1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

ভারতে কিডনি বেচাকেনার অবৈধ ব্যবসা

ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে কিডনি বেচাকেনার ব্যবসা চলছে৷ এর পেছনে আছে দালালদের এক সংগঠিত চক্র৷ প্রতিস্থাপনের জন্য কিডনির চাহিদা ও যোগানের মধ্যে বিস্তর ফারাকই এ ব্যবসা গজিয়ে ওঠার কারণ৷

default

কিডনি সার্জন ডাক্তার এসপি ত্রিবেদীকে একই অপরাধে আটক করে পুলিশ

প্রতিস্থাপনের জন্য ভারতে বছরে যেখানে দুই লাখেরও বেশি মানুষের নতুন কিডনির দরকার হয়, সেখানে পাওয়া যায় বড়জোর আট হাজারের মতো কিডনি৷ চাহিদা ও জোগানের মধ্যে ব্যবধান এত বেশি হওয়ায় কিডনি, লিভার হার্ট ও অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের লাভজনক অবৈধ ব্যবসা ফুলে-ফেঁপে উঠছে৷ চলছে লাখ লাখ টাকার খেলা৷ কিডনি অপারেশনে সাধারণত খরচ পড়ে গড়ে ১৫ থেকে ২৫ লাখ টাকা৷ কিডনি পাচারকারীরা প্রত্যন্ত গ্রামে গ্রামে গিয়ে অতি গরিব পরিবার এবং দিন আনে দিন খায় এমন ‘অশিক্ষিত' লোকদের টার্গট করে৷  তাঁদের নানাভাবে মগজ ধোলাই করে৷ বোঝায়, মানুষের দুটো কিডনির একটা দিলে তাঁর কোনো ক্ষতি হয় না৷ কয়েকদিনের মধ্যে সে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে আসতে পারবে৷ অপারেশন হবে শহরের বড় বড় সব হাসপাতালে৷ এজন্য সে পেয়ে যাবে একসঙ্গে তিন-চার লাখ টাকা৷ লোভ সামলাতে পারে না বেচারা গরিব পরিবার, রাজি হয়ে যায়৷

 কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য ২০-২৫ লাখ টাকা খরচ করার মতো দেশে অনেক রোগী আছে৷ এছাড়া ইউরোপ, অ্যামেরিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যের ধনী দেশগুলো থেকে আসেন অনেক শাঁসালো গ্রহীতা৷ এই তো গত বুধবার ভারতের দক্ষিণী রাজ্য তামিলনাড়ুতে জয়ললিতার এআইএডিএমকে দলের বিতর্কিত নেত্রী শশিকলার স্বামী নটরাজনের কিডনি ও লিভার প্রতিস্থাপন অপারেশন হয় চেন্নাই-এর এক বেসরকারি হাসপাতালে৷ অভিযোগ ওঠে, অন্য শহর থেকে এক ব্যক্তিকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে উড়িয়ে আনা হয় এবং হাসপাতালে তাঁকে ব্রেন-ডেড ঘোষণা করা হয়৷ তাঁর অঙ্গ কিভাবে দান করা হয় এবং কত টাকা খরচ করা হয়, দাতার পরিবারকে কত টাকা দেওয়া হয় এইসব বিষয়ে তদন্তের দাবি জানায় রাজ্যের বিজেপি সভাপতি৷ অভিযোগ ওঠে, অনেক বেসরকারি হাসপাতাল বাণিজ্যিকভাবে এটা করে৷ সরকারি হাসপাতালগুলিতে এই অঙ্গ প্রতিস্থাপন অপারেশন সাধারণত হয় না বললেই চলে৷ কেন ? কারণ, সেখানে ব্যবসাটা ঠিকমতো জমে না, তাই৷

প্রতিস্থাপনের জন্য কিডনি বা অঙ্গ পাচার রোধে কঠোর আইন রয়েছে ভারতে৷ সেই আইনের চোখে ধুলো দিতে তৈরি করা হয় ভুয়ো কাগজপত্র৷ যেমন জাল ভোটার পরিচয়পত্র, জন্মের তারিখ এবং স্কুলের সার্টিফিকেট, ব্যাঙ্কের পাসবুক ইত্যাদি৷ সেইসব জাল কাগজপত্র দেখিয়ে প্রমাণ করা হয় কিডনির দাতা ও গ্রহীতা পরস্পরের আত্মীয়-পরিজন৷ কারণ, নিকট আত্মীয় ছাড়া অঙ্গদান নিষিদ্ধ৷ আইন অনুসারে কেউ যদি স্বেচ্ছায় কিডনি দিতে চান শ্রদ্ধা বা ভালবাসার টানে বা দয়া পরবশ হয়ে, সেটা ব্যতিক্রম বলে ধরা হবে৷ কিন্তু তাতে টাকার প্রশ্ন থাকবে না৷ যেমন, এই কিছুদিন আগে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রী সুষমা স্বরাজের কিডনির সফল প্রতিস্থাপন হয়৷ কিডনি যিনি দেন, তিনি তাঁর পরিবারের কেউ নন৷ কিন্তু তাঁর শুভানুধ্যায়ী৷

গত বছর জুন মাসে পুলিশ তিনটি বড় কিডনি পাচার চক্রের হদিস পায়, গ্রেপ্তার করা হয় ১৩ জনকে৷ সবচেয়ে বিস্ময়কর এই পাচার চক্রের মূল পান্ডা ৬৫ বছর বয়সি একজন ডাক্তার, নাম অমিত কুমার৷ একের পর এক বহু লোকের কিডনি অপারেশন করেছেন তিনি নাম ভাঁড়িয়ে৷ এক শহর থেকে অন্য শহরে গিয়ে৷ মোটা টাকার বিনিময়ে৷ ধরা পড়লে সহজেই জামিন পেয়ে যান৷ ধীরে ধীরে জড়িয়ে পড়েন অবৈধ কিডনি অপারেশনে পাচার চক্রের সঙ্গে হাত মিলিয়ে৷ প্রথমে শুরু করেছিলেন মুম্বাইয়ে৷ তারপর দিল্লিতে৷ সেখান থেকে হরিয়ানা, রাজস্থান, গুজরাট, অন্ধ্রপ্রদেশ এবং মহারাষ্ট্রের অন্য অঞ্চলে৷

কিডনি প্রতিস্থাপনের চাহিদা এত বাড়ছে কেন?  নেফ্রোলজিস্টদের মতে, এর মূল কারণ ডায়বেটিস, মানসিক চাপ এবং লাইফ স্টাইল৷ মানুষের গড় আয়ু বাড়ছে৷  কম বয়সেই কিডনি আক্রান্ত হচ্ছে, অকেজো হয়ে পড়ছে৷ এখন কিডনি প্রতিস্থাপনের বেশির ভাগ ক্ষেত্রে গড় বয়স সাধারণত ৫০ বছরের নীচে, বললেন দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সের নেফ্রোলজিস্ট ড. সন্দীপ মহাজন৷ ভারতে প্রতি বছর দেড়-দু' লাখ মানুষ সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যায়৷ তাঁদের মধ্যে ৬৫ শতাংশ ব্রেন-ডেড৷ এইসব ক্ষেত্রে যদি তাঁদের দুটো কিডনি উদ্ধার করা যায়, তাহলে বহু লোকের প্রাণ বাঁচানো সম্ভব হতে পারে বলে মনে করেন তিনি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়