1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ইউরোপ

ফ্রান্সেও চরম দক্ষিণপন্থিরা কোণঠাসা?

ডাচ ভোটাররা তাদের ফিরিয়ে দিয়েছেন, কিন্তু ফরাসি ভোটাররাও কি সেই কাজ করতে পারবেন? ফ্রান্সের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে চরম দক্ষিণপন্থি নেত্রী প্রথম টেলিভিশন বিতর্কে কোণঠাসা হলেন৷

নেদারল্যান্ডস, ফ্রান্স, জার্মানি – ইউরোপের তিনটি দেশে এ বছরের নির্বাচন বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে৷ কোন দল বা প্রার্থীর জয় হলো, সেটা বড় বিষয় নয় – বরং চরম দক্ষিণপন্থি, ‘পপুলিস্ট' শিবির কতটা জনসমর্থন আদায় করতে পারে, সে দিকেই সবার নজর৷ ব্রেক্সিট ও ট্রাম্পের নির্বাচনের পর নেদারল্যান্ডস-এর ভোটাররা খেয়ার্ট ভিল্ডার্সের জয় থামাতে পেরেছেন

এবার ফ্রান্সের পালা৷ জাতীয় ফ্রন্ট-এর নেত্রী মারিন ল্য পেন যাতে আগামী প্রেসিডেন্ট না হতে পারেন, বাকি প্রার্থীরা সেই চেষ্টাই করছেন৷ সোমবার সন্ধ্যায় প্রার্থীদের প্রথম টেলিভিশন বিতর্কে তারই লক্ষণ দেখা গেল৷ জনমত সমীক্ষা অনুযায়ী প্রায় ৪০ শতাংশ ভোটার এখনো মনস্থির করতে পারেননি৷ তাই তাদের মন জয় করার চেষ্টা চালাচ্ছেন প্রার্থীরা৷

মারিন ল্য পেনের বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় আশা এমানুয়েল মাক্রোঁ৷ অথচ তিনি দুই বড় দলের প্রার্থীই নন৷ সমাজতান্ত্রিক দলের বর্তমান প্রেসিডেন্ট ফ্রঁসোয়া ওলঁদের প্রশাসনে তিনি অর্থনীতি বিষয়ক মন্ত্রী হিসেবে কাজ করেছেন বটে, কিন্তু এর আগে সরাসরি ভোটে দাঁড়াননি৷ তিনি প্রতিষ্ঠিত রাজনৈতিক দলগুলির ব্যর্থতার নজির তুলে দেশের বর্তমান সমস্যাগুলির সমাধানে নতুন দাওয়াই প্রয়োগ করতে চান৷ প্রতিদ্বন্দ্বী ল্য পেন-এর ইসলাম ও ইউরোপ-বিদ্বেষের তুমুল সমালোচনা করেন মাক্রোঁ৷ ল্য পেন-এর অভিযোগ, মাক্রোঁ বিভিন্ন বিষয়ে নানা মন্তব্য করলেও কোনো বিষয়ে স্পষ্ট সিদ্ধান্তের কথা বলেন না৷

দেশের দুই প্রধান দলের প্রার্থীদের অবস্থা বড়ই করুণ৷ রক্ষণশীল দলের প্রার্থী ও প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ফ্রঁসোয়া ফিয়ঁ দুর্নীতি ও স্বজনপোষণের অভিযোগে জর্জরিত৷ তাঁর বিরুদ্ধে তদন্তও চলছে৷ অন্যদিকে সমাজতান্ত্রিক দলের প্রার্থী বেনোয়া আমঁ বড়ই দুর্বল অবস্থানে রয়েছেন৷ সোমবারের বিতর্কের পর জনমত সমীক্ষায় তালিকার শেষে স্থান পেয়েছেন৷ তবে বামপন্থি প্রার্থী জঁ-লুক মেলাঁশঁ দ্বিতীয় স্থান দখল করে ফিয়ঁ ও ল্য পেনকে যৌথভাবে তৃতীয় স্থানে ঠেলে দিয়েছেন৷

আগামী ২৩ এপ্রিল ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রথম পর্যায়ে সব প্রার্থীরা আসরে নামবেন৷ তার দু'সপ্তাহ পর তালিকার শীর্ষের দুই প্রার্থীর মধ্যে সরাসরি লড়াই হবে দ্বিতীয় পর্যায়ের ভোটে৷ 

এসবি/ডিজি (রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়