ইরানকে কেন্দ্র করে ওয়াশিংটনের সঙ্গে রাশিয়া, চীনের সংঘাত | বিশ্ব | DW | 07.08.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইরান

ইরানকে কেন্দ্র করে ওয়াশিংটনের সঙ্গে রাশিয়া, চীনের সংঘাত

অস্ত্র বিক্রির ক্ষেত্রে ইরানের উপর জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়াতে তৎপর হয়ে উঠেছে ট্রাম্প প্রশাসন৷ রাশিয়া ও চীন এই প্রচেষ্টার বিরোধিতা করছে৷ আগামী সপ্তাহে নিরাপত্তা পরিষদে বিষয়টির ফয়সালা হবার কথা৷

জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়াতে তৎপর ট্রাম্প প্রশাসন৷ রাশিয়া ও চীন এই প্রচেষ্টার বিরোধিতা করছে৷ (Getty Images/AFP/A. Kenare)

জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়াতে তৎপর ট্রাম্প প্রশাসন৷ রাশিয়া ও চীন এই প্রচেষ্টার বিরোধিতা করছে৷

করোনা সংকট সত্ত্বেও বিশ্বে সংঘাতের কারণগুলি থেমে যায়নি৷ যেমন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা আবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে৷ অস্ত্র বিক্রির ক্ষেত্রে ইরানের উপর জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়ানোর সময় এসে যাওয়ায় সেই সংঘাত আবার প্রকাশ্যে আসছে৷ আগামী ১৮ই অক্টোবরের মধ্যে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হবে৷ মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও আগামী সপ্তাহে নিরাপত্তা পরিষদে এই প্রস্তাব নিয়ে ভোটাভুটির ঘোষণাকরেছেন৷ জাতিসংঘে মার্কিন রাষ্ট্রদূত ইরানকে ‘বিশ্বের এক নম্বর সন্ত্রাসের মদতকারী দেশ' হিসেবে বর্ণনা করেছেন৷ নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়ানোর প্রস্তাবে চীন বা রাশিয়া বাধা দিলে সেই দেশগুলিও সন্ত্রাসবাদের ‘কো স্পনসর' বা দোসর হয়ে যাবে বলে সতর্ক করে দিয়েছে অ্যামেরিকা৷

জাতিসংঘে মার্কিন রাষ্ট্রদূত কেলি ক্রাফট রাশিয়া ও চীনের কাছে এই সিদ্ধান্তের বৃহত্তর গুরুত্ব তুলে ধরেছেন৷ ক্রাফট বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে শান্তির গুরুত্ব বিবেচনা করে জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা সংক্রান্ত প্রস্তাবে এই দুই দেশ বাধা দেবে না বলে অ্যামেরিকা আশা করছে৷ তবে ইরান ছাড়াও অন্য অনেক ক্ষেত্রে রাশিয়া ও চীনের সহযোগিতার ফলে এই দুই দেশের সীমানার বাইরে অরাজকতা, সংঘাত ও সংঘর্ষে মদত দিয়ে যাবে৷ তাই তাদের কোণঠাসা করতে হবে

রাশিয়া ও চীনও হাত গুটিয়ে বসে নেই৷ এই দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী গত মাসে জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস ও নিরাপত্তা পরিষদের উদ্দেশ্যে চিঠি লিখে অ্যামেরিকার কড়া সমালোচনা করেছেন৷ ইরান সংক্রান্ত প্রস্তাব অনুমোদন করতে ১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদে প্রয়োজনীয় নয়টি ভোট সম্ভব হলে এই দুই দেশ নিজস্ব ভেটো শক্তি প্রয়োগের ইঙ্গিত দিয়েছে৷ রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ ট্রাম্প প্রশাসনের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত প্রচার অভিযানের অভিযোগ এনেছেন৷ অস্ত্র বিক্রির ক্ষেত্রে ইরানের উপর স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা চাপানোর প্রচেষ্টার জন্য তিনি সব দেশের উদ্দেশ্যে অ্যামেরিকার নিন্দার আহ্বান জানিয়েছেন৷ চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই আগামী ১৮ই অক্টোবর সরাসরি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পক্ষে সওয়াল করেছেন৷

পম্পেও জানিয়ে দিয়েছেন যে, সেই প্রস্তাব অনুমোদন করা সম্ভব না হলে অ্যামেরিকা তথাকথিত ‘স্ন্যাপব্যাক' প্রক্রিয়ার আশ্রয় নেবে, যার ফলে ইরানের উপর জাতিসংঘের যাবতীয় নিষেধাজ্ঞা আবার কার্যকর হবে৷ উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে পরমাণু চুক্তি স্বাক্ষরের সময়ে এই শর্ত রাখা হয়েছিল৷ এর আওতায় ইরান নিজস্ব পরমাণু কর্মসূচির উপর নিয়ন্ত্রণের শর্ত লঙ্ঘন করলে জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার ক্ষেত্রে ছাড় প্রত্যাহার করা হবে৷ তবে ট্রাম্প প্রশাসন একতরফাভাবে এই চুক্তি বর্জন করলেও রাশিয়া, চীন, ব্রিটেন, ফ্রান্স ও জার্মানি এখনো সেই চুক্তি চালু রাখতে বদ্ধপরিকর৷ 

এদিকে ওয়াশিংটনের ইরান-নীতির কেন্দ্রস্থলে এক নাটকীয় পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে৷ ইরান-নীতির দায়িত্বপ্রাপ্ত দূত ব্রায়ান হুক আচমকা পদত্যাগের ঘোষণা করেছেন৷ রাষ্ট্রদূত কেলি ক্রাফটের সঙ্গে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেবার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই এই সিদ্ধান্তের কথা জানা গেছে৷ পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এক টুইট বার্তায় ইঙ্গিত দিয়েছেন, যে হুক প্রশাসনের কাজ ছেড়ে বেসরকারি ক্ষেত্রে সক্রিয় হতে চলেছেন৷ 

এসবি/এসিবি (এপি, রয়টার্স)

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন