জাদুঘর থেকে মহাত্মা গান্ধীর চশমা উধাও | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 15.06.2011
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সমাজ সংস্কৃতি

জাদুঘর থেকে মহাত্মা গান্ধীর চশমা উধাও

ভারতের পশ্চিমাঞ্চলের একটি জাদুঘর থেকে মহাত্মা গান্ধীর চিরপরিচিত গোল ফ্রেমের চশমা খোয়া গেছে৷ জাদুঘরের কর্মকর্তারা এই খবর দিয়েছেন৷

চিরপরিচিত সেই চশমা

চিরপরিচিত সেই চশমা

নাগপুর শহর থেকে প্রায় ৭৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত সেবাগ্রাম আশ্রমের কর্মকর্তারা জানান, আশ্রমের প্রতিষ্ঠা দিবস উদযাপনের প্রস্তুতি নেবার সময়ে চশমা খোয়া যাবার বিষয়টি কর্মকর্তাদের নজরে আসে৷

ভারতের উত্তরপূর্বাঞ্চলের মহারাষ্ট্র রাজ্যের ওয়ার্ধা শহরের কাছে ঐ আশ্রমটিতে মহাত্মা গান্ধী প্রথম আসেন ১৯৩০ দশকের মাঝামাঝি সময়ে৷ ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে ভারত ছাড়ো প্রস্তাব গৃহীত হয় সেখানে ১৯৪২ সালের জুলাই মাসে৷

Mahatma Gandhi - Auktion

২০০৯ সালে নিউ ইয়র্কে নিলামে বিক্রি হয়েছিল আরেক চশমা

তালা লাগোনো একটি শো ক্যাবিনেটে, একটি কলম এবং একটি বাথরুম ব্রাশের মতো গান্ধীর ব্যক্তিগত জিনিসপত্রের সঙ্গেই ছিল তাঁর চশমা৷ আশ্রমের ম্যানেজার আকাশ লোখান্ডে বার্তা সংস্থা প্রেস ট্রাস্ট অফ ইন্ডিয়াকে বলেছেন, চশমা খোয়া যাবার ব্যপারটি নিয়ে পুলিশও চিন্তিত, তবে আনুষ্ঠানিক কোন অভিযোগ দায়ের করা হয়নি৷ আশ্রমের প্রেসিডেন্ট এম.এম. গদকারির বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থাটি জানিয়েছে, ‘‘ট্রাস্টি বোর্ডের পরবর্তী বৈঠকে ইস্যুটি নিয়ে আলোচনা করা হবে, এবং এই বিষয়ে পুলিশের কাছে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করা হবে কিনা, এই ব্যপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে৷'' তিনি আরো বলেন, ‘‘গান্ধীর খোয়া যাওয়া চশমার ব্যপারে আশ্রমের কর্মীদের চুপ থাকতে বলা হয়েছিল৷'' তিনি বলেন, ‘‘গান্ধীজির ব্যক্তিগত জিনিসপত্রের তালিকায় কোনভাবে চশমার কথা বাদ পড়ে গিয়েছিল৷ আর সে কারণেই যিনি এগুলো পরিষ্কার করেন, তার নজরে ব্যপারটি পড়তে দেরি হয়ে যায়৷'' তিনি বলেন, ‘‘গান্ধীজির অন্যান্য জিনিসপত্র সব ঠিকই আছে৷''

চশমা ঠিক কখন খোয়া গেছে, তা জানা যায়নি, একথা প্রথমে বলা হলেও পরে আশ্রমের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয় যে, চশমা গত নভেম্বর মাস থেকেই পাওয়া যাচ্ছে না৷

পিটিআই জানিয়েছে, প্রতি বছরে প্রায় ৩ লাখ মানুষ সেবাগ্রাম আশ্রম পরিদর্শন করেন৷

প্রতিবেদন: ফাহমিদা সুলতানা

সম্পদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন