নারীর প্রতি পূর্ণ সম্মানই পারে সহিংসতা বন্ধ করতে: জাতিসংঘ মহাসচিব | বিশ্ব | DW | 25.11.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জাতিসংঘ

নারীর প্রতি পূর্ণ সম্মানই পারে সহিংসতা বন্ধ করতে: জাতিসংঘ মহাসচিব

যতদিন নারীরা নির্ভয়ে ও স্বাধীনভাবে চলাফেরা করতে পারবে না, যতদিন নারীদের নিরাপত্তা ও সহিংসতা নিয়ে আতঙ্কে থাকতে হবে, ততদিন বিশ্ব নারীদের সমানাধিকারের ব্যাপারে অহংকার করতে পারবে না, বলেন জাতিসংঘ মহিসচিব৷

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

 

যতদিন নারীরা নির্ভয়ে এবং স্বাধীনভাবে চলাফেরা করতে পারবে না, যতদিন নারীদের নিরাপত্তা এবং সহিংসতা নিয়ে আতঙ্কে থাকতে হবে, ততদিন বিশ্ব নারীদের সমানাধিকারের ব্যাপারে অহংকার করতে পারবে না৷

২৫ শে নভেম্বর ‘আন্তর্জাতিক নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা অবসান দিবস'৷ এ উপলক্ষ্যে চলতি সপ্তাহে জাতিসংঘ মহিসচিব আন্তোনিও গুতেরেস এই কথাগুলো বলেন৷

জাতিসংঘ সদরদপ্তরে দিবসটি উপলক্ষ্যে এক বিশেষ আয়োজনে গুতেরেস বলেন, ‘‘নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা বিশ্বব্যাপী মারণব্যাধি ক্যানসারের মতো রূপ নিয়েছে৷ এর ফলে অনেক নারী অল্পবয়সে মৃত্যুবরণ করছে৷'' তিনি বলেন, ‘‘বিশ্বব্যাপী নারীর প্রতি এত সহিংসতা বাড়ার কারণ হলো নারী ও মেয়েদের প্রতি সম্মানের অভাব এবং পুরুষরাই এজন্য দায়ী৷ কেননা তারা সমাজে নারীদের সমানাধিকার দিতে প্রস্তুত নয় এবং নারীদের প্রাপ্য সম্মানটুকু তারা দেয় না৷ ''

জাতিসংঘ মহাসচিবের তত্ত্বাবধানে দিবসটি উপলক্ষ্যে ১৬ দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে৷ এই প্রচারণার নাম দেয়া হয়েছে ‘ইউনিটি ক্যাম্পেইন'৷ এর আওতায় সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে আহ্বান জানানো হচ্ছে, যাতে তারা বিশ্বব্যাপী নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা নির্মূলে বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নেয়৷

এ বছরের প্রতিপাদ্য হলো ‘‘অরেঞ্জ দ্য ওয়ার্ল্ড: হ্যাশট্যাগ হেয়ারমিটু''৷ বিশ্বব্যাপী নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে ‘কমলা' রংকে বেছে নেয়া হয়েছে গতবছরের মতো৷ বিশ্বের সব দেশের নারী, যারা নির্যাতনের শিকার হয়েছেন, হচ্ছেন বা বেঁচে ফিরে এসেছেন তাদের কথা বলার প্ল্যাটফর্ম তৈরি করেছে জাতিসংঘ৷

 

নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা বন্ধে গঠিত জাতিসংঘ ট্রাস্ট তহবিল বিভিন্ন সংস্থাকে তাদের উদ্যোগ ও কর্মকাণ্ডের জন্য প্রতি বছর পুরস্কৃত করে থাকে৷ গত দুই দশক ধরে এই ট্রাস্ট ১৩৯টি অঞ্চলের ৪৬০টি প্রকল্পে সহায়তা দিয়েছে এবং গত বছর ৬০ লাখ মানুষকে সাহায্য করেছে৷

এত উদ্যোগ সত্ত্বেও লাখো-কোটি নারী প্রতিবছর সহিংসতার শিকার হচ্ছেন৷ জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের প্রেসিডেন্ট মারিয়া ফার্নান্দো এসপিনোসা যে পরিসংখ্যান তুলে ধরেছিলেন, তা রীতিমত আতঙ্কজনক৷ তিনি জানান, বিশ্বের ৩৫ ভাগ নারী কোনো না কোনোভাবে শারীরিক ও যৌন হয়রানির শিকার এবং ৩৮ শতাংশ নারীর মৃত্যু হয় স্বামী বা সঙ্গীর নির্যাতনে৷

এপিবি/ডিজি (জাতিসংঘ সংবাদ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন