ট্রাম্প ক্ষমা করলেন ১৫ জনকে | বিশ্ব | DW | 23.12.2020

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অ্যামেরিকা

ট্রাম্প ক্ষমা করলেন ১৫ জনকে

আর ২৭ দিন হোয়াইট হাউসে থাকবেন ট্রাম্প। তার আগে তিনি ঢালাও ক্ষমা বিতরণ করছেন। মঙ্গলবার ক্ষমা করলেন ১৫ জনকে।

প্রেসিডেন্টের ক্ষমতাবলে ডনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমা করলেন ১৫ জনকে।

প্রেসিডেন্টের ক্ষমতাবলে ডনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমা করলেন ১৫ জনকে।

প্রেসিডেন্ট হিসাবে একেবারে শেষ সময়ে এসে ক্ষমাশীল হয়ে গেছেন ডনাল্ড ট্রাম্প। এখন তিনি প্রেসিডেন্টের ক্ষমতাবলে একের পর এক শাস্তিপ্রাপ্তকে ক্ষমা করছেন। যেমন করলেন মঙ্গলবার। একসঙ্গে ১৫ জনের শাস্তি মাফ করে দিলেন। তার মধ্যে রাশিয়ার সঙ্গে চক্রান্ত করার দায়ে শাস্তিপ্রাপ্ত দুই জনও আছেন।

জর্জ পাপাডপলাস একসময় ছিলেন ট্রাম্পের প্রচারের দায়িত্বে। কিন্তু ২০১৬তে তিনি রাশিয়ার সঙ্গে চক্রান্ত করেছিলেন বলে তদন্তকারীদের কাছে স্বীকার করেছেন। তাঁর ১৪ দিনের জেল হয়। তার মধ্যে ১২ দিন জেল খাটা হয়ে গেছে তাঁর। ট্রাম্প জানিয়েছেন, পাপাডপলাসকে তিনি ক্ষমা করেছেন। 

শুধু পাপাডপলাসই নন, অ্যালেক্স ভ্যান ডার জোয়ানকেও ক্ষমা করেছেন ট্রাম্প। তিনিও রাশিয়া-কাণ্ডে জড়িত ছিলেন। জোয়ান হলেন রুশ বিলিওনেয়ার জার্মান খানের জামাই। তাঁর ৩০ দিনের জেল হয়েছিল। তিনিও ট্রাম্পের ২০১৬ সালের প্রচারের দলে ছিলেন। বিশেষ কৌসুঁলি রবার্ট মুলারের তদন্তে বলা হয়েছিল, তিনিও রাশিয়ার কাছে তথ্য পাচারের দায়ে দোষী।

হোয়াইট হাউস একটি বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, রবার্ট মুলারের টিম যে ভুল করেছিল তাতে অনেক মানুষ বিপাকে পড়েছিলেন।  এই ক্ষমার পর সেই ভুল সংশোধন করতে পারবেন তাঁরা।

এ ছাড়া ইরাকি সাধারণ মানুষদের হত্যার দায়ে অভিযুক্ত চারজন নিরাপত্তা বাহিনীর রক্ষীকে ট্রাম্প ক্ষমা করেছেন। রিপাবলিকান পার্টির তিন জন আইনসভার সদস্যকেও ক্ষমা করেছেন প্রেসিডেন্ট।

রিপাবলিকান নেতা ক্রিস কলিন্সের দুই বছর জেল হয়েছিল। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তিনি ছেলেকে সাহায্য করতে এবং অন্যরা যাতে স্টক মার্কেটে ক্ষতির মুখে না পড়েন তা দেখতে  ড্রাগ ট্রায়াল নিয়ে গোপন তথ্য তাঁদের দিয়েছিলেন।

আরেক রিপাবলিকান নেতা ডানকান হান্টারের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তিনি প্রচারের অর্থ চুরি করে তা মেয়ের জন্মদিনের পার্টির মতো ব্যক্তিগত কাজে খরচ করেছিলেন। নিজের দোষের কথা তিনি স্বীকারও করেছিলেন। তাঁর ১১ মাস জেল হয়। তাঁকেও ক্ষমা করেছেন ট্রাম্প।

গত মাসে তিনি তাঁর সাবেক সুরক্ষা পরামর্শদাতা মাইকেল ফ্লিনকেও ক্ষমা করেছেন। ২০১৭ সালে ফেডারেল ইনভেস্টিগেটারদের কাছে ফ্লিন মিথ্যা তথ্য দিয়েছিলেন।

জিএইচ/এসজি(এপি, রয়টার্স)

সংশ্লিষ্ট বিষয়