1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ব্লগ

জার্মানিতেও জল জমে, গ্রামগঞ্জ বানে ভাসে

মধ্য ইউরোপের ভৌগোলিক বিশেষত্বগুলো আমাদের উপমহাদেশ থেকে আলাদা৷ এদেশে বনানীর পরিমাণ বেশি৷ এসব সত্ত্বেও প্রকৃতির রোষে পড়ে মানুষ৷ তবে সেই রোষ সামলানোয় এরা আমাদের চেয়ে দড়৷

জলাবদ্ধতা বলতে যদি বর্ষায় রাস্তাঘাটে জল জমে গাড়ির বনেট ডুবে যাওয়ার মতো অবস্থা বোঝায়, তাহলে তা জার্মানিতে বেশি ঘটে না৷ তার প্রথম ও প্রধান কারণ এ দেশের সমৃদ্ধি৷ শহর তৈরি করার আগে ও পরে এরা সেই শহরের পয়ঃপ্রণালী থেকে শুরু করে, পানি নিষ্কাশন ও ময়লা পানি পরিশোধনের দিকে নজর রাখে৷ আগে থেকে পরিকল্পনা করে৷ তারপর সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী পূর্ত বিভাগ তৎপর হয়, নির্মাণকার্য চলে৷ বর্ষা হলে রাস্তায় যে জল জমবেই, সেটাই যে বিধাতার নির্দেশ, এটা মেনে নিতে এ দেশের মানুষের দ্বিধা আছে এবং ছিল চিরকাল৷

ভারি বর্ষা এদেশেও হয়৷ ঠিক আমাদের দেশের মতো না হলেও, ছোট্ট মহাদেশ ইউরোপের উত্তর ও পশ্চিম থেকে ঋতু অনুযায়ী ঝড়বাদল এসে হানা দেয়, অকারণে প্রবল বৃষ্টি হয়৷ এদের মাপজোক করে তৈরি করা পানি নিষ্কাশন প্রণালীর মুখে ছাই দিয়ে সেই ঘণ্টা খানেক, ঘণ্টা দেড়েকের বৃষ্টিতেই দেখেছি, বাড গোডেসবার্গের কাছে রেললাইনের নীচে গাড়ি যাবার টানেল জলে ভরে গেছে – সে আবার গাড়ি-ডোবা জল! গাড়ি ব্যাক করে কোনোমতে লোকজন পালানোর পথ খুঁজছে৷ অথচ সে যা বৃষ্টি, তাতে কলকাতায় আমাদের গর্চা রোডের পিচ ঢাকত কিনা সন্দেহ৷ সভ্য দেশে কেন এমন হয়?

পরে বুঝলাম, সভ্য দেশ বলেই হয়৷ এসব দেশে সব কিছু হয়, হিসেব করে হয় – মানে হওয়া উচিত৷ কিন্তু বৃষ্টিবাদলকে তো আর কেউ সভ্য-অসভ্য শিখিয়ে দেয়নি, ‘ছি বাবা, বন শহর, হাজার হোক জার্মানির সাবেক রাজধানী, এখানে অমন তুমুল বৃষ্টি করলে চলে? অত জল যাবে কোথায়?' ‘কেন, রাইন নদে...৷' ‘রাইনও তো পানিতে ভরে আছে, সুইজারল্যান্ডে বরফ গলেছে কিনা৷ তায় আবার ঊনবিংশ শতকে রাইনের ধারগুলো কেটে সোজা করে দেওয়া হয়েছিল, নয়ত তোমার রাইনও তো ছিল আমাদের ছোট নদী চলে এঁকে-বেঁকে, তার মতন৷'

‘তারপর?' ‘রাইনে বন্যার জল এলে অতীতে তার পাশে যেসব ফাঁকা মাঠ বা জলাভূমি আছে, সেগুলো সেই জল ধরে রাখতো৷ পরে বাড়ি, বাগান, হাওয়া খাবার স্ট্র্যান্ড ইত্যাদি বানিয়ে রাইনের কাছ থেকে তার সেই রাইনাউয়ে বা রাইনের চর কেড়ে নেওয়া হয়েছে৷ তাই রাইনের জল এখন সাঁ সাঁ করে বন-কোলন-ড্যুসেলডর্ফে পৌঁছে যায়; যেখানে পারে পাথরের দেয়াল টপকে বিশেষ করে শহরে পুরনো অংশগুলোকে ডুবিয়ে দেয়, বাড়িঘরে জল ঢোকে, লোকজন জেরবার হয়৷' ‘কিন্তু তা বলে রাস্তায় জল জমবে?'

 

‘আহা-হা, রোজ কি জমে? বললাম না, মিউনিসিপালিটির হিসেবে নেই, এমনধারা বৃষ্টি হলে, তবেই জমে৷ যখন রাস্তার ম্যানহোলের ভেতর থেকে জল বেরোতে শুরু করে আর কি! ও হ্যাঁ, শুধু বৃষ্টিবাদলাই নয়, মাঝেমধ্যে মাটির নীচে জলের পাইপ ফেটে রাস্তা ভেসে যায়৷ ভেসে যায় মানে ধরো হাঁটুজল – তাতেই কিন্তু এদেশে উর্দি পরা দমকলের লোক এসে রাবারের ডিঙিতে করে বুড়োবুড়িদের শুকনো ডাঙায় নিয়ে যায়৷'

‘ঠাট্টা করছ?'

‘আমার ঘাড়ে ক'টা মাথা! তবে একবার গাড়িতে ইটালি থেকে সুইজারল্যান্ড হয়ে জার্মানিতে ফেরার সময় দেখেছিলাম – দু'পাশের পাহাড় থেকে একটির পর একটি জলধারা নামছে, ঠিক যেন জলপ্রপ্রাতের মতো! সে কি জল, যেন অটোবান – মানে মোটরওয়ে ভাসিয়ে নিয়ে যাবে৷ ঐ জলই তো আস্ত জার্মানি বেয়ে ধেয়ে আসে বন শহরের দিকে৷ ওদিকে দেড় শতাব্দী ধরে নদী দখল চলেছে, রাইনের আর কোথাও যাবার জায়গা নেই৷ তাই সাঁওতাল বিদ্রোহের মতো রাইন তার ঘোলা জল নিয়ে ঢুকে পড়ে তার আগের সেই উন্মুক্ত চারণভূমিতে৷ বেচারা বন শহরের কথা ভাবো: দু'পাশে পাহাড়, মাঝখানে ভরভর্তি রাইন, তার ওপর আবার বৃষ্টি৷ তা বানভাসি হওয়ার চেয়ে পানিবন্দী হওয়াই ভালো, নয় কি?'

অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

অরুণ শঙ্কর চৌধুরী, ডয়চে ভেলে

‘আর দুরমুশের কথা কী বলছিলে?'

‘জার্মানিকে দেখলে আমার চিরকাল মনে হয়, বড় ঘরের ভালো ছেলে: মা যেন গাল টিপে, মাথা আঁচড়ে, পরিপাটি করে সাজিয়ে রেখেছে৷ এখানকার বনভূমি পর্যন্ত সাইজ করে৷ মুশকিল এই যে, সেই বনভূমিতে সব কাজ হয় ভারী ভারী ট্রাক্টর দিয়ে৷ সেই সব ট্রাক্টরের চাপে বনের মাটি যেন দুরমুশ দিয়ে পিটে শক্ত হয়ে যায়, পানি যেতে পারে না৷ তাই বৃষ্টির জল পাহাড়ের ঢালের বন বনানী থেকে সর সর করে নেমে আসে নীচে শহর আর নদীর দিকে৷ ওদিকে শহর জুড়ে শুধু বাড়ি আর রাস্তা তৈরি হচ্ছে, সেখানেও পানি যাবার পথ নেই৷ জার্মানির ১২ শতাংশ জমি শহর, তার আবার অর্ধেক এইভাবে ‘সিলড', অর্থাৎ সিল করে বুজিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ ওদিকে শহুরে বসতি বাড়ছে দিনে ১৩০ হেক্টার করে৷'

‘তাহলে উপায়?'

‘চলো রাইনের ওপর খানিকটে নৌকোবিহার করে আসা যাক৷'

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়