1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ভারতের মুসলিম মহিলারা ‘তিন তালাকের' অন্ত চান

তিনবার তালাক, তালাক, তালাক বলে মুহূর্তে বিয়ে ভেঙে দেওয়ার অধিকার আছে ভারতের মুসলিম পুরুষদের৷ তার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াচ্ছেন ভারতের মুসলিম মহিলারা৷

ভারতে তিন তালাক হাতে লিখেও দেওয়া যায়, এমনকি চিঠি বা মেসেজ পাঠিয়েও তালাক দেওয়া যায়৷ অথচ দুই প্রতিবেশি দেশ - মুসলিম অধ্যুষিত পাকিস্তান ও বাংলাদেশে, এছাড়া অপরাপর মুসলিম দেশে এভাবে তালাক দেওয়া নিষিদ্ধ৷

ভারতে মুসলিমদের সংখ্যা সাড়ে পনেরো কোটি৷ দেশের মুসলিম মহিলারা এবার তিন তালাকের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নেমেছেন৷ দু'জন তালাক প্রাপ্ত মুসলিম মহিলা বিষয়টিকে সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্ট অবধি নিয়ে গেছেন৷ তবে সুপ্রিম কোর্টের রায় দিয়ে এ সমস্যার সমাধান করা যাবে না, বলে ভারতীয় মুসলিম মহিলা আন্দোলন (বিএমএমএ)-এর যুগ্ম প্রতিষ্ঠাতা নুরজেহান সাফিয়া নিয়াজ-এর অভিমত৷ ডয়চে ভেলের সাক্ষাৎকারে তিনি তিন তালাক বর্জনের অভিযান সম্পর্কে বলেন৷

ডিডাব্লিউ: ভারতে এখনও তিন তালাক দেওয়া সম্ভব,যদিও তা নারীদের বুনিয়াদি মানবাধিকারের বিরোধী৷ ভারত কেন তা নিষিদ্ধ করেনি?

নুরজেহান সাফিয়া নিয়াজ: ভারতে মুসলিম পারিবারিক আইন এখনও লিপিবদ্ধ করা হয়নি৷ দেশের সব ধর্মীয় সম্প্রদায়ের তাদের নিজস্ব পারিবারিক আইন আছে৷ কিন্তু হিন্দুদের পারিবারিক আইন লিখিতভাবে লিপিবদ্ধ করে আইন প্রণয়ন করা হয়েছে, মুসলিমদের ক্ষেত্রে যা করা হয়নি৷ মুসলিমদের ক্ষেত্রে শুধু দু'টি ছোট আইন আছে৷ প্রথমটি প্রণয়ন করা হয় ১৯৩৯ সালে; দ্বিতীয়টি ১৯৮৬ সালে, যা'তে তালাক দেবার কারণ ও তালাকের পর খোরপোশ ইত্যাদি নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছে৷ কিন্তু বিবাহের ন্যূনতম বয়স, তালাকের পদ্ধতি, তালাকের পর সন্তানের অভিভাবকত্ব বা বহুবিবাহ সম্পর্কে কোনো স্পষ্ট নির্দেশ দেওয়া হয়নি৷

কোনো আইন না থাকার ফলে, মুসলিম সম্প্রদায় শরিয়া আইন সম্পর্কে তাদের নিজস্ব ধ্যানধারণা অনুসরণ করে থাকে৷ ভারতে যেভাবে শরিয়া আইন প্রয়োগ করা হয়, তা কোরানের বক্তব্যের সম্পূর্ণ বিপরীত৷ কোরানে যে তালাক-ই-আহসান-এর কথা বলা হয়েছে, তা'তে বিবাহবিচ্ছেদের আগে স্বামী-স্ত্রীর নির্দিষ্টকালের জন্য বিচ্ছিন্ন থাকার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে৷ কিন্তু ভারতের মুসলিম সমাজ তা মেনে চলে না৷

ভারতে প্রতিবছর কতোজন মুসলিম মহিলাকে এভাবে তালাক দেওয়া হয়?

আমাদের কাছে কোনো বিশদ পরিসংখ্যান নেই৷ তবে আমরা সারা দেশে প্রায় ৫,০০০ মহিলাকে নিয়ে একটি জরিপ করে দেখেছি যে, মুসলিমদের মধ্যে যতো বিবাহবিচ্ছেদ হয়, তার ৭৮ শতাংশই একতরফা৷ মুসলিম স্বামীরা চাইলেই এ ধরনের ডিভোর্স পান৷

মহিলারা কি তিন তালাক দিতে পারেন?

না, মহিলাদের এই তিন তালাক পদ্ধতি ব্যবহার করার অধিকার নেই৷ কোনো মুসলিম মহিলা বিবাহবিচ্ছেদ চাইলে, তাঁকে কাজি বা আদালত বা কোনো এনজিও-র কাছে যেতে হবে; তাঁকে বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন দাখিল করতে হবে৷ মুসলিম পুরুষদের সেসব করার কোনো প্রয়োজন পড়ে না, মৌখিকভাবে বললেই ডিভোর্স হয়ে যায়৷

ভিডিও দেখুন 03:32

এই প্রথা বন্ধের জন্য আপনাদের সংগঠন কী কর্মসূচি নিয়েছে?

আমরা মুসলিম পারিবারিক আইন ‘কোডিফাই' করার, অর্থাৎ আইন হিসেবে লিপিবদ্ধ করার জন্য আন্দোলন করছি৷ সেই পারিবারিক আইন হবে একাধারে কোরান ও নারীপুরুষের সমানাধিকারের উপর ভিত্তি করে৷... আমাদের সর্বাধুনিক অভিযানের অঙ্গ হিসেবে আমরা সরকারের সঙ্গে কথাবার্তা বলছি৷ জাতীয় মহিলা কমিশনের প্রতি আমাদের আবেদন হল, তারা যেন ব্যাপারটাকে তলিয়ে দেখেন ও নিষিদ্ধ করার ডাক দেন৷

মুসলিম সমাজের প্রতিক্রিয়া কী?

আমরা প্রচুর সমর্থন পেয়েছি, বিশেষ করে মহিলাদের কাছ থেকে৷ এমনকি একদল মুসলিম পুরুষ সম্প্রতি প্রকাশ্য বিবৃতি দিয়েছেন যে, তালাকের এই পদ্ধতি তুলে দেওয়া উচিৎ৷ কাজেই ধীরে ধীরে মুসলিম সমাজের একটা বড় অংশ মুখ খুলছেন ও এই প্রথার অন্ত ঘটানোর দাবি করছেন৷... এই প্রথার বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের অনেক রায় আছে, কিন্তু তা আইন নয়৷ কাজেই আমাদের ধারণা, রায় যথেষ্ট নয়; তিন তালাক নিষিদ্ধ করে আইন করা আবশ্যক৷

নুরজেহান সাফিয়া নিয়াজ ভারতীয় মুসলিম মহিলা আন্দোলন সংগঠনের যুগ্ম প্রতিষ্ঠাতা৷ সংগঠনটি মুসলিম নারীদের অধিকার রক্ষা ও অর্জনের জন্য সচেষ্ট৷

আপনি কি তিল তালাক বর্জনকে সমর্থন করেন? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়