1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

বঙ্গোপসাগরের আচরণ পরীক্ষা করবে রোবোট

দক্ষিণ এশিয়ার মৌসুমী আবহাওয়ার পূর্বাভাস জানতে ব্রিটিশ বিজ্ঞানীরা অভিনব এক উদ্যোগ নিয়েছেন৷ বঙ্গোপসাগরে একটি রোবোট ছাড়ার পরিকল্পনা করছেন তাঁরা, যার মাধ্যমে জানা যাবে কীভাবে সাগরের পরিস্থিতি বৃষ্টির ধরণে প্রভাব ফেলছে৷

সাধারণত জুন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে বৃষ্টিপাত হয়ে থাকে৷ বছরের ৭০ ভাগ বৃষ্টিপাতই হয় এই সময়টাতে৷ গ্রীষ্মকালে বাংলাদেশ ও ভারতের কোটি কৃষক অপেক্ষায় থাকে কখন হবে বৃষ্টিপাত আর কখন জমির ফসল পানি পাবে৷ কেননা বৃষ্টির অভাবে দেখা দিতে পারে খরা, নষ্ট হতে পারে ক্ষেতের ফসল৷

বৃষ্টিপাত কখন হবে গত কয়েক বছরে এর পূর্বাভাস দেয়া বেশ কঠিন হয়ে উঠেছে এ সব অঞ্চলে৷ কেননা বৈশ্বিক আবহাওয়া এবং সাগরের আচরণ জটিল হয়ে ওঠায় এ ব্যাপারে পূর্বানুমান বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সঠিক হচ্ছে না৷ বিজ্ঞানীরা বলছেন, এর প্রধান কারণ জলবায়ু পরিবর্তন এবং বায়ুদূষণ বৃদ্ধি৷

ইস্ট অ্যাঙ্গোলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞানের অধ্যাপক এবং প্রধান গবেষক আদ্রিয়ান ম্যাথুস বলেছেন, সাগরের আচরণ সঠিকভাবে বোঝার লক্ষ্যেই তাঁরা এ প্রকল্প নিয়েছেন৷ তবে এর প্রধান লক্ষ্য ভারতীয় উপমহাদেশে বৃষ্টির সঠিক পূর্বাভাস দেয়া৷

এই প্রকল্পে খরচ হচ্ছে ১ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার৷ বিজ্ঞানীরা আগামী একমাস ধরে বঙ্গোপসাগরে এ পরীক্ষা চালাবেন৷ সে লক্ষ্যে সাতটি রোবট সমুদ্রে ছাড়বেন তারা৷ যে রোবটগুলো সমুদ্রগর্ভে যেতে সক্ষম৷ টর্পেডো আকৃতির রোবোটগুলোতে পানির মধ্যে পরিচালনা করা হবে জাহাজ থেকে৷ তারা সমুদ্রের পানির লবণাক্ততা, তাপমাত্রা আর স্রোতের সঠিক পরিমাপ জানাবে৷ ভারত সরকারের সহায়তায় ইউনিভার্সিটি অফ রিডিং এর বিজ্ঞানীরা যৌথভাবে এই পরীক্ষা চালাচ্ছে৷

রোবটগুলো থেকে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে বিজ্ঞানীরা বর্ষায় সাগরের পরিস্থিতি ভালো বুঝতে পারবেন বলে আশা করছেন৷ এ বছর ভারতীয় উপমহাদেশে বর্ষা এসেছেন ৮ জুন, সাধারণত এর এক সপ্তাহ আগেই বৃষ্টি শুরু হওয়ার কথা৷ ভারতের মধ্য, পূর্ব ও উত্তরাঞ্চলে এবার ব্যাপক খরা হওয়ায় ভারত সরকার এ গবেষণার ব্যাপারে ব্যাপক আগ্রহী৷

এপিবি/ডিজি (এপি, এএফপি, ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন