কোভিডে গাঁজা সেবনে উল্লম্ফন | বিশ্ব | DW | 27.06.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

কোভিডে গাঁজা সেবনে উল্লম্ফন

বিভিন্ন দেশে গাঁজার বৈধতা প্রদান এবং মহামারির মধ্যে লকডাউনের কারণে বিশ্বে গাঁজা সেবনের পরিমাণ বেড়েছে৷ এমন তথ্য দিয়ে জাতিসংঘের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে এর ফলে বিষন্নতা ও আত্মহত্যার ঝুঁকি বাড়ছে৷

সোমবার প্রকাশিত জাতিসংঘের অফিস অন ড্রাগ অ্যান্ড ক্রাইমসের (ইউএনওডিসি) বার্ষিক প্রতিবেদনে অনুযায়ী, গাঁজা বিশ্বের সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত মাদক৷ বাজার শক্তিশালী হওয়ায় যার ব্যবহার ক্রমশ বাড়ছে৷

২০১২ সালে চিকিৎসা বহির্ভূত গাঁজা ব্যবহারের বৈধতা দেয় যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ও কলোরাডো রাজ্য৷ পরবর্তীতে আরো কিছু রাজ্য তাদের পথ অনুসরণ করে৷ ২০১৩ সালে উরুগুয়ে এবং ২০১৮ সালে ক্যানাডা গাঁজা বেঁচাকেনা ও সেবনের বৈধতা দেয়৷ অন্য কিছু দেশও এমন পদক্ষেপ নেয়৷ তবে প্রতিবেদনে মূলত এই তিন দেশের দিকেই নজর দিয়েছে ইউএনওডিসি৷

প্রতিবেদনে তারা বলেছে, ‘‘গাঁজার বৈধতায় মাদকটির ব্যবহারে উর্ধ্বমুখী প্রবণতাকে ত্বরান্বিত করেছে৷'' তবে তরুণদের মধ্যে গাঁজা সেবনের প্রবণতা খুব একটা বাড়েনি৷ তারা বরং আরো উচ্চ ক্ষমতার মাদকের দিকে বেশি ঝুঁকেছে৷ তবে প্রতিবেদন বলছে, ‘‘নিয়মিত গাঁজা সেবনকারীদের মধ্যে মানসিক ব্যাধি ও আত্মহত্যার প্রবণতা বেড়েছে৷''

প্রতিবেদনে দেয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০২০ সালে বিশ্বের ২৮ কোটি ৪০ লাখ মানুষ বা পাঁচ দশমিক ছয় শতাংশ জনগোষ্ঠী হেরোইন, কোকেন, অ্যাম্ফেটামিনসের মতো অন্তত একটি মাদকে আসক্ত ছিল৷ এর মধ্যে গাঁজা সেবনকারীর সংখ্যা ছিল ২০ কোটি ৯০ লাখ৷ বলা হয়েছে, কোভিড-১৯ মহামারির সময় লকডাউন ২০২০ সালে গাঁজা সেবনের প্রবণতা বৃদ্ধি করেছে৷ ঐ বছর কোকেন উৎপাদনও রেকর্ড পরিমাণ বেড়েছে৷

এফএস/কেএম (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়