1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘মানসিকতাতেই লুকিয়ে শিশুর প্রতি সহিংসতা বীজ'

বাংলাদেশে শিশু হত্যা এবং শিশুর প্রতি নির্মমতা বেড়েই চলছে৷ কঠোর আইন করেও কমানো যাচ্ছে না শিশুর প্রতি অমানবিক আচরণ৷ এ সব শিশু হত্যা বা শিশু নির্যাতনে আত্মীয়-স্বজন, এমনকি পরিবারের সদস্যরাও জড়িয়ে পরছেন৷

গত শুক্রবার রাজশাহীর পবা উপজেলায় দুই স্কুল ছাত্রকে চুরির অপবাদ দিয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করা হয়৷ সেই নির্যাচনের ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে৷ সারাদেশের মানুষ আবারো স্তম্ভিত হয় শিশু নির্যাতনের এমন চিত্র দেখে৷ কিন্তু এর মাত্র পাঁচদিনের মধ্যে, অর্থাৎ বুধবার, ঘটে যায় আরো এক মর্মান্তিক ঘটনা৷ হবিগঞ্জে চারটি শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয় মাটির নীচ থেকে৷ প্রাথমিকভাবে জানা যায়, শত্রুতার জের ধরেই এই চার শিশুকে হত্যার পর তাদের লাশ বালু দিয়ে মাটির নীচে লুকিয়ে রাখা হয়৷

এ মাসের শুরুতে ঢাকার কেরানীগঞ্জের স্কুলছাত্র আবদুল্লাহকে অপহরণ করে হত্যা করে লাশ ঘরের ভেতরে লুকিয়ে রাখা হয়েছিল৷ গাজীপুরে অপহরণের পর হত্যা করা হয়েছিল সোলায়মান নামে আরো এক শিশুকে৷ তার কিছুদিন আগেই পাবনার ঈশ্বরদীতে দুই শিশুকে বিষ খাইয়ে আত্মহত্যা করেছিলেন মা৷ এর মধ্যে একটি শিশু মারা যায়৷ বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরামের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে সারা দেশে অন্তত ২৯টি শিশুকে হত্যা করা হয়েছে৷

অডিও শুনুন 02:36

‘পুলিশ, বিচার ব্যবস্থা, সামাজিক পরিস্থিতি – কোনোটাই শিশুর পক্ষে নয়’

এর আগেও গত বছরের ৮ জুলাই সিলেটের কুমারগাঁওয়ে চুরির অভিযোগ তুলে ১৩ বছরের শিশু রাজনকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়৷ সেই হত্যার ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়লে দেশব্যাপী তোলপাড় ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়৷ এরপর মাস না ঘুরতেই ৩ আগস্ট খুলনার টুটপাড়া কবরখানা মোড়ে এক ওয়ার্কশপে মোটর সাইকেলে হাওয়া দেওয়া কমপ্রেসার মেশিনের মাধ্যমে পায়ুপথে হাওয়া ঢুকিয়ে হত্যা করা হয় ১২ বছরের শিশু রাকিব হাওলাদারকে৷ ইতিমধ্যে অবশ্য এই দুই শিশু হত্যার ঘটনায় পৃথকভাবে ছ'জনকে মৃত্যুদণ্ড এবং ছ'জনকে যাবজ্জীবনসহ বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে৷

জানা যায়, গত চার বছরে দেশে ১ হাজার ৮৫টি শিশুকে হত্যা করা হয়েছে৷ পারিবারিক কলহ, সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ, ব্যক্তিগত লোভ অথবা স্বার্থ আদায়ের অস্ত্র হিসেবে শিশুদের ব্যবহার করা হয়েছে, হচ্ছে৷

বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরামের চেয়ারম্যান এমরানুল হক চৌধুরী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমাদের সমাজ একটি ট্রানজিশনাল পিরিয়ড পার করছে৷ কিন্তু মানবিকতা বা মানবতাবোধ উন্নত হচ্ছে না৷ শিশুরা দুর্বল বলে স্বার্থ আদায়ের জন্য তাদের নির্যাতন এবং হত্যা করা হচ্ছে৷ আমাদের মূল্যবোধের চরম অবক্ষয় ঘটেছে৷ আর এর সঙ্গে কাজ করছে বিচারহীনতা৷''

অডিও শুনুন 03:15

‘শিশুরা দুর্বল বলে স্বার্থ আদায়ের জন্য তাদের নির্যাতন এবং হত্যা করা হচ্ছে’

তিনি বলেন, ‘‘মানুষ এক ধরনের ‘কর্পোরেট কালচার'-এর প্রভাবে স্বার্থের জন্য যে কোনো কিছু করছে৷ শিশু হলো তাদের সহজ শিকার৷ কঠোরভাবে আইন প্রয়োগের মাধ্যমে এর পরিবর্তন আনতে হবে৷ পুলিশকে শিশুবান্ধব হতে হবে৷ শিশুবান্ধব হতে হবে সমাজ এবং সমাজের মানুষকে৷ তা না হলে পরিস্থিতির কোনো উন্নতি হবে না৷''

রাজশাহীর দুই স্কুল ছাত্রকে নির্যাতনের মামলায় আটকরা গ্রেপ্তারের একদিন পরই জামিনে ছাড়া পেয়ে যায়৷ পুলিশ দুর্বল ও ভুল ধারায় মামলা করার ফলেই এমনটা হয়৷ আর হবিগঞ্জের চার শিশু নিখোঁজ হওয়ার পর তাদের অভিভাবকরা থানায় অভিযোগ করলেও, পুলিশ নাকি কোনো আগ্রহ দেখায়নি৷ অবশেষে সেই চারজনের লাশই উদ্ধার করা হলো৷

ঢাকা বিশ্ববিদালয়ের আইন ও অপরাধ বিজ্ঞানের অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান কার্জন বলেন, ‘‘এ ঘটনা এটাই প্রমাণ করে যে, আমাদের মানসিকতাতেই শিশুদের প্রতি অবহেলার বীজ রয়েছে৷ পুলিশ, বিচার ব্যবস্থা, সামাজিক পরিস্থিতি – কোনোটাই শিশুর পক্ষে নয়৷ আইন আছে, কিন্তু তাতে কাজ হচ্ছে না৷ আমাদের মানসিকতায় আছে শিশুর প্রতি বেআইনি আচরণ৷''

তাঁর কথায়, ‘‘শিশুরা তাদের পরিবার এবং নিকটজনের কাছ থেকেই সবচেয়ে বেশি সহিংতার শিকার হয়৷ এমনটা হলে বাইরের লোকজন তাদের প্রতি কী আচরণ করবে? এটা শিশুদের প্রতি আমাদের সহিংস মানসিকতারই প্রমাণ৷''

শিশুর প্রতি সংসহিসতা রোধে আমাদের কী ভূমিকা থাকতে পারে? জানান নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়