করোনাকালে কুম্ভে স্নান করেছেন ৯১ লাখ | বিশ্ব | DW | 30.04.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

করোনাকালে কুম্ভে স্নান করেছেন ৯১ লাখ

গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনায় আক্রান্ত তিন লাখ ৮৬ হাজার। অন্যদিকে হরিদ্বারে কুম্ভমেলায় মোট ৯১ লাখ মানুষ গেছিলেন।

হরিদ্বারে কুম্ভমেলায় গঙ্গায় স্নান করেছেন মোট ৯১ লাখ মানুষ।

হরিদ্বারে কুম্ভমেলায় গঙ্গায় স্নান করেছেন মোট ৯১ লাখ মানুষ।

ভারতে করোনাকে রোখা যাচ্ছে না। গত ২৪ ঘণ্টাতে তিন হাজার ৪৯৮ জন মারা গেছেন। মহারাষ্ট্র, কেরালা, কর্ণাটক, তামিলনাড়ু, দিল্লি, উত্তর প্রদেশের অবস্থা খুব খারাপ। প্রতিটি রাজ্যেই হাসপাতালের বেডের জন্য হাহাকার চলছে। অক্সিজেনের জন্যও।

তবে এর মধ্যেও নির্বিকার কুম্ভমেলায় যাওয়া মানুষজন। হিন্দুস্তান টাইমস জানিয়েছে, সবমিলিয়ে ৯১ লাখ মানুষ হরিদ্বারে কুম্ভমেলায় গিয়ে গঙ্গায় স্নান করেছেন। তার মধ্যে এপ্রিল মাসে গেছেন ৬০ লাখ মানুষ। বুধবার হরিদ্বারে কুম্ভ শেষ হয়েছে। সেদিনও ২৫ হাজার মানুষ শেষ শাহি স্নান করেছেন। হর কি পৌরির ঘাটে ১৩টি আখড়ার দুই হাজার সাধুর স্নানের জন্য আলাদা করে রাখা হয়েছিল। কুম্ভ শেষ হওয়ার পর হরিদ্বারে কারফিউ জারি করা হয়েছে। 

করোনার এই তাণ্ডবের মধ্যে কেন কুম্ভমেলার অনুমতি দেয়া হলো, কী করে এত মানুষকে আসতে দেয়া হলো, আর মানুষই বা এই পরিস্থিতির মধ্যে সব বিপদ ভুলে কী করে হরিদ্বারে ছুটলেন, তার কোনো ব্যাখ্যা নেই। রাজ্য সরকার আগে জানিয়েছিল, তারা সব ধরনের সাবধানতা নিয়েছে। করোনা পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু এত মানুষের ক্ষেত্রে তা করা সম্ভব নয় বলে নেটমাধ্যমে প্রশ্ন উঠেছে।  ১২ এপ্রিল ৩৫ লাখ মানুষ গঙ্গায় স্নান করেছেন।

অ্যামেরিকার সাহায্য 

শুক্রবার সকালে অ্যামেরিকা থেকে করোনা-মোকাবিলার জন্য সাহায্য এসে পৌঁছাল। চারশ অক্সিজেন সিলিন্ডার, ১০ লাখ করোনা পরীক্ষার কিট এবং হাসপাতালের জন্য জরুরি কিছু জিনিস পাঠিয়েছে অ্যামেরিকা। নয়াদিল্লির মার্কিন দূতাবাস টুইট করে বলেছে, প্রথম শিপমেন্ট বিশেষ বিমানে এসেছে। আরো আসছে। ভারতের সঙ্গে অ্যামেরিকার ৭০ বছরের সহযোগিতা ও বন্ধুত্বের ইতিহাস আছে।

সোলি সোরাবজির মৃত্যু

প্রবীণ আইনজীবী ও পদ্ম বিভূষণে সম্মানিত সোলি সোরাবজি করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তার বয়স হয়েছি্ল ৯১ বছর। তিনি সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেলও ছিলেন।

জিএইচ/এসজি(পিটিআই, এএনআই, এএফপি)