1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ভারত, বাংলাদেশে কমছে গোচারণ ভূমি

আর্জেন্টিনার গাউচো-রা যেমন বিখ্যাত, তেমনি বিখ্যাত আর্জেন্টিনার বিফ, যা জার্মানির অফিস ক্যান্টিনগুলোতেও সার্ভ করা হয়ে থাকে৷ কিন্তু সেই বিফ-এর জন্য যে পরিমাণ পশুপালন দরকার, তা-তে কি পরিবেশের ক্ষতি হয় না?

দক্ষিণ এশীয় এলাকায় গোচারণ সংক্রান্ত পরিস্থিতি

একটু পুরনো পরিসংখ্যান বলছে, মঙ্গোলিয়ায় গোচারণভূমি জমির ৮০ শতাংশ, চীনে ৪৩ শতাংশ, এমনকি ইরানে ২৩ শতাংশ, কিন্তু এশিয়ার অধিকাংশ দেশে সাত শতাংশের কম৷ ভারতে ঐ পরিমাণ হলো চার শতাংশ, বাংলাদেশে আরো কম – কিন্তু নেপালে ১২ শতাংশ৷ ওদিকে এশিয়ায় পশুপালনের পরিমাণ খুব কম নয়; বিশেষ করে ভারত, চীন, পাকিস্তান, বাংলাদেশ বা ইন্দোনেশিয়ায় বেশিই বলা চলে৷ অথচ এই সব দেশে ‘কমিউনাল গ্রেজিং ল্যান্ড' বা গরু চরানোর সাধারণ জমি, ভারতে যাকে পঞ্চায়েতের জমি বা ‘গৌচর' বলা হয়ে থাকে – তা ক্রমেই কমে আসছে৷ একদিকে জবরদখল; অন্যদিকে সরকারি তরফে ভূমিহীন কৃষকদের মধ্যে বণ্টন; সেই সঙ্গে ক্রমেই আরো বেশিমাত্রায় গোচারণ৷ এর ফলে ধীরে ধীরে একটা সংকট সৃষ্টি হতে চলেছে৷

তা থেকে বাঁচার উপায়

‘রিহ্যাবিলিটেশন অফ ডিগ্রেডেড কমিউনাল গ্রেজিং ল্যান্ড' – অর্থাৎ সাধারণের জন্য গোচারণের জমির পুনর্বাসন নাম দিয়ে বিশ্বের নানা দেশে, নানা মহাদেশে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলেছে৷ আইব্রাউ পিট, অর্থাৎ ওপরের দিকে উঁচু, শক্ত ঘাস বসানো জল চোঁয়ানোর খাদ কেটে, কিংবা লাইভ ফেন্সিং, অর্থাৎ বিদ্যুৎ দেওয়া তারের বেড়া বসিয়ে, অনেক পন্থাতেই গরু চরানো নিয়ন্ত্রণ করার প্রচেষ্টা চলেছে৷ মূল লক্ষ্য হলো, গরু চরানোর ফলে প্রায় নেড়া মাঠে পরিণত হওয়া জমিতে আবার ঘাস, ঝোপঝাড় গজানোর ব্যবস্থা করা৷ মেইনটেন্যান্স খুব শক্ত নয়: ঝোপঝাড় মাঝেমধ্যে কেটে পানি যাওয়ার পথগুলো খোলা রাখা, সবই বর্ষা নামার আগে৷ তবে মানুষ আর সেই অনুপাতে পশুপালন বৃদ্ধি একটা সমস্যা থেকে যাচ্ছে৷ মনে রাখতে হবে, এ সব এলাকায় পশুপালন মানুষের জীবিকার একটা বড় অঙ্গ৷ ফলে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলিতে গৃহপালিত পশুদের সংখ্যা জনসংখ্যার সমান কি তার চেয়ে একটু বেশি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়