1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
ইউক্রেন
ছবি: Alexei Konovalov/TASS/dpa/picture alliance
সমাজইউক্রেন

খেরসনকে বিচ্ছিন্ন করলো ইউক্রেন

৯ আগস্ট ২০২২

রাশিয়ার সঙ্গে খেরসনের মূল যোগাযোগের রাস্তা ইউক্রেন সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দিয়েছে বলে দাবি।

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%96%E0%A7%87%E0%A6%B0%E0%A6%B8%E0%A6%A8%E0%A6%95%E0%A7%87-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%9A%E0%A7%8D%E0%A6%9B%E0%A6%BF%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A8-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A6%B2%E0%A7%8B-%E0%A6%87%E0%A6%89%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%A8/a-62750423

পূর্ব ইউক্রেনের খেরসন অঞ্চল যুদ্ধের একেবারে গোড়াতেই দখল করে নিয়েছিল রাশিয়া। এই অঞ্চলে প্রায় ৩০ লাখ মানুষ থাকেন। ইউক্রেন এই অঞ্চলটিকে অত্যন্ত গুরুত্ব দেয় এবং নিজেদের অঞ্চল বলে মনে করে। দীর্ঘ যুদ্ধের পর সেই খেরসনে কৌশলগত সুবিধা পাওয়ার রাস্তা তৈরি করল ইউক্রেন। অন্তত, ইউক্রেনের সেনার দাবি তেমনই।

যুদ্ধের মাঝে ইস্তাম্বুলে প্রথম ইউক্রেনীয় খাদ্য জাহাজ

ইউক্রেন জানিয়েছে, রাশিয়ার মূল ভূখণ্ড থেকে খেরসন প্রবেশের অন্যতম রাস্তা নিপ্রো নদী। ওই নদীর উপর গুরুত্বপূর্ণ একটি সেতু ছিল। এতদিন সেই সেতুর ব্যবহার করেই খেরসনে সেনা এবং রসদ পাঠিয়েছে রাশিয়া। ইউক্রেন কয়েকদিন আগে দাবি করেছিল, সেতুর সেই রাস্তা তারা বন্ধ করে দিতে পেরেছে। সেতুটি নষ্ট করে দেওয়া গেছে। সোমবার তারা জানিয়েছে, রাতভর ওই সেতুতে শেলিং করে সেটি সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। এর ফলে ওই সেতু পার করে রাশিয়া খেরসনে নতুন করে সেনা বা রসদ পাঠাতে পারবে না। খেরসনে অবস্থিত রাশিয়ার সেনাও বাইরে যেতে পারবে না। তারা কার্যত অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে।

রাশিয়ার মদতপুষ্ট বিচ্ছিন্নতাবাদী যোদ্ধারাও একথা স্বীকার করেছে। তবে তারা জানিয়েছে, ইউক্রেনের আক্রমণে সেতুটি বিপুলভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে সম্পূর্ণ ভেঙে গেছে, একথা তারা স্বীকার করেনি। বরং তাদের বক্তব্য, রাশিয়া ইতিমধ্যেই সেতুটি সংস্কারের কাজ শুরু করেছে। নৌকার মাধ্যমেও তারা জিনিসপত্র আদানপ্রদান করতে পারবে বলে বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতারা জানিয়েছেন। যদিও ইউক্রেন সেই কথায় আমল দেয়নি। তাদের বক্তব্য, এবার খেরসনে পুনর্দখলের কাজ শুরু হবে।

ঝাপোরিজ্ঝিয়ার পরিস্থিতি

ঝাপোরিজ্ঝিয়ার পরমাণু প্রকল্পে যেতে চায় জাতিসংঘ। জাতিসংঘের প্রধান আন্তোনিও গুতেরেস আবেদন করেছেন, তাদের প্রতিনিধিদের যেন ওই রমাণু কেন্দ্রে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়। ওই কেন্দ্রটি নিয়ে চিন্তায় জাতিসংঘ-সহ একাধিক সংস্থা। কারণ সম্প্রতি ওই কেন্দ্রে মিসাইল হামলা হয়েছে। যার দায় রাশিয়া এবং ইউক্রেন একে অপরের উপর চাপিয়ে দিয়েছে। ঝাপোরিজ্ঝিয়া পরমাণু প্রকল্পটি এখন রাশিয়ার দখলে। কিন্তু তার ভিতর ইউক্রেনের কর্মীরা এখনো কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। সম্প্রতি ওই কেন্দ্রের ভিতরে মিসাইল ছোঁড়া হয়। ঘটনায় পরমাণু কেন্দ্রের বিশেষ ক্ষতি হয়নি বলে রাশিয়া দাবি করেছে। তবে একটি রিঅ্যাক্টর বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এক কর্মীর মৃত্যুও হয়েছে। গুতেরেস জানিয়েছেন, তারা ওই পরমাণু কেন্দ্র ঘুরে দেখতে চান। পরমাণু কেন্দ্রে আক্রমণ একরকম আত্মহত্যার পরিকল্পনা বলে জানিয়েছেন তিনি। কেন্দ্রটি যাতে সুরক্ষিত থাকে, তার দায়িত্ব নিতে হবে বলে আবেদন করেছেন গুতেরেস।

ইউক্রেনকে আরো অস্ত্র

আরো এক বিলিয়ন ডলারের অস্ত্র দেওয়া হবে ইউক্রেনকে। জানিয়েছে অ্যামেরিকা। সোমবার হোয়াইট হাউস থেকে একথা জানানো হয়। বস্তুত, ইউক্রেন জানিয়েছে, মার্কিন দূরপাল্লার মিসাইল ব্যবহার করেই তারা খেরসনে কৌশলী সুবিধা পেয়েছে। তাদের আরো মিসাইল প্রয়োজন বলেও জানিয়েছে ইউক্রেন। অ্যামেরিকাও জানিয়েছে, তাদের আরো অস্ত্র দেওয়া হবে। এক সপ্তাহ আগেই অ্যামেরিকা ৫০০ মিলিয়ন ডলারের একটি প্যাকেজ ঘোষণা করেছিল। এবার ঘোষণা হলো এক বিলিয়ন ডলারের অস্ত্রের প্যাকেজ। অন্যদিকে, জার্মানির অস্ত্রও ইউক্রেনে গিয়ে পৌঁছেছে।

এসজি/জিএইচ (রয়টার্স, এএফপি, এপি, ডিপিএ)

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ভ্লাদিমির পুটিন

চার ইউক্রেনীয় অঞ্চল অধিগ্রহণের পথে রাশিয়া

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান