জার্মানিতে মার্কিন রাষ্ট্রদূতের মন্তব্যের সমালোচনা | বিশ্ব | DW | 06.06.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জার্মানিতে মার্কিন রাষ্ট্রদূতের মন্তব্যের সমালোচনা

জার্মানিতে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সাম্প্রতিক এক বক্তব্যের সমালোচনা করেছেন জার্মানির এক ঊর্ধ্বতন সাংসদ৷ তিনি ঐ রাষ্ট্রদূতকে তাঁর ‘দায়িত্ব পুনর্বিবেচনা' করার পরামর্শ দিয়েছেন৷

মার্কিন রাষ্ট্রদূত রিচার্ড গ্রেনেল ডানপন্থি সংবাদমাধ্যম ব্রাইটবার্টকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, ইউরোপে মূল স্রোতের বাইরে যারা রাজনীতি করতে চাইছেন তাঁদের ‘ক্ষমতাবান' করা ও ‘জাগিয়ে' তোলা তাঁর লক্ষ্য৷

গ্রেনেলের এই বক্তব্য ‘খুবই অনুপযোগী' বলে ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন জার্মান সাংসদ আন্দ্রেয়াস নিক৷ তিনি চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের দলের সদস্য৷ এছাড়া জার্মান সংসদের ‘ফরেন অ্যাফেয়ার্স কমিটি'তেও আছেন নিক৷

তিনি বলেন, মার্কিন রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যের ভাষা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পূর্ববর্তী সময়কার কথা মনে করিয়ে দেয়৷ ‘‘আপনি যদি বর্তমান প্রেক্ষাপটে ‘জাগিয়ে তোলা' ও ‘ক্ষমতাবান করা' শব্দের অনুবাদ করেন, তাহলে জার্মান ভাষায় খুব কুৎসিত শব্দ বেরিয়ে আসে, যা গত শতকের ২০ ও ৩০-এর দশকের কথা মনে করিয়ে দেয়,'' ডয়চে ভেলেকে বলেন তিনি৷

ভিডিও দেখুন 07:48
এখন লাইভ
07:48 মিনিট

US ambassador's 'time may be running out' after controversial comments: German lawmaker

জার্মানিতে রাষ্ট্রদূত হিসেবে কাজ করার যে দায়িত্ব গ্রেনেলের, তা আবারও ভেবে দেখার পরামর্শও দিয়েছেন তিনি৷ ‘‘তা না হলে তিনি একজন ‘খুবই অকার্যকর' রাষ্ট্রদূত হওয়ার ঝুঁকিতে থাকবেন,'' বলে মনে করেন নিক৷ গ্রেনেলকে জার্মানির ইতিহাস ভালোভাবে পড়ারও পরামর্শ দিয়েছেন তিনি৷

এর আগে গত মাসে গ্রেনেলের আরেকটি বক্তব্যে উত্তেজনা তৈরি হয়েছিল৷মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরান চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে সরিয়ে নেয়ার পর গ্রেনেল জার্মান কোম্পানিগুলোকে ‘অবিলম্বে' ইরান থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নেয়ার কথা বলেছিলেন৷

গ্রেনেলকে জার্মানি থেকে বহিষ্কার করা উচিত কিনা এই প্রশ্নের জবাবে নিক বলেন, এই সিদ্ধান্ত যুক্তরাষ্ট্রের নিতে হবে৷

এদিকে, জার্মানির বামপন্থি দলগুলো গ্রেনেলকে বহিষ্কারের আহ্বান জানিয়েছে৷

ইউরোপীয় সংসদের সাবেক প্রেসিডেন্ট ও জার্মান রাজনীতিক মার্টিন শ্যুলৎসও মার্কিন রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যের সমালোচনা করেছেন৷ ‘‘এই ব্যক্তি যা করছেন তা সাধারণত আন্তর্জাতিক কূটনীতিতে শোনা যায় না,'' জার্মান বার্তা সংস্থা ডিপিএ'কে বলেন তিনি৷

বুধবার জার্মানির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে গ্রেনেলের যাওয়ার কথা রয়েছে৷ সেই সময় তাঁর কাছে তাঁর সাম্প্রতিক বক্তব্যের ব্যাখ্যা চাওয়া হতে পারে৷

এদিকে, মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গ্রেনেলের বক্তব্য সমর্থন করেছে৷ মুখপাত্র হিদার নাওয়ার্ট বলেছেন, মার্কিন রাষ্ট্রদূতদের তাঁদের মতামত প্রকাশের অধিকার রয়েছে৷

আলেকজান্ডার পেয়ার্সন/জেডএইচ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন