1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

নেতা হারাল আইএস, হামলার এলাকা বাড়ছে?

তথাকথিত জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস-এর নেতা ওমর শিশানির মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে আমাক নিউজ৷ তবে শিশানির মৃত্যুর খবর প্রকাশিত হওয়ার দিনেই আইএস-এর হামলা পরিকল্পনায় দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোও গুরুত্ব পাচ্ছে বলে জানিয়েছে এপি৷

গত মার্চে মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগন জানিয়েছিল, সিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলায় মারা গেছেন শিশানি৷ আইএস-এর পক্ষ থেকে তখন কিছু জানানো হয়নি৷ প্রায় চার মাস পর তথাকথিত জঙ্গি সংগঠন আইএস-এর মুখপাত্র আমাক নিউজ জানাল, শিশানি ইরাকের যুদ্ধক্ষেত্রে নিহত হয়েছেন৷

এদিকে বার্তা সংস্থা এপি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, সাম্প্রতিক সময়ে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশ মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া এবং ফিলিপাইন্সেও তৎপরতা বাড়াতে শুরু করেছে আইএস৷ জঙ্গি সংগঠনটির নেতা আবু বাকার আল বাগদাদি কয়েকদিন আগেই বলেছেন, ইসলামি খেলাফত দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া পর্যন্ত বিস্তৃত করার উদ্যোগ নেয়া হবে৷ এপি'র প্রতিবেদনে বলা হয়, সাম্প্রতিক সময়ে মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া এবং ফিলিপাইন্সের দক্ষিণাঞ্চলে যে ছোটখাটো হামলা হয়েছে, সেগুলো বাগদাদির সেই ঘোষণা বাস্তবায়নেরই প্রাথমিক প্রয়াস৷

সাম্প্রতিক সময়ে মালয়েশিয়া এবং ইন্দোনেশিয়ায় কয়েকটি হামলা কিংবা হামলার চেষ্টা হয়েছে৷ গত জুনে মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরের একটি বারের বাইরে গ্রেনেড হামলা চালানো হয়৷ হামলায় আট জন আহত হয়৷ মালয়েশিয়ার পুলিশ জানিয়েছে, হামলাটি আইএস-ই চালিয়েছিল৷

গত সপ্তাহে ইন্দোনেশিয়াও বড় ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকে বেঁচেছে৷ সোলো শহরে পুলিশকে লক্ষ্য করে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল এক আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী৷ আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী মারা গেলেও সেই হামলায় কোনো পুলিশের প্রাণ যায়নি৷

ফিলিপাইন্সের মুসলিম অধ্যুষিত দক্ষিণাঞ্চলেও তৎপর হয়ে উঠছে আইএস৷ এক সময় দেশটিতে আল-কায়েদা সক্রিয় ছিল৷ ২০০২ সালের বালি বোমা হামলাসহ বেশ কয়েকটি হামলায় জড়িত ছিল তারা৷ অনেক নেতা, সমর্থক কারাবন্দি হওয়ায় আল-কায়েদা এখন প্রায় নিষ্ক্রিয়৷ এই সুযোগে সেখানে প্রভাব বাড়াতে চাইছে আইএস৷

Infografik Karte IS Terroranschläge weltweitet Englisch

আইএস-এর তৎপরতা আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পেতে পারে

বিশ্লেষকরা বলছেন, সাম্প্রতিক সময়ে যুক্তরাষ্ট্র, তুরস্ক ও বাংলাদেশে বড় ধরনের সন্ত্রাসী হামলার কারণে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া অঞ্চলে চালানো আইএস-এর হামলাগুলো আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে গুরুত্ব পায়নি৷ হামলায় ক্ষয়ক্ষতি কম হয়েছে বলেও খবরগুলো সবার নজর এড়িয়েছে৷ তবে ভবিষ্যতে এ অঞ্চলে আইএস-এর তৎপরতা আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পেতে পারে বলে মনে করেন তাঁরা৷

এসিবি/এসবি (এএফপি, এপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন