কে চালায় ইন্টারপোল? | বিশ্ব | DW | 22.08.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

কে চালায় ইন্টারপোল?

তুরস্ক সরকারের অনুরোধে তুর্কি বংশোদ্ভূত জার্মান লেখক ডোগান আকানলি স্পেনে গ্রেপ্তার হওয়ায় চলছে সমালোচনা৷ প্রশ্ন উঠছে, কারা চালায় ইন্টারপোল? কিভাবেই বা নির্ধারণ হয় এই আন্তর্জাতিক সংস্থার কাজ? কিভাবে নিশ্চিত হয় জবাবদিহিতা?

একটা সময় ছিল, যখন বড় ধরনের অপরাধ করে পার পেয়ে যাওয়া ছিল খুব সহজ৷ অপরাধীরা দেশের সীমানা পেরিয়ে গেলেই তাদের আর আটক বা গ্রেপ্তারের সুযোগ থাকতো না সেদেশের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর৷ এই সুযোগ বেশ ভালোই কাজে লাগাচ্ছিল বিভিন্ন মাফিয়া চক্র৷

বারবার এভাবে অপরাধীদের কাছে পরাজিত হওয়ার হতাশা থেকেই চিন্তা আসে একটি আন্তর্জাতিক বাহিনী গড়ে তোলার৷ ১৯১৪ সালে মোনাকোতে ইন্টারন্যাশনাল কংগ্রেস অফ জুডিশিয়াল পুলিশের প্রথম বৈঠকে এ বিষয়ে আলোচনা হয়৷ এই সমস্যাকে বৈশ্বিকভাবে মোকাবেলা করার ব্যাপারে বৈঠকে একমত হন অংশগ্রহণকারীরা৷ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, 'আন্তর্জাতিক অপরাধীদের দমন করা হবে আন্তর্জাতিকভাবেই৷’

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ এই উদ্যোগের প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো তৈরিকে দীর্ঘায়িত করে৷ কিন্তু ১৯২৩ সালে সংস্থাটির দ্বিতীয় কংগ্রেসে ভিয়েনায় ইন্টারন্যাশনাল ক্রিমিনাল পুলিশ কমিশন স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়৷ পরবর্তীতে এই সংস্থারই নামকরণ হয় ইন্টারপোল৷

কিন্তু সংস্থাটির কোনো আইনি কাঠামো না থাকায় সদস্য রাষ্ট্রগুলোর ওপর এর তেমন কর্তৃত্বও ছিল না৷ শুধু গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ এবং বিভিন্ন দেশের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর মধ্যে যোগাযোগ রক্ষাই ছিল এর প্রধান কাজ৷

Infografik Interpol Struktur ENG

ইন্টারপোলের কাজের ধরণ

সদস্য রাষ্ট্রগুলোর অভ্যন্তরীণ বা দেশগুলোর মধ্যকার রাজনৈতিক বিষয়ে যাতে ইন্টারপোল নাক না গলাতে পারে, সেজন্য সংস্থার প্রতিষ্ঠাকালীন মূলনীতিতে বলা হয়, এই সংস্থা 'রাজনৈতিক, সেনা সম্পর্কিত, ধর্মীয় ও জাতিগত' বিষয় ছাড়া অন্য বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করবে৷ মূলত জঙ্গিবাদ, যুদ্ধাপরাধ, মাদক চোরাচালান, মানবপাচার, শিশু পর্নোগ্রাফি, দুর্নীতির মতো অপরাধ নিয়েই কাজ করে ইন্টারপোল৷

ইন্টারপোলের সদরদপ্তর এখন ফ্রান্সের লিওঁতে৷ সংস্থাটির বার্ষিক বাজেট প্রায় ৭৮ মিলিয়ন ইউরো বা ৭০ কোটি টাকা৷ এই বাজেটের অর্থ আসে এর ১৯০টি সদস্য রাষ্ট্রের বার্ষিক অনুদান থেকে৷ ইন্টারপোলের নিজস্ব কর্মকর্তা আছেন মাত্র সাড়ে ছয়শ'র কাছাকাছি৷ এদের সবাই বিভিন্ন দেশের সরকারি কর্মচারি ও পুলিশ কর্মকর্তা৷

অপব্যবহার

অপরাধীদের অপরাধ বিষয়ে বিভিন্ন দেশের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে সতর্ক করতে নানা রঙের নোটিশ ব্যবহার করে থাকে ইন্টারপোল৷ সবচেয়ে বিপদজনক হিসেবে চিহ্নিত করা হয় রেড নোটিশকে৷ রেড নোটিশকে এই সংস্থাটির আন্তর্জাতিক গ্রেপ্তারি পরোয়ানার সমতুল্য হিসেবে বিবেচনা করা হয়৷ এই ব্যবস্থায় মুহূর্তের মধ্যে ১৯০ সদস্য রাষ্ট্রের পুলিশের কাছে চলে যায় অপরাধীদের অপরাধ, সর্বশেষ অবস্থান এবং অন্যান্য বিষয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য৷

পালিয়ে বেড়ানো অপরাধীদের ধরতে এই ব্যবস্থা খুব কার্যকর বলে আপাতদৃষ্টিতে মনে হলেও, আছে বিপরীত ঘটনাও৷ ইউরোপিয়ান কমিশন এবং বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনের অভিযোগ, নানা সময়েই বিভিন্ন স্বৈরাচারী সরকার তাদের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে দমনে ব্যবহার করেছে ইন্টারপোলের এই রেড নোটিশ৷ ইন্টারপোলও কোনোপ্রকার পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই সে নোটিশ জারি করে দেয়৷

নির্দোষ ব্যক্তিকে হয়রানিতেও অনেকবার ইন্টারপোলের রেড নোটিশ কাজে লাগানো হয়েছে বলে অভিযোগ করেন বেসরকারি সংগঠন ‘ফেয়ার ট্রায়ালস'-এর ক্যাম্পেইন ও কমিউনিকেশন ম্যানেজার অ্যালেক্স মিক৷ ডয়চে ভেলেকে পাঠানো এক ই-মেলে তিনি বলেন, ‘‘অপরাধ দমনে ইন্টারপোলের ভূমিকা অস্বীকার করার উপায় নেই৷ কিন্তু সমস্যা হচ্ছে, গুরুতর অপরাধীদের ধরতে কাজে লাগানোর বদলে এর সদস্য রাষ্ট্রগুলোর অনেকেই রেড নোটিশকে কাজে লাগিয়েছে শরণার্থী, অধিকারকর্মী ও সাংবাদিকদের ধরতে৷ কোনো কোনো শাসক সমালোচকদের চুপ করাতেও সুযোগের অপব্যবহার করেছেন৷''

ফলে অনেকক্ষেত্রে এমন ঘটনা ঘটেছে, সাংবাদিক ও অধিকারকর্মীদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অযৌক্তিক প্রমাণের আগেই তাদের মাসের পর মাস কাটাতে হয়েছে কারাগারে৷

জবাবদিহিতার অভাব

ইন্টারপোলের সবচেয়ে বড় সমালোচনা হলো, এর কাজের তত্ত্বাবধান ও জবাবদিহিতার কোনো ব্যবস্থাই নেই৷ বছরে একবার সাধারণ সভায় বসে সদস্য রাষ্ট্রগুলোর পুলিশ কর্মকর্তারা৷ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত তখনই নেয়া হয়৷ কিন্তু এছাড়া, সার্বক্ষণিক তত্ত্বাবধানের আর কোনো ব্যবস্থাই নেই সংস্থাটিতে৷

কোনো আদালত, বা অন্য কোনো আন্তর্জাতিক সংস্থার কাছেও ইন্টারপোলের জবাবদিহিতার ব্যবস্থা রাখা হয়নি৷ নিজের সদস্য ও কর্মকর্তাদের ছাড়া অন্য কোনো সংস্থা, এমনকি জাতিসংঘকেও কোনো তথ্য দিতে বাধ্য নয় ইন্টারপোল৷ গোপনীয়তা রক্ষার নামে সংস্থাটির কর্মকাণ্ডে সৃষ্টি হয়েছে এক ধরনের অস্বচ্ছতা৷ ফলে সংস্থাটি যদি নিজেই নিজের নিয়ম ভঙ্গ করে, আইনের অধীনে এর প্রতিকার পাওয়ার কোনো উপায় নেই৷

এ সমস্যার সমাধানে আলোচনায় উঠে আসে ইউরোপের দেশগুলোর নিজেদের পুলিশি সংস্থা ইউরোপোলের কথা৷ ইন্টারপোলের মতো সংকট যাতে তৈরি না হয়, সেজন্য ইউরোপোলের জবাবদিহিতা নিশ্চিতের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টকে৷ বাজেটের অনুমোদন এবং জ্যেষ্ঠ পদগুলোতে নিয়োগ দেয় এই পার্লামেন্ট৷ ইউরোপোলকে আইনি কাঠামোর মধ্যে রাখার দায়িত্ব দেয়া আছে ইউরোপিয়ান কোর্ট অফ জাস্টিসের অধীনে৷

রব মাজ/এডিকে/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন