1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

নাম মনে রাখা মোটেই কঠিন নয়

অন্যের প্রখর স্মৃতিশক্তির পরিচয় পেলে মনে ঈর্ষা জাগতে পারে৷ কিন্তু বিশেষজ্ঞদের মতে, শুধু অনুশীলনের মাধ্যমে যে কেউ ভালো স্মৃতিশক্তির অধিকারী হতে পারে৷ বিচ্ছিন্ন তথ্যের সঙ্গে মনের মধ্যে শুধু একটা ছবি গেঁথে ফেললেই হলো৷

কিছুকাল আগে বরিস কনরাড নতুন বিশ্বরেকর্ড করেছেন৷ মাত্র ১৫ মিনিটে তিনি ২০১টি নাম মুখস্থ করেছিলেন৷

স্মৃতিশক্তি উন্নতির সেরা উপায় জানতে জার্মানির মস্তিষ্ক বিজ্ঞানী বরিস কনরাড-এর মতো বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হতে হয়৷ তিনি বলেন, ‘‘ছবির উপর ভিত্তি করে নাম মনে রাখা যায়৷ প্রত্যেক নামের জন্য আমার মনে মানানসই ছবি রয়েছে৷ নাম টোমাস হলে টমেটোর কথা ভাবতে পারেন৷ মনে মানুষটার সঙ্গে টমেটোর ছবি গেঁথে রাখতে পারেন৷ যেমন ভেবে নিন, টোমাস কীভাবে টমেটোয় কামড় দিচ্ছে৷''

কিছু নাম অবশ্য মেমারি ট্রেনারদের পক্ষেও মনে রাখা কঠিন, বিশেষ করে বিদেশি নাম হলে৷ তবে বরিস মনে করেন, ‘‘কঠিন নামের ক্ষেত্রেও একই কায়দা কাজে লাগাতে হয়৷ হয়ত একটার বদলে একাধিক ছবি লাগতে পারে৷ গোটা নামের বদলে এক একটা সিলেবল-এর জন্যও আলাদা ছবি ভাবা যেতে পারে৷ সেগুলির সঙ্গে কোনো চেনা শব্দের মিল থাকলেই যথেষ্ট৷ আসলে নাম খুঁজে পেতে ছবি সাইনবোর্ডের মতো কাজ করে৷''

পরীক্ষা আরও কঠিন করে তুলতে স্বেচ্ছাসেবিরা নিজেদের জায়গাও পরিবর্তন করেন৷ কিন্তু কনরাড তাতে মোটেই দমে যাননি৷ ছবি ও সিলেবল সাজিয়ে তিনি ঠিকই নামগুলি মনে রেখেছিলেন৷ তিনি বলেন, ‘‘স্মৃতিভাণ্ডারের ক্ষমতার সীমা কী, তা বলা অসম্ভব৷ কম্পিউটারের হার্ড ডিস্কের মতো কাজ করে না, যাতে হয়ত ৬ টেরাবাইট জায়গা রয়েছে৷ এক না এক দিন ভরে যাবে৷ অন্যদিকে মস্তিষ্কে তথ্য সংহত রাখা হয়৷''

ডেটা গ্লাস-এর মতো ডিভাইস ব্যবহার করে স্মৃতিশক্তির ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলা যায় কিনা, স্নায়ুবিজ্ঞানী হিসেবে কনরাড এবার সেই প্রশ্ন তুলছেন৷ আসল ওয়ে-স্টেশনের সঙ্গে ভার্চুয়াল ছবি জুড়ে আরও সহজে তথ্য মনে রাখা যায়৷ সেভাবে ডেটা গ্লাস দিয়ে সরাসরি শিক্ষা গ্রহণ করা যেতে পারে৷ এটা একটা অসাধারণ চ্যালেঞ্জ৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক