1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

রেস্টুরেন্টেই মদ আর ধর্মচর্চা!

জাপানে বৌদ্ধ মন্দিরে এখন আর বেশি মানুষ যায় না৷ তাই বলে ভিক্ষুরা মন খারাপ করে বসে নেই৷ খোলা হয়েছে নতুন ধরণের রেস্টুরেন্ট৷ খাওয়া-দাওয়া, চা-কফি এমনকি মদ্যপানও চলে সেখানে৷ সঙ্গে থাকে বৌদ্ধ ধর্মের আলোচনা!

রাজধানী টোকিও এবং তার আশপাশে চুটিয়ে ব্যবসা করছে এমন কিছু রেস্টুরেন্ট৷ রেস্টুরেন্টগুলো আকারে খুব বড় নয়, তাই বলতে গেলে কোনো সময়ই ফাঁকা থাকে না৷ ২০ থেকে ৪০ বছরের নারীরাও যান সেখানে৷ খাওয়া-দাওয়ার পাশাপাশি একটু ধর্ম নিয়ে কথা বলতে ভালোই লাগে তাঁদের৷

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই রেস্টুরেন্টগুলোর মালিক বৌদ্ধ ভিক্ষু৷ কিছু কিছু রেস্টুরেন্টের ওয়েটারও ভিক্ষু৷ বৌদ্ধ ভিক্ষুদের ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে দিব্যি অ্যালকোহল, অর্থাৎ মদও পরিবেশন করেন তাঁরা৷ হাসিমুখে কথা বলেন ক্রেতাদের সঙ্গে৷ ধর্মবিষয়ক প্রশ্নের উত্তরও দেন ভিক্ষুরা৷

টোকিওর এমনই এক রেস্টুরেন্টের নাম ‘টেরা ক্যাফে'৷ জাপানি শব্দ ‘টেরা' মানে মন্দির৷ সুতরাং বাংলায় রেস্টুরেন্টটির নাম দাঁড়ালো ‘মন্দির ক্যাফে'৷ সেই ক্যাফেতে মন্ত্র জপ করার জন্য পুঁতির মালা রাখা হয়েছে৷ কাপড়ে লেখা আছে মন্ত্র৷ ভেতরে গিয়ে একজন ভিক্ষুকে ডেকে নিয়ে কিছু একটা খেতে খেতেই শুরু করতে পারেন ধর্ম নিয়ে আলোচনা৷ চাইলে একটু মন্ত্রও জপ করে নিতে পারেন৷

‘টেরা ক্যাফে'র মালিক হিরোতাকে আসানো নিজেও ভিক্ষু৷ এখনো শিংগোয়িজি মন্দিরের প্রধান ভিক্ষুর দায়িত্বে আছেন তিনি৷ ২০১৩ সালে ‘টেরা ক্যাফে' প্রতিষ্ঠার পর থেকে ধর্ম প্রচারের কাজ মন্দিরের বাইরেই করছেন বেশি৷ ‘টেরা ক্যাফে' ব্যবসা সফল হওয়ায় আরো তিনটি রেস্টুরেন্ট এবং একটি গলফ শপও খুলেছেন হিরোতাকে আসানো৷ রেস্টুরেন্ট ব্যবসায় নামার কারণ জানাতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘‘আজকাল লোকজন আর মন্দিরে আসেনা- এই কথা বলে কান্নাকাটি না করে আমি মন্দিরকেই মানুষের কাছে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করতে চেয়েছি৷''

এসিবি/জেডএইচ (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়