1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

ক্ষুদ্র চাষিদের বিনিয়োগকারী হিসাবে সহায়তা দেওয়া উচিত

সারা বিশ্বে এক বিলিয়নেরও বেশি চাষি রয়েছেন, যাঁরা আমাদের জন্য খাদ্যদ্রব্য উত্পাদন করে থাকেন৷ এঁদের মধ্যে আবার অধিকাংশই দরিদ্র ও উন্নয়নশীল দেশের ক্ষুদ্রচাষি৷ যাঁরা কোনো রকমে নিজেদের খাওয়া-পরাটা জোগাড় করতে পারেন৷

এই সব চাষিকে উন্নয়নশীল দেশের কৃষিক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বিনিয়োগকারী বলা যায়৷ জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা, এফএও বা ফাও হিসাব করে দেখেছে যে, উন্নয়নশীল দেশের একজন চাষি বছরে ১৫০ ডলার তাঁর কৃষিখেতে বিনিয়োগ করে থাকেন৷ অর্থাৎ সারা বিশ্বের ক্ষুদ্র চাষিরা সবমিলিয়ে বছরে ১৭০ বিলিয়নের ডলারের মতো বিনিয়োগ করেন তাঁদের কৃষি জমিতে৷ এই অর্থ সব রকমের জাতীয় উন্নয়ন কর্মসূচি ও গ্রামাঞ্চলের উন্নয়ন প্রকল্পের মোট বিনিয়োগের চেয়েও বেশি৷

বিনিয়োগকারী শুধু বড় প্রতিষ্ঠানগুলিই নয়

Landverpachtung an ausländische Investoren in Äthiopien

ক্ষুদ্র চাষিদের বিনিয়োগকারী হিসাবে সহায়তা দেওয়া উচিত

অনেকে বিনিয়োগকারী বলতে সরকার ও বড় বড় প্রতিষ্ঠানকে বোঝেন, বলেন জ্যাকব স্কোয়েট৷ বিশ্ব খাদ্য ও কৃষিসংস্থা, ফাও পরিচালিত ‘কৃষি অর্থনীতিতে বিনিয়োগ'-এর ওপর একটি সমীক্ষার পরিচালক তিনি৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘আমরা সংখ্যাগুলি বিশ্লেষণ করে বুঝতে পেরেছি যে, কৃষি অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ বিনিয়োগকারী হলেন চাষিরা৷''

এই সব ক্ষুদ্র চাষি চাষাবাদের ক্ষেত্রে নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন৷ তাঁদের কৃষিখেতের পরিমাণ ক্রমেই হ্রাস পাচ্ছে৷ বিদেশের বড় বড় বিনিয়োগকারীরা বিশেষ করে আফ্রিকার কৃষি জমির দিকে লোভের দৃষ্টি দিচ্ছেন, করছেন ভূমিগ্রাস৷ ক্ষুদ্র চাষিদের তাঁদের জমি থেকে উত্খাত করছেন৷ মালিক হিসাবে নাম নিবন্ধিত না থাকায় সেরকমভাবে প্রতিবাদও করতে পারছেন না চাষিরা৷ সরকার ও আঞ্চলিক কর্মকর্তারা বড়বড় বিনিয়োগকারীদের কাছে কৃষিজমি বিক্রি করে বা লিজ দিয়ে দিচ্ছেন৷ যুক্তি হিসাবে পল্লী এলাকায় কর্মসংস্থান, পরিকাঠামো ও প্রযুক্তির উন্নয়ন হবে বলে জানাচ্ছেন৷ কিন্তু লাইপলিশ ইন্সটিটিউট ফর গ্লোবাল অ্যান্ড রিজিওনাল স্টাডিজ বা গিগা ইন্সটিটিউট এই যুক্তিকে মেনে নিতে পারছে না৷ জার্মানির অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন সাহায্য মন্ত্রণালয়ের সহায়তায় ভূমিগ্রাসের ফলাফল নিয়ে একটি জরিপে অংশ নিচ্ছে এই প্রতিষ্ঠানটি৷ গিগা ইন্সটিটিউটের জান লে বলেন, ‘‘এই ব্যাপারে এখনও চূড়ান্তভাবে কিছু বলা যায় না৷ তবে আমরা লক্ষ্য করেছি, বড়বড় বিনিয়োগকারীরা জমি নিয়ে স্থানীয় ক্ষুদ্র চাষিদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন৷ এই প্রবণতা ক্ষুদ্র চাষিদের জন্য বিপদ ডেকে আনবে৷''

তেমন কোনো কর্মসংস্থান করা যায়নি

Porträt - Jakob Skoet

জ্যাকব স্কোয়েট

‘‘বড় বড় প্রতিষ্ঠানগুলি স্থানীয় পর্যায়ে চাকরি-বাকরি সৃষ্টি করার কথা বললেও এই আশা পূরণ হয়নি এখন পর্যন্ত৷ প্রযুক্তির প্রয়োগও সম্ভব হয়নি গ্রামাঞ্চলে৷ সেসব জায়গায় শুধু যে প্রযুক্তির ঘাটতিই রয়েছে তাই নয়, প্রযুক্তিকে কাজ লাগানোর মতো জ্ঞানেরও অভাব রয়েছে৷'' জোর দিয়ে বলেন জান লে ৷ তিনি আরো জানান, অনেক এলাকায় এখনও কয়েক'শ বছর আগের মতোই কৃষিকাজ চলে আসছে৷

বড় বিনিয়োগকারীরা স্থানীয় পরিকাঠামোর উন্নয়নের ব্যাপারে তেমন কোনো ভূমিকা রাখতে পারেননি৷ তাঁরা গ্রামাঞ্চলে মাঝে মাঝে বিনিয়োগ করলেও রাস্তাঘাট নেই এমন ধরনের প্রত্যন্ত অঞ্চলে খুব কমই তত্পর হয়েছেন৷
 

বিশ্ব খাদ্য ও কৃষিসংস্থার গবেষণা

বিশ্বের সাত বিলিয়ন মানুষের খাদ্যের নিশ্চয়তা দানে কৃষিঅর্থনীতির ভূমিকা নিয়ে ফাও একটি গবেষণা চালিয়েছে৷ এ সম্পর্কে ফাও-এর অর্থনীতিবিদ জ্যাকব স্কোয়েট বলেন, ‘‘আমাদের পর্যাপ্ত খাদ্যসংস্থান করতে হবে৷ বিশ্বব্যাপী খাদ্যদ্রব্যের সরবরাহ ব্যবস্থার উন্নয়ন করতে হবে৷ অনেক জায়গায় শুধু মাত্র ক্ষুদ্র চাষিদের সম্পৃক্ত করেই সম্ভব এটা৷''

পল্লী উন্নয়নকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে, যদি ক্ষুদ্র চাষিদের তাতে সরাসরি সম্পৃক্ত করা যায়৷ বিভিন্ন দেশের সরকারদের চিন্তা-ভাবনা করতে হবে, যাতে চাষিরা বিনিয়োগের সুযোগ পান, সহজে খাদ্যের বাজারে প্রবেশ করতে পারেন এবং উত্পাদন বাড়াতে পারেন৷

জার্মানির অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন মন্ত্রণালয় সহযোগী দেশগুলির সঙ্গে ক্ষুদ্র চাষিদের অবস্থার উন্নয়নে বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে৷ এই লক্ষ্যে একটি ‘টাস্ক ফোর্স' গঠন করা হয়েছে৷ যেটি খাদ্যের নিরাপত্তা ও পল্লী উন্নয়নের লক্ষ্যে সব রকম কাজকর্মের মধ্যে সমন্বয় রক্ষা করবে ও এগিয়ে যাবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন