কোরবানির পশু আর চামড়ার বাজারে হতাশা | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 23.08.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

কোরবানির পশু আর চামড়ার বাজারে হতাশা

বাংলাদেশে এবার কোরবানির পশু এবং চামড়ার বাজার নিয়ে হতাশাজনক পরিস্থিতি বিরাজ করেছে৷ শুরুতে পশুর দাম চড়া থাকলেও শেষে দরপতন পশুর ব্যাপারীদের কাঁদিয়েছে৷ সরকার চামড়ার দাম কম নির্ধারণ করেছে৷ তবে বাজারে ছিল আরো কম৷

কোরবানির পশুর বাজার শুরুতে ছিল বেশ চড়া৷ ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস এবং ঈদুল আজহা কাছাকাছি সময়ে পড়ায় এই অবস্থা সৃষ্টি হয়৷ কারণ, ১৫ আগস্ট শোক দিবসে দুস্থদের খাবার বিতরণে প্রচুর গরু জবাই করা হয়৷

কিন্তু কোরবানির এক-দুইদিন আগে পশুর বাজার পড়তে থাকে৷ যে গরু  এক লাখ টাকার নীচে বিক্রিতে বাজি ছিলেন না ব্যবসায়ীরা, তার দাম কোনোভাবে ৬০ হাজার টাকার বেশি বলছিলেন না ক্রেতারা৷ ফলে অনেকে গরু বিক্রি না করে ফেরত নিয়ে যেতে বাধ্য হন৷ আবার কেউ কেউ খরচের কথা চিন্তা করে কম দামে বা লোকসানে বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছেন৷ এমনকি কোরবানির দিন ভোররাতে অনেক ব্যাপারীকে (পশু ব্যবসায়ী) কাঁদতে দেখা গেছে৷ বিশেষ করে যাঁরা শেষ দুই দিনে কোরবানির পশু নিয়ে বাজারে এসেছেন, তাঁরাই বিপাকে পড়েছেন বেশি৷

ফরিদপুর থেকে শনির আখড়া বাজারে একশ'র মতো গরু নিয়ে এসেছিলেন বিল্লাল হোসেন৷ তিনি তাঁর সব গরুই বিক্রি করতে পেরেছেন৷ এটা কিভাবে সম্ভব হলো জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘আগেই গরু নিয়ে বাজারে এসেছি৷ শেষ সময়ের অপেক্ষা করিনি৷ কোরবানির দু'দিন আগেই বিক্রি শেষ৷ তারপরও শেষ দিকে দাম কম পেয়েছি৷ গড় দাম হিসেবে আমি চার-পাঁচ হাজার টাকার ব্যবসা করেছি প্রতিটি গরুতে৷ আমার গরু ছিল ৬০ হাজার থেকে এক লাখ টাকার মধ্যে৷ কিন্তু শেষের দুই দিনে যাঁরা বেশি ব্যবসা করার জন্য গরু নিয়ে এসেছেন, তাঁরা ধরা খেয়েছেন৷ কারণ, তখন বাজারে আবার নতুন গরু এসেছে৷''

অডিও শুনুন 02:22

‘শেষ দিকে গরুর দাম কম পেয়েছি’

কোথা থেকে শেষ সময়ে নতুন গরু এলো জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘খামারিরা ওই সময়ে গরু বাজারে নিয়ে এসেছে৷ আর ভারত ও মিয়ানমার থেকেও গরু এসেছে বলে শুনেছি৷ কিন্তু আমি দেখিনি৷''

সরকারের পক্ষ থেকে আগেই বলা হয়েছিল, দেশে কোরবানির গরু-ছাগলের পর্যাপ্ত মজুদ আছে৷ রবিবার  মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় এক বিজ্ঞপ্তিকে জানায়, এবার ঈদুল আজহায় কোরবানিযোগ্য গবাদিপশু (সব ধরনের পশু) রয়েছে প্রায় এক কোটি ১৬ লাখ৷ গত বছর এ সংখ্যা ছিল এক কোটি চার লাখ ২২ হাজার৷ বাংলাদেশে কোরবানিতে ২৫-৩০ লাখ গরু কোরবানি হয়৷ বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, ২০১৬ সালে দেশে পশু কোরবানি হয়েছে এক কোটি তিন লাখ (সব ধরনের পশু)৷ ২০১৭ সালে এ সংখ্যা ছিল এক কোটি পাঁচ লাখ৷ সে অনুযায়ী এবার পাঁচ বা ১০ ভাগ কোরবানি বেশি হলেও এক কোটি ১৬ লাখ পশু যথেষ্ট৷ তবে কথা বলে জানা গেছে, কোনোভাবেই ৪০ লাখের বেশি গরু কোরবানি হয় না্৷

কথা বলে জানা গেছে, শুরুর দিকে কোরবানির পশুর দাম বেশি থাকায় অনেক ব্যাপারীই পশু ধরে রাখছিলেন আরো বেশি দামের আশায়৷ শেষের দিকে বাজারে সরবরাহ বাড়ায় তাঁদের মাথায় হাত পড়ে৷ গাবতলির ব্যাপারী দুদু মিয়া ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘অনেকে গরু ফেরত নিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছেন৷ কারণ, তাঁরা কেনা দামও পাচ্ছিলেন না, কেননা, একটি গরু ৬-৭ মাস আগে কেনা হয়, বাজারে নিয়ে আসা পর্যন্ত গরুর পিছনে অনেক খরচ আছে৷ আবার কেউ কেউ লোকসান দিয়েও বিক্রি করেছেন৷ কারণ, গরু ফেরত নিয়ে গেলে আবারো খাওয়াতে হবে, পুষতে হবে৷ তাতে লোকসান আরো বেড়ে যাবে৷ কসাইরা গরু কেনে বাজারে মাংশের কেজি কত দাম তা দেখে ব্যবসার হিসাব করে৷''

সাংবাদিক  শাহেদ শফিক  এবার গরুর হাট নিয়ে সার্বক্ষণিক কাজ করেছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘গরুর বাজার ক্রেতাদের সাধ্যের মধ্যে রাখায় শেষ দিকে সীমান্ত বলতে গেলে খুলে দেয়া হয়৷ শেষ দুই দিনে ১৬ লাখ গরু এসেছে প্রতিবেশী দেশ থেকে৷''

চামড়ার দাম নিয়ে হতাশা

এ বছর চামড়ার যে দাম নির্ধারণ করে দেয় সাকার, তা আগের বছরের চেয়ে কম৷ এ বছর ঢাকায় লবণযুক্ত প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া ৪৫ থেকে ৫০ টাকা; ঢাকার বাইরে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা নির্ধারণ করে দেয় সরকার৷ এছাড়া খাসির চামড়া প্রতি বর্গফুট ১৮ থেকে ২০ টাকা এবং বকরির চামড়া ১৩ থেকে ১৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়৷ গত বছর প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া ৫০ থেকে ৫৫ টাকা; ঢাকার বাইরে ৪০ থেকে ৪৫ টাকা এবং খাসির চামড়া ২০ থেকে ২২ টাকা এবং বকরির চামড়া ১৫ থেকে ১৭ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছিল৷ ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এবার চামড়ার দাম গত তিন দশকের মধ্যে সবচেয়ে কম৷ কোনো গরুর চামড়াই সাতশ' টাকার বেশি দামে নিতে চান না পাইকাররা৷ ফলে ফরিয়াদের মধ্যে যাঁরা একটু বেশি দামে কিনেছেন, তাঁরা বিপাকে পড়েছেন৷ ২০১৩ সালে ঢাকায় প্রতি বর্গফুট গরুর লবণযুক্ত চামড়ার দাম ধরা হয়েছিল ৮৫ থেকে ৯০ টাকা৷

কলাবাগানের ব্যবসায়ী মিন্টু মিয়া ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘গত বছর আমি ৬০ হাজার টাকায় একটি গরু কোরবানি দিয়ে চামড়া বিক্রি করি সাতশ' টাকায়৷ এবার ৯০ হাজার টাকায় গরু কোরবানি দিয়ে চামড়া বিক্রি করেছি মাত্র পাঁচশ' টাকায়৷ তবে এবার চামড়া নিয়ে তেমন কোনো কাড়াকাড়ি ছিল না৷ চামড়া জোর করে নেয়ার সন্ত্রাসী তৎপরতাও চোখে পড়েনি৷''

ঢাকার পোস্তা এবং সাভার কাঁচা চামড়া বিক্রির সবচেয়ে বড় আড়ৎ৷ সেই সব আড়তে মৌসুমি ব্যবসায়ীরা চামড়া নিয়ে অপেক্ষা করেও বিক্রি করতে পারছেন না৷ কারণ, ব্যবসায়ীরা অনেক কম দাম বলছেন৷  ইব্রাহিম নামে একজন মৌসুমি ব্যবসায়ী বললেন, ‘‘আমি এক হাজার পিসের মতো গরুর চামড়া কিনেছি৷ গড়ে দাম পড়েছে সাতশ' টাকার কিছু বেশি, কিন্তু আড়ৎদাররা কোনো চামড়াই সাতশ' টাকার বেশি দাম দিতে রাজি হচ্ছেন না৷  যদি এই পরিস্থিতিই চলে, তাহলে আমাকে লোকসান গুনতে হবে৷''

অডিও শুনুন 02:15

‘আড়ৎদাররা সাতশ' টাকার বেশি দাম দিতে রাজি হচ্ছেন না’

বাংলাদেশ ফিনিশড লেদার, লেদার গুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিশন (বিএফএলএলএফইএ)-র জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান ও আনোয়ার ট্যানারির ব্যবস্থাপনা পরিচালক দিলজাহান ভূঁইয়া ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা সরকারকে চামড়ার দাম এর চেয়েও কম প্রস্তাব করেছিলাম৷ কারণ, বিশ্ব বাজারে চামড়ার দাম কম৷ আমাদের গত বছরের কেনা অনেক চামড়া এখনো বিক্রি করতে পারিনি৷ বেশি দামে কিনে এখন লোকসান দিতে হচ্ছে৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘আগে বাংলাদেশের চামড়ার বড় ক্রেতা ছিল কোরিয়া৷ এখন চীন৷  চীন চামড়া পাঠায় যুক্তরাষ্ট্রে৷ যুক্তরাষ্ট্র চীন থেকে চামড়া আমদানির ওপর নতুন করে কর বসিয়েছে৷ সেটা কাভার করার জন্য চীন এখন  আমাদের কাছ থেকে নেয়া চামড়ার দাম কমিয়ে দিয়েছে৷''

ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য অনুযায়ী, বছরে সারাদেশ থেকে কমবেশি ২২ কোটি বর্গফুট চামড়া পাওয়া যায়৷ এর মধ্যে ৬৪ দশমিক ৮৩ শতাংশ গরুর চামড়া, ৩১ দশমিক ৮২ শতাংশ ছাগলের, ২ দশমিক ২৫ শতাংশ মহিষের এবং ১ দশমিক ২ শতাংশ ভেড়ার চামড়া৷ মোট চামড়ার অর্ধেকের বেশি পাওয়া যায় কোরবানির সময়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন