1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
সরকারচালিত গ্রিডগুলি কাজ না করলে জেনারেটর চালাতে ডিজেলের প্রয়োজন পড়বে৷ তবে যে হারে ডিজেলের দাম বাড়ছে, এর ফলে রীতিমতো আতঙ্কে ভুগছেন সাধারণ মানুষ৷
সরকারচালিত গ্রিডগুলি কাজ না করলে জেনারেটর চালাতে ডিজেলের প্রয়োজন পড়বে৷ তবে যে হারে ডিজেলের দাম বাড়ছে, এর ফলে রীতিমতো আতঙ্কে ভুগছেন সাধারণ মানুষ৷ছবি: Sabah Arar/AFP/Getty Images
রাজনীতিসৌদি আরব

ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধিতে মধ্যপ্রাচ্যে বিদ্যুৎ এখন বিলাসিতা 

৭ এপ্রিল ২০২২

ইউক্রেনে রুশ হামলার ফলে ডিজেলের দাম বেড়েই চলছে৷ এদিকে কার্যকর কোনো পাওয়ার গ্রিড না থাকায় জেনারেটর ছাড়া উপায় নেই৷ জেনারেটর চালু রাখতে সবচেয়ে বেশি জরুরি হলো ডিজেল৷ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলির কি সেই খরচ বহনে সক্ষম?

https://p.dw.com/p/49c86

সম্প্রতি বাগদাদে ভোজ্য তেলের দাম দ্বিগুণহয়ে গিয়েছে৷ ইরাকের মানুষজন পথে নেমে মূল্যবৃদ্ধির বিরুদ্ধে প্রতিবাদও শুরু করেছেন৷ ইউক্রেনে রুশ হামলার ফলে এক লাফে খাবার জিনিসপত্রেরও দাম বেড়েছে৷ কিন্তু ডিজেলের দাম যে হারে বাড়ছে, তাতে আশঙ্কা প্রকাশ করছেন অর্থনীতিবিদেরা৷  জলের পাম্প থেকে এসি এবং ফ্রিজ–সবকিছু চালাতে জেনারেটর ব্যবহার করা হয়৷ কিন্তু সরকারচালিত গ্রিডগুলি কাজ না করলে জেনারেটর চালাতে ডিজেলের প্রয়োজন হয়৷ তবে যে হারে ডিজেলের দাম বাড়ছে, এর ফলে রীতিমতো আতঙ্কে ভুগছেন সাধারণ মানুষ৷

বাগদাদের সাংবাদিক খলউদ রামেজি বলেন ‘‘ডিজেলের দাম বেড়েই চলেছে৷ গরমকালে সমস্যা আরো বাড়বে৷ এক অ্যাম্পিয়ার বিদ্যুতের জন্য গত মার্চে দিয়েছিলাম ৮৬০ টাকা৷ এই মার্চে দিতে হল প্রায় ১৪০০ টাকা৷ গরমকালে এই বিল আরো বাড়লে অবাক হওয়ার কিছু নেই৷''

বেইরুটের স্থানীয় বাসিন্দা ওয়াসিম-আল-শাব ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘রুটি না কিনলেও চলবে৷ অন্য কিছু খেয়ে নেব৷ যে রকম গরম, যে পরিমাণে দূষণ রয়েছে এখানে, গরমকালটা কেমন করে সহ্য করব জানি না৷ ডিজেলের দাম বেড়েই চলেছে৷ ''

সহায়তা জরুরি

ইরাক এবং লেবাননের মতো দেশে বিদ্যুতের দামের সঙ্গে ডিজেলের দামের একটা গভীর সম্পর্ক রয়েছে৷ মানুষের বাসাবাড়িতে যে জেনারেটর আছে তার জন্য নির্ভর করতে হয় ডিজেলের উপর৷ কিন্তু জ্বালানি বন্ধ হলে সাধারণ সময়েও বিদ্যুৎ পরিষেবায় ঘাটতি দেখা যায়৷

সরকারচালিত পাওয়ার গ্রিডগুলির ক্ষমতা সীমিত হওয়ার কারণে স্থানীয়রা অনেক ক্ষেত্রে সুবিধা থেকে বঞ্চিত৷ দিনে কয়েক ঘণ্টা বিদ্যুৎ থাকে৷ তাই বেসরকারি সংস্থার থেকে ডিজেলচালিত জেনারেটর নিতে হয়৷ হাসপাতাল বা আবাসনের ক্ষেত্রেও এটি প্রযোজ্য৷ তাই ইউক্রেনে রুশ হামলা শুরু হওয়ার পর থেকেই ইরাক, লেবানন, সিরিয়া, ইয়েমেনে বিদ্যুতের দাম বেড়ে চলেছে ক্রমশ৷ এদিকে তাপমাত্রা ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে গেলে কী হবে, তা নিয়ে আশঙ্কিত সাধারণ মানুষজন৷ ডিজেলের দামের সঙ্গে মানুষের মরা-বাঁচা নির্ভর করছে বলেই মনে করছেন তারা৷ নতুন করে এই ভূখণ্ডে রাজনৈতিক অস্থিরতার আশঙ্কাও করছেন অনেকে৷

বিশ্ববাজারে কী অবস্থা?

রুশ হামলার আগে থেকেই ডিজেলের দাম ছিল ঊর্ধ্বমুখী৷ কোভিড লকডাউন শেষ হওয়ার পর সরবরাহ সংক্রান্ত জটিলতা এবং (উৎপাদন এবং বহন) পরবর্তীতে বিপুল চাহিদার কারণে ডিজেলের দাম বেড়ে যায়৷ শক্তি বিষয়ক বিশেষজ্ঞ প্রাবন্ধিক জাভিয়ের ব্লাসের মতে, ‘‘ইউক্রেন সংকট পরিস্থিতিকে আরো জটিল করে তুলেছে৷''

বিশ্বের বেশিরভাগ ডিজেলের উৎস মধ্যপ্রাচ্যের নানা দেশ৷ সারা বিশ্বের একটা বড় অংশে ডিজেল সরবরাহ করে সৌদি আরব৷এর ফলে স্থানীয়রা একেবারে ন্যূনতম দামে তা কিনতে পারেন৷ তবে সব দেশের অবস্থা এক নয়৷লেবানন, জর্ডন, ফিলিস্তিনের কিছু অংশের পুঁজি খুবই কম৷

মধ্যপ্রাচ্যে শক্তি বিষয়ক বিশেষজ্ঞ আনাস আবদুন এই প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘ইরাক ডিজেল উৎপাদন করে কিন্তু তাতে স্থানীয় মানুষের চাহিদাপূরণ সম্ভব নয়৷ রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে স্থানীয় সংশোধনাগারগুলি ঠিকমতো কাজ করে না৷সরকার কোনো কোনো দেশে ভর্তুকি চালু করলেও বিশ্ববাজারে দাম বৃদ্ধির কারণে এতে কোনোরকম লাভ হয় না৷''

লেবাননের সংকট

বাগদাদের সাংবাদিক রামেজির কথায়, ‘‘সরকার দৈনিক দুই থেকে পাঁচ ঘণ্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারে৷ কিন্তু গরমকালে পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হবে৷ জলের পাম্প আর এসির চাহিদা বাড়বে৷ সরকারচালিত পরিষেবার পক্ষে বিদ্যুতের বিপুল বোঝা টানা সম্ভব নয়৷ গরমকালে ধনী ব্যক্তিরা বিদ্যুতের জন্য অতিরিক্ত টাকা দিতে পারবেন, গরিবেরা পারবেন না৷''

ইরাকের ক্ষেত্রে বিষয়টি একটু আলাদা৷ কতক্ষণ বিদ্যুৎ চান সেই বুঝে বেসরকারি জেনারেটর সংস্থাকে টাকা দেন সাধারণ মানুষ৷ ২৪ ঘণ্টার জন্য ১০ অ্যাম্পিয়ার বিদ্যুতের টাকা দিতে পারলে সারাদিন বাড়িতে এসি চালানো সম্ভব হয়৷

‘‘নিম্ন আয়ের পরিবারগুলির পক্ষে বিদ্যুতের এত খরচ বহন করা সম্ভব নয়৷ তারা খুব বেশি হলে সারা দিনে তিন অ্যাম্পিয়ার বিদ্যুতের টাকা দিতে পারে৷ এর ফলে তারা দিনের বেলা ফ্যান চালাতে পারে অথবা রাতে ঘুমানোর সময়টুকুর জন্য সচল বিদ্যুৎ পরিষেবা পেতে পারে৷''–ডয়চে ভেলেকে স্পষ্ট জানান রামেজি৷

হেইনরিখ বওল ফাউন্ডেশনের তরফে অ্যানা ফ্লেইশার ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, লেবাননের ক্ষেত্রে বিদ্যুৎ পরিষেবার প্রায় পুরোটাই বেসরকারি সংস্থার উপর নির্ভরশীল৷ অর্থাৎ বিদ্যুতের বেশিরভাগটাই জেনারেটর থেকে আসে৷ ডিজেলের সঙ্গে বিদ্যুতের সম্পর্কের কথা তুলে ধরেন তিনিও৷ তার কথায়, ‘‘ডিজেলের দাম যত বাড়বে৷ সাধারণ মানুষের ভোগান্তি বাড়বে৷তারা আর জেনারেটর ব্যবহার করতে পারবেন না৷ হাসপাতালে ভর্তি রোগীরাও তো গরমে থাকতে পারবেন না৷''

বেইরুটের স্থানীয় বাসিন্দা সিরিন খৈয়াত ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘একটা সময় গরমকালে কত বয়স্ক মানুষ কষ্ট পেয়েছেন বলে শুনেছি৷ ডিজেলের খরচ দিতে না পারায় তাদের অক্সিজেন মেশিনটা পর্যন্ত কাজ করত না৷ এমন পরিস্থিতি দেখতে চাই না৷'' ডিজেলের খরচ বেড়ে যাওয়ার ফলে গোটা দেশের অর্থনীতিতে প্রভাব পড়ছে৷ সামাজিক অস্থিরতা বাড়ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি৷

গরমকালে গত কয়েক বছর ধরে এই কারণে সরকারবিরোধী আন্দোলন হয়েছে ইরাকে ৷ বিদ্যুৎ পরিষেবা না থাকায় একাধিক কাজ ব্যাহত হয়েছে ৷ ক্ষোভের ফলে রাস্তায় নামতে বাধ্য হয়েছেন সাধারণ মানুষ৷ গত বছর বাসরা প্রদেশে তাপমাত্রার পারদ ৫৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত উঠে গিয়েছিল৷ ২০১৫ সাল থেকেই গরমকালে বিক্ষোভ বাড়ছে মধ্য প্রাচ্যের দেশগুলিতে৷ ২০১৮ সালে শুধুমাত্র এই কারণে একাধিক সহিংসতার ঘটনার সাক্ষী থেকেছে ইরাক৷

বাগদাদের সাংবাদিক রামেজির বক্তব্য,‘‘মারাত্মক গরম সহ্য করতে না পারলে মানুষ কী করবে?'' অথচ বাসরা প্রদেশই ইরাকের তিন চতুর্থাংশ তেল সরবরাহ করে৷

লেবাননের স্থানীয় বাসিন্দা আল শাব বলেন, ‘‘খাবার কম খেয়ে ডিজেলের জন্য, ফ্রিজের জন্য খরচ বাঁচিয়ে রেখেছিলাম গত বছরে৷ কিন্তু দাম যে হারে বেড়ে চলেছে, ফ্রিজ যদি চালু না থাকে, খাবার এমনিতেও পচে যাবে৷''

আরকেসি/কেএম (ক্যাথরিন শার, কার্স্টেন ক্নিপ, রাজন সলমন)

স্কিপ নেক্সট সেকশন এই বিষয়ে আরো তথ্য
স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

মুসিয়ালার পাস থেকেই সমতা ফেরান বদলি হেসেবে নামা নিকলাস ফ্যুলক্রুগ

স্পেনের সঙ্গে ড্র করে আশা জিইয়ে রাখলো জার্মানি

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান