1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

জাহাজ ভাঙা শিল্পের জন্য অশনিসংকেত

চীনের সস্তায় স্টিল বিক্রি এবং পরিবেশ সংরক্ষণে ইইউ-র উদ্যোগ দক্ষিণ এশিয়ার জাহাজ ভাঙা শিল্পে বিপর্যয় ডেকে এনেছে৷ ভারত, বাংলাদেশ আর পাকিস্তানের ব্যবসায়ীরা অন্য ব্যবসার দিকে ঝুঁকছেন৷ তাঁদের আশঙ্কা, এই শিল্পের দিন প্রায় শেষ৷

বিশ্বের সবচেয়ে বড় শিপ রিসাইক্লিং সেন্টারটি ভারতের আলাং-এ৷ গুজরাট রাজ্যের সেই এলাকায় ভারত মহাসাগরের ১১ কিলোমিটার সৈকত জুড়ে কয়েক মাস আগেও পুরনো জাহাজের নানা ধরনের পণ্যের জমজমাট ব্যবসা ছিল৷ থালা-বাসন, আসবাবপত্র, কম্পিউটার – কোনো কিছুর ব্যবসাই আর আগের মতো চলছে না৷ আলাং-এ প্রায় ৬০ হাজার মানুষ জীবিকা নির্বাহ করত জাহাজ ভাঙা শিল্পকে ঘিরে৷ তাঁদের অনেকেই এখন বেকার৷ ট্রাকটার চালক মুন্না বললেন, ‘‘আগে কোনো কোনো দিন ৫, ৬, এমনকি ৭টা ট্রিপও পেতাম৷ এখন দিনে দু-একটা ট্রিপ পেতেও কষ্ট হয়৷''

গত দু'বছরে ভারত, বাংলাদেশ এবং পাকিস্তানের প্রায় অর্ধেক জাহাজ ভাঙা কারখানা বন্ধ হয়ে গেছে৷ চীন খুব কম দামে স্টিল বিক্রি শুরু করেছে৷ বিশেষজ্ঞদের মতে, এরই বিরূপ প্রভাব পড়ছে দক্ষিণ এশিয়ার জাহাজ ভাঙা শিল্পে৷ ভারতের সাগর লক্ষ্মী শিপ ব্রেকার্স-এর মালিক অমিত বি. পাডিয়াও তা-ই বললেন৷ জাহাজ থেকে পাওয়া ২৫ হাজার টন স্টিল আট মাস আগেও যে দামে বিক্রি করা যেত, চীন সস্তায় বিক্রি শুরু করায় সেই স্টিল এখন মাত্র ৩৬ লাখ ডলারে ছেড়ে দিতে হচ্ছে৷

আলাং-এর কালথিয়া শিপ ব্রেকিং প্রাইভেট লিমিটেডের মালিক চেতন কালথিয়া কয়েকদিন আগেই জাপানের বড় একটা জাহাজ কিনেছেন৷ তাতে আনন্দিত তিনি৷ তবে তিনিও জানেন, এমন আনন্দ বেশি দিনের নয়৷ চেতন বললেন, ‘‘এটাই আমার শেষ জাহাজ৷ এই শিল্প শেষ হয়ে যাচ্ছে৷''

আলাং-এ বিশ্বের সবচেয়ে বড় শিপ রিসাইক্লিং সেন্টারে পুরোনো জাহাজ কেনা-বেচা অনেক কমেছে৷ ২০১৪ সালে যেখানে একশ'টিরও বেশি জাহাজ বিক্রি হয়েছিল, সেখানে এ বছরের প্রথম সাত মাসে বিক্রি হয়েছে মাত্র ৫০টি জাহাজ৷

বাংলাদেশ আর পাকিস্তানেও জাহাজ ভাঙা শিল্পের খুব খারাপ অবস্থা৷ বাংলাদেশের পরিস্থিতি বোঝাতে গিয়ে চট্টগ্রামের পিএইচপি শিপ ব্রেকিং অ্যান্ড রিসাইক্লিং ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড-এর পরিচালক জহিরুল ইসলাম বললেন, ‘‘তিন বছর আগে যেখানে মোট ৮০টি ইয়ার্ড ছিল, এখন সেখানে মাত্র ২৫টি ইয়ার্ড আছে৷ আমার মনে হয়, এই শিল্প বড়জোর ১০-১৫ বছর টিকবে৷''

ইউরোপীয় ইউনিয়ন চায় পরিবেশের ক্ষতি হবে না – এমন স্থানেই শুধু জাহাজ ভাঙা শিল্প থাকবে৷ চীনের কম দামে স্টিল বিক্রির পাশাপাশি এ বিষয়টিও দক্ষিণ এশিয়ার জন্য শঙ্কা হয়ে দেখা দিয়েছে৷ এ বছরের মধ্যেই জাহাজ ভাঙা শিল্পের স্থান নির্ধারণের বিষয়ে নিয়ম চূড়ান্ত করবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন৷ চীন এবং তুরস্কের মতো দেশের পক্ষে এ শর্ত মেনে ব্যবসা করা সম্ভব৷ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর পক্ষে তা শুধু কঠিন নয়, প্রায় অসম্ভব৷

এসিবি/ডিজি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন