পুলিশের সাংবাদিকতা: যার কাজ তারই সাজে | বিশ্ব | DW | 10.09.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সংবাদভাষ্য

পুলিশের সাংবাদিকতা: যার কাজ তারই সাজে

পুলিশ রাষ্ট্রের একটি অপরিহার্য অঙ্গ, দেশের প্রধান বেসামরিক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী৷ সামাজিক অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা এবং জনগণের জানমালের নিরাপত্তা রক্ষার দায়িত্ব এ বাহিনীর৷

বর্তমান পরিসরে পুলিশের লোকবল ও অবকাঠামোর কলেবর যেমন বেড়েছে, তেমনি কাজের পরিধিও বিস্তৃত হয়েছে৷ সাম্প্রতিক সময়ে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদের বক্তব্য থেকে জানা গেছে, পুলিশ এখন সাংবাদিকতাও করবে৷ গত ১ সেপ্টেম্বর পুলিশ সদর দপ্তরে বাংলাদেশ পুলিশের নিউজ পোর্টালের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি বলেছেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষার পাশাপাশি বাংলাদেশ পুলিশের একটি গ্রুপ সাংবাদিকতাও করবে যারা পুলিশের বিভিন্ন অর্জন ও ইতিবাচক সংবাদ মানুষের সামনে তুলে ধরবেন৷ এতে বিশ্বের অন্যান্য খবরও থাকবে৷ এর আগে ঢাকা মহানগর পুলিশও একই ধরনের নিউজ পোর্টাল চালু করেছে৷ একটি আইনগত সংবিধিবদ্ধ সংস্থা হিসেবে পুলিশ এ ধরনের বাণিজ্যিক নিউজ পোর্টাল করতে পারে কীনা সে প্রশ্নটি তুললে খুব বেশি অত্যুক্তি করা হবে না৷ কারণ এর সাথে আইনগত ও নৈতিকতার বিষয় জড়িত৷ 

পুলিশ মহাপরিদর্শকের বক্তব্য নিয়ে আলোচনার আগে নিউজ পোর্টাল দু'টি আধেয় ও বিষয়বস্তুর ধরনের দিকে দৃষ্টি দেয়া যাক৷ একটি বেসরকারি বাণিজ্যিক নিউজ পোর্টালে যে ধরনের আধেয় থাকে এই দুটি পোর্টালেও প্রায় একই ধরনের বিষয়বস্তু রয়েছে৷ তবে দুটি পোর্টালে তথ্য পরিবেশনের ধরন অনেকটা বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা কিংবা বিটিভির খবরের মত৷ সরকার বিরোধী খবর ছাড়া দুনিয়ার তাবৎ সংবাদ এখানে শোভা পাচ্ছে৷ সবচেয়ে বড় অবাক করা ব্যাপার হলো, পুলিশের দুটি পোর্টালের হোম পেজে বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপনও প্রচার হচ্ছে৷ এ থেকে ধরে নেয়া যায়, পুলিশ সদর দপ্তর এবং ঢাকা মহানগর পুলিশ দুটি পোর্টাল থেকে আয়ও করছে৷ ১৮৬১ সালের যে পুলিশ অ্যাক্ট সেখানে বাহিনীটি এ ধরনের বাণিজ্যিক ও লাভজনক কাজে জড়িত হতে পারে কীনা তার সরাসারি কোন উল্লেখ নেই৷ তবে বাহিনীর কোন সদস্য কোন বাণিজ্যিক ও লাভজনক কাজে যে জড়িত হতে পারবে না সেটির উল্লেখ আইনে আছে৷ বাণিজ্যিক গণমাধ্যমের জন্য বিজ্ঞাপন একটি স্পর্শকাতর বিষয়, কারণ বিজ্ঞাপনের সাথে অনেক ক্ষেত্রে নৈতিকতার প্রশ্ন জড়িত৷ রাষ্ট্রের আইনগত বাহিনীর এ ধরনের লাভজনক ও বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে ওয়েবসাইট পরিচালনা রাষ্ট্রের মূলনীতিকেই প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলতে পারে৷ দুষ্টের দমন আর শিষ্টের পালনের মূলনীতি বাধাগ্রস্ত হতেই পারে৷

বিশ্বের প্রায় সব দেশের, এমনকি বড় দেশগুলোর রাজ্য পুলিশেরও নিজস্ব ওয়েব সাইট আছে৷ সেখানেই তারা নিজস্ব কার্যক্রম তুলে ধরে৷ ইউকে পুলিশের নিজস্ব ওয়েব সাইট ছাড়াও ‘নিউজ মেট্রোপলিটন পুলিশ’ নামে একটি নিউজ পোর্টাল আছে৷ সেখানে তারা নিজেদের খবরগুলোই শুধু প্রকাশ করে৷ কিন্তু বাংলাদেশ পুলিশের মত এমন বাণিজ্যিক ও বারোয়ারী নিউজ পোর্টাল বিশ্বের আর কোন আইনগতভাবে বিধিবদ্ধ বাহিনীর দেখা যায় না৷ বলিউডের নায়িকা কিংবা আর্জেন্টিনা-ব্রাজিলের খেলোয়াড়ের খবর কেন ডিএমপি পুলিশের নিউজ পোর্টালে থাকতে হবে? উপরন্তু ডিজিটাল যুগে একটি দেশের সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ও বাহিনীগুলো কতটা জনমুখী তা পরিষ্কার হয়ে ওঠে তাদের প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইটের ধরন ও চরিত্র দেখে৷ সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট হতে হয় সাদামাটা ও টার্গেট অডিয়েন্স ভিত্তিক৷ অর্থাৎ যাদের সেবা দেয়া হবে তাদের প্রয়োজনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে ওয়েবসাইট করতে হয়৷ যেমন ধরুন, ইউকে পুলিশ বা নিউইয়র্ক পুলিশের ওয়েব সাইট যদি আমরা দেখি তাহলে সেখানে সহজে খুঁজে পাওয়া কঠিন ওই বাহিনীর প্রধান কে, তিনি কি করেছেন এসব গালগল্প৷ বরং সহজেই পাওয়া যায় আপনি কি সেবা পাবেন, দ্রুত সেবা পাওয়ার জন্য কি করতে হবে আর সেবা না পেলে কি প্রতিকার পাবেন৷ ডিজিটাল বাংলাদেশের শুধু পুলিশ নয়, যে কোন মন্ত্রণালয় বা সরকারি দফতরের ওয়েব সাইটের প্রধান আধেয় হলো ওই দফতরের কর্তাব্যক্তি কি করেছেন আর কি করছেন তার ফিরিস্তি৷ সেবা পাওয়ার তথ্যগুলো জানতে হলে স্ক্রল করতে করতে নাভিশ্বাস উঠার পর্যায়ও অনেক সময় পরাস্ত হয়ে যায়৷

পুলিশের এই হঠাৎ করে সাংবাদিক হওয়ার ইচ্ছের সাথে আইনগত ও নৈতিকতার প্রশ্ন ছাড়া পেশাগত চরিত্রের সংবেদনশীলতার প্রসঙ্গ জড়িত৷ সমাজে আমরা নানা পেশায় কাজ করি৷ প্রত্যেক পেশার কিছু নির্দিষ্ট দায়-দায়িত্ব থাকে৷ এই দায়িত্বের পরিধির সাথে সংবেদনশীলতাও জড়িত৷ একজন নরসুন্দর যদি শৈল্য চিকিৎসক হয়ে যান তাহলে কি পরিণতি হতে পারে সেটি বোঝার জন্য পণ্ডিত হওয়ার দরকার পড়ে না৷ কথায় আছে, যার কর্ম তারে সাজে, অন্য লোকের লাঠি বাজে৷ এক পেশার কাজ অন্য পেশার মানুষ করলে সংবেদনশীলতার দেয়াল ভেঙ্গে পড়তে বাধ্য৷ বাংলায় একটি প্রবচন আছে, ‘অরাঁধুনির হাতে পড়ে রুই মাছ কাঁদে, না জানি রাঁধুনি মোর কেমন করে রাঁধে’৷

বাংলাদেশ পুলিশ মহাপরিদর্শকের বক্তব্য শুনে মনে হতে পারে, সাংবাদিকতা খুব সহজ একটি কাজ, এটি যে কেউ করতে পারে৷ কয়েকটি প্রেস রিলিজের সাথে অন্য গণমাধ্যম থেকে কয়েকটি খবর কপি-পেস্ট করে দিলেই একটি ওয়েবসাইট চালানো যায় – এমন চোখে সাংবাদিকতাকে দেখা বাংলাদেশের সর্বস্তরে গণমাধ্যম সাক্ষরতার নিম্নমানকে নির্দেশ করে৷ গত বছর এমআরডিআইয়ের এক জাতীয় জরিপে দেখা গেছে, বাংলাদেশের মাত্র ৮ শতাংশ মানুষের সংবাদ ও সংবাদমাধ্যম সংক্রান্ত সাক্ষরতা উল্লেখ করার মতো৷ এটি খুবই স্বাভাবিক৷ যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, কানাডাসহ উন্নত দেশগুলোতে তৃতীয়-চতুর্থ শ্রেণী থেকে গণমাধ্যম সংক্রান্ত পাঠদান শুরু হয়৷ এসব দেশে প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষার্থীদের 'ষড়-ক' দিয়েই লিখন পাঠ শুরু হয়৷ আর বাংলাদেশে 'ষড়-ক' জানলেই সাংবাদিক হওয়া যায়৷ গণমাধ্যম সাক্ষরতাসম্পন্ন ব্যক্তি কখনও সংবাদকে ‘ইতিবাচক’ ও ‘নেতিবাচক’ শ্রেণীতে ভাগ করতে পারেন না৷ কারণ সংবাদ ভাল বা খারাপ হতে পারে না৷ ভাল বা খারাপের সাথে 'সং আর রঙ' থাকে৷ সংবাদকে ‘সং আর রঙ' বিবর্জিত হতে হয়৷ তথ্য ইতিবাচক বা নেতিবাচক হয়, সংবাদ নয়৷ ওসি প্রদীপ কিংবা সোহেল রানার কর্মকাণ্ড পুলিশ বাহিনীর জন্য নেতিবাচক হতে পারে৷ এই তথ্য তখনই খবর/সংবাদ হবে যখন একজন সাংবাদিক যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে যাচাই-বাছাই করে নির্ভুল ও নির্মোহভাবে তথ্যগুলো তুলে ধরবেন৷ তথ্য আর সংবাদের মধ্যে পার্থক্য অনেক৷ এ পার্থক্য পরিষ্কার না হলে সাংবাদিকতাকে খুব সহজ পেশা মনে হবে, সাংবাদিকতার গুরুত্বকে কখনই যথাযথভাবে উপলব্ধি করা যাবে না৷ ইতিবাচক তথ্য দিয়ে নিউজ পোর্টাল বানালে সেটি জনসংযোগ হয়, সাংবাদিকতা নয়৷ ‘সাংবাদিকতার গোল্ডেন রুলস’ অনুসরণ করে জনসংযোগমূলক ওয়েব সাইট পরিচালনার সূত্র এখনও অনাবিষ্কৃত৷

মোহাম্মদ সাইফুল আলম চৌধুরী

মোহাম্মদ সাইফুল আলম চৌধুরী, শিক্ষক, গণযোগাযোগ ও সংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

পুলিশের একটি টিমকে কেন বাণিজ্যিক ওয়েব সাইট পরিচালনার জন্য নিয়োগ করতে হবে যেখানে পুলিশের লোকবল সঙ্কটের বিষয়টি সর্বজনস্বীকৃত? এখনও প্রতি ৮২২ জন মানুষের জন্য একজন পুলিশ আছে যেখানে সর্বনিম্ন মান হলো ৪০০ জনে একজন৷ পুলিশের একটি নিউজ পোর্টালে ইতিবাচক তথ্য দিলেই কি মানুষের মনে পুলিশ সম্পর্কে ধারণা পাল্টে যাবে? হাইওয়ে পুলিশের কনস্টেবল পারভেজ মিয়ার দায়িত্বশীলতা ও সংবেদনশীলতা কিংবা করোনাকালে মানবিক পুলিশের ভূমিকা আমাদের যেভাবে চমকে দেয় তার জন্য পুলিশের ওয়েব সাইটের দরকার পড়ে না৷ আবার ওসি সোহেল রানা কিংবা প্রদীপের কর্মকাণ্ড পুলিশের ওয়েব সাইটে না আসলেও এসব ঘটনা চাপা থাকে না৷ জনসংযোগমূলক ওয়েব সাইটে এসব তথ্য প্রকাশ না হলেও ভাবমূর্তির সঙ্কট দূর হবে না৷ পুলিশের মূল সমস্যা কি ইতিবাচক খবরের অভাব নাকি দীর্ঘদিন আইনি ও কাঠামোগত সংস্কারের অভাব, রাজনৈতিক লেজুড়বৃত্তি, প্রয়োজনীয় লোকবল ও সুযোগ-সুবিধার অভাব আর বাহিনীর সদস্যদের নানা অপকর্ম? ১৮৭১ আর ১৯৪৩ সালের আইন দিয়ে কেন এখনও পুলিশ বাহিনী চলতে হবে? এখনও কেন পুলিশ আইনের খসড় হিমাগারে পড়ে আছে? কেন জাতীয় পুলিশ কমিশন গঠিত হয় না? কেন প্রতিবছর ১০ থেকে থেকে ১৫ হাজার পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ জমা পড়ে? বাণিজ্যিক ওয়েবসাইটের চেয়ে এসব প্রশ্নের সমাধান অনেক জরুরি ও আবশ্যক৷ মনে রাখতে হবে, ভেতরে যদি সার না থাকে, তাহলে কিল-গুঁতায় কাঁঠাল পাকানো যায় না৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়