সেটি আগের মতো বড় আকারে হবে না বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷

২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে বৈশ্বিক পোশাক আমদানি ২৩ শতাংশ কমে যায়৷ দেশে দেশে করোনার লকডাউনের কারণে মানুষ পোশাক কেনা কমিয়ে দেয়৷ ফলে খুচরা বিক্রেতাদের কাছে জমে পোশাকের স্তুপ৷ এতে অনেক ব্র্যান্ড কারখানাগুলোর আগের কার্যাদেশ বাতিল করে, অনেকে দামও কমিয়ে দেয়৷

সিপিডির সম্মানিত ফেলো অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. মোস্তাফিজুর রহমান শনিবার প্রকাশিত তার এক গবেষণা প্রবন্ধে দেখিয়েছেন, এই সময়ে পোশাক শ্রমিকদের আয় কমেছে আট শতাংশ৷ তবে পোশাক খাতে গত এপ্রিলে অনিশ্চয়তা ৩৬  শতাংশ থাকলেও সেপ্টেম্বরে তা কমে চার শতাংশ হয়েছে৷

কিন্তু বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যানে নতুন করে পোশাক খাতে রপ্তানি আদেশ কমার চিত্র মিলছে৷ অক্টোবর মাসে রপ্তানি আদেশ ছিলো ৪৩ কোটি ডলারের৷ নভেম্বর মাসে তা কমে হয়েছে ৪২ কোটি ডলার৷ এক মাসের ব্যবধানে শতকরা তিন ভাগ রপ্তানি আদেশ কমেছে৷ রপ্তানির জন্য তৈরি পোশাক খাতের এলসি বা ঋণপত্র খোলার পরিমানও কমেছে৷

অডিও শুনুন 03:27

৩০ ভাগ অর্ডার হারানোর আশঙ্কা আছে: আরশাদ জামাল দিপু

তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ বলছে, প্রথম ঢেউয়ের অভিঘাত পোশাক খাত কাটিয়ে উঠলেও তা ছিলো সাময়িক৷ সংগঠনটির সহ-সভাপতি  আরশাদ জামাল দিপু বলেন, ‘‘ঠিক আজকের (রবিবার) কথা যদি বলি তাহলে আমাদের অর্ডার হোল্ড (কার্যাদেশ স্থগিত) হওয়ার পরিমান শতকরা ২৪ ভাগ৷ এই মাস থেকেই দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে৷ পুরো চিত্রটা এপ্রিল-মে মাসে পাওয়া যাবে৷ কারণ তিন মাস আগে অর্ডার পাওয়া যায়৷ তাই এপ্রিল-মে মাসে গিয়ে শতকরা ৩০ ভাগ অর্ডার হারানোর আশঙ্কা আছে৷’’

তবে করোনার প্রথম ধাক্কার মতো এই প্রভাব ততটা প্রকট হবে না বলে মনে করেন সিপিডির অর্থনীতিবিদ ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম৷ তিনি জানান, গত এপ্রিলে পোশাক খাতের প্রবৃদ্ধি ৮২ শতাংশ কমেছিল৷ জুন মাসে কমেছে প্রায় ৬২ শতাংশ৷ সেখান থেকে আবার সাম্প্রতিক সময়ে প্রবৃদ্ধি ইতিবাচক ধারায় ফিরে এসেছিলো৷ কিন্তু এখন আবার নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি দেখা যাচ্ছে দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে৷ তবে এর মাত্রা অনেক কম৷ কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘‘ইউরোপে লকডাউন প্রথম ঢেউয়ের মত নয়, কিছু কিছু এলাকায় করা হচ্ছে সীমিত আকারে৷ ফলে কেনাকাটা বন্ধ হয়ে যায়নি৷ পোশাকের মূল বাজার ইউরোপ এবং অ্যামেরিকায় ভ্যাকসিন দেয়া শুরু হয়েছে৷ আমরা ধারণা এটা সফল হলে মানুষ সহজে চলাচল করবে, কাজ করবে, কেনাকাটা করবে৷ ফলে আমাদের দেশের পোশাকের চাহিদা সেরকম কমবে না৷’’

মোটা দাগে বাংলাদেশে দুই ধরনের পোশাক রপ্তানি করে, ওভেন ও নিট৷ এর মধ্যে ওভেন অর্থাৎ জামা-কাপড়ের বড় বাাজার যুক্তরাষ্ট্র৷ তাই পুরো পোশাক শিল্প প্রথম ঢেউ কাটিয়ে উঠলেও ওভেন রপ্তানি নেতিবাচক ধারায় ছিলো৷ দেশটিতে বিস্তৃত পরিসরে টিকা কার্যক্রম চালু করতে নতুন প্রেসিডেন্ট বাইডেন যেসব উদ্যোগ নেয়ার কথা বলছেন তাতে সামনের দিনে সেখানে পোশাক রপ্তানি ইতিবাচক ধারায় ফিরবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা৷

গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, ‘‘পোশাক খাত নতুন বাজার পাচ্ছে৷ নতুন ধরনের সক্ষমতাও অর্জন করেছে৷ তবে ভ্যাকসিনেশন কতটা সফল হয় তার ওপরে অনেক কিছু নির্ভর করছে৷’’ তার মতে, পোশাকের জন্য এখন অনলাইন বাজার গড়ে উঠেছে৷ নতুন বাজারও তৈরি হচ্ছে৷ সব মিলিয়ে দ্বিতীয় ঢেউ তেমন ক্ষতি করতে পারবে না৷

অডিও শুনুন 05:39

দ্বিতীয় ঢেউ তেমন ক্ষতি করতে পারবে না: খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম

তবে এই বিষয়ে ততটা আশ্বস্ত নন আরশাদ জামাল দিপু৷ এই উদ্যোক্তার মতে, ‘‘ভ্যাকসিনেশন সফল হলে পরিস্থিতি অন্য রকম হতে পারে৷ কিন্তু ডেনমার্ক, নরওয়ে, ফিনল্যান্ডে এটা নিয়ে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে৷ আর ভ্যাকসিনের সাইকেল আছে৷ ফলে পুরো কনফিডেন্স ফিরে আসতে আরো কমপক্ষে দুই মাস লেগে যাবে৷ এর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বাংলাদেশের পোশাক শিল্পে৷’’

দিপু জানান, তারা গত সপ্তাহে করোনা সংক্রান্ত টাস্কফোর্সের প্রধান মন্ত্রিপরিষদ সচিবের সঙ্গে দেখা করে পরিস্থিতি জানিয়েছেন৷ নতুন করে প্রণোদনা চেয়েছেন৷ তবে সরকার নতুন প্যাকেজে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পকে প্রাধান্য দিচ্ছে৷

রবিবার সরকার কুটির শিল্প, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প এবং প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য দুই হাজার ৭০০ কোটি টাকার নতুন দুইটি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে৷

 ‘‘প্রণোদনাসহ নানা দিক দিয়ে বড় পোশাক কারখানা বিপর্যয় অনেকটা কাটিয়ে উঠলেও এখন ছোট কারখানাগুলোর জন্য প্রণোদনা দরকার,’’ বলেন গোলাম মোয়াজ্জেম৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন