1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

তিন তালাকের বিরুদ্ধে সরব ৯০ শতাংশ মুসলিম নারী

তিনবার তালাক উচ্চারণ করে বিবাহবিচ্ছেদের প্রথা নিষিদ্ধ করার দাবি তুলেছে ভারতের মুসলিম নারী সমাজ৷ বলেছে, এ প্রথা একতরফা ও বিবাহিতা মুসলিম মহিলাদের প্রতি অবিচার৷ এর প্রেক্ষিতে মুসলিম পার্সোনাল নিয়মবিধির সংস্কার জরুরি৷

ভারতের মুসলিম মহিলাদের এই প্রতিবাদী কণ্ঠ যেন মৌচাকে ঢিল মারার মতো৷ মৌখিক তিন তালাক প্রথা নিয়ে শুরু হয়েছে নতুন বিতর্ক৷ এ বিষয়ে শিয়া ও সুন্নিদের মধ্যেও মতভেদ আছে৷ সুন্নি প্রথা অনুযায়ী, প্রতিটি তালাক বলার মাঝে তিন মাসের ব্যবধান থাকা উচিত৷ ফলে এর মধ্যে মিটমাট করে নেবার একটা সুযোগ থাকে৷ নিখিল ভারত সুন্নি উলেমা পরিষদ মনে করে, একসঙ্গে তিনবার তালাক বলা হলেও সেটিকে একবার বলে ধরা যায় কিনা তা খতিয়ে দেখা দরকার৷ মুসলিম ল বোর্ডের মতে, কোরান ও হাদিসে একসঙ্গে তিনবার তালাক বলা অপরাধ৷ কিন্তু একসঙ্গে বলে ফেললে বিচ্ছেদ সম্পূর্ণ হয়ে যায়৷ এই ব্যবস্থা বদলানো সম্ভব নয়৷ শিয়াদের মধ্যে মৌখিক তালাকের সময় দু'জন করে সাক্ষী থাকার রেওয়াজ আছে৷

সম্প্রতি এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, ৯০ শতাংশেরও বেশি ভারতীয় মুসলিম মহিলা চান একতরফাভাবে তিনবার মৌখিক তালাকের মাধ্যমে বিবাহবিচ্ছেদের এই প্রথা বন্ধ হোক৷ বন্ধ হোক এক স্ত্রী থাকতে বহুবিবাহ প্রথা৷ এটা মুসলিম নারী সমাজের প্রতি অন্যায়, অবিচার৷ ৯৩ শতাংশ মুসলিম মহিলা দাবি জানিয়েছেন, তালাকের আগে সালিশি বা মধ্যস্থতা বাধ্যতামূলক করা হোক৷ মৌখিক তালাকের নোটিশ পাঠানোর জন্য ৮৯ শতাংশ মুসলিম মহিলা কাজি, উলেমা ও মৌলবিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও বলেছেন৷ ভারতীয় মুসলিম মহিলা আন্দোলন (বিএমএমএ) নামে মুম্বই-এর একটি স্বয়ংসেবী সংস্থা দু'বছর ধরে বেশির ভাগ গরিব ও পিছিয়ে পড়া মুসলিম মহিলাদের মধ্যে সমীক্ষা চালিয়ে দেখেছে, গরিব, পিছিয়ে পড়া মুসলিমদের তালাক দেবার প্রবণতা বেশি৷ বিচ্ছেদের পর ঐ সব মুসলিম মহিলার জীবনে নেমে আসে ভয়ংকর বিপর্যয়৷ সমীক্ষায় বলা হয়েছে, তালাক সংক্রান্ত বিবাদের ন্যায়বিচারের স্বার্থে শরিয়াত-ভিত্তিক মুসলিম পার্সোনাল ল বা মুসলিম পারিবারিক নিয়মবিধির সংহিতা বা সংকলন থাকা দরকার৷

Muslimische Wählerinnen in Indien 10.04.2014

তিনবার তালাক উচ্চারণ করে বিবাহবিচ্ছেদের প্রথা নিষিদ্ধ করার দাবি তুলেছে ভারতের মুসলিম নারী সমাজ

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, বিয়ের বয়স, তালাক, বহুবিবাহ, ভরণপোষণ এবং সন্তানদের হেফাজত ইত্যাদি প্রশ্নে কোরানের কাঠামোর মধ্যে তা নথিভুক্ত থাকা দরকার৷ ঐ এনজিও-র মুখপাত্র নূরজাহান সোফিয়া নিয়াজ এবং জাকিয়া সোমান মনে করেন, সমীক্ষায় দেখা গেছে, ভারতীয় মুসলিম নারী সমাজ নিজেরাই নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরতে চান, অন্যরা নয়৷ দীর্ঘদিন ধরে মুসলিম মহিলাদের হয়ে অনেকেই অনেক কথা বলে আসছেন, যেটা ওদের মনপুত নয়৷ ওরা চান মুসলিম পার্সোনাল আইনের ব্যাপক সংস্কার৷ কেন্দ্রীয় সংখ্যালঘু মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী মুখতার আব্বাস নাখভি মনে করেন, সংখ্যালঘু ধনী পরিবারগুলি শরিয়ত আইন খুব একটা মেনে চলেন বলে মনে হয় না৷ শিক্ষার আলোই একমাত্র সচেতনতা আনতে পারে৷ মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ড মৌখিক তিন তালাক নিয়ম বজায় রাখার কথা বললেও, সেটিই শেষ কথা নয়৷ এক্ষেত্রে সরকারের কোনো ভূমিকা নেই, মনে করেন তিনি৷ ঐ এনজিও-র মতে, ধর্মীয় স্বাধীনতার নামে নারীর অধিকারকে আস্তাকুঁড়ে ফেলে দেয়া যায় না৷ তাই বিষয়টি তারা পেশ করবেন সরকার, আইন কমিশন এবং জাতীয় মহিলা কমিশনের কাছে৷ নিখিল ভারত মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ডের মুখপাত্র মৌলানা ইয়াকুব আব্বাসের মতে, উলেমাদের উচিত একসঙ্গে বসে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন