1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

‘ঘেন্নার বিজ্ঞান’ ও ‘ঘেন্নার বিশেষজ্ঞ’

লন্ডন স্কুল অফ হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিকাল মেডিসিনের এক পরিচালক ভ্যালেরি কার্টিস নিজেই নিজেকে বলেন ‘ডিসগাস্টোলজিস্ট’৷ নোংরায় গা ঘিন ঘিন করাই হল তাঁর গবেষণার বিষয়৷ গবেষণার কাজে বাংলাদেশেও গিয়েছেন৷

default

ফাইল ফটো

ভ্যালেরি কার্টিস বমি, পুঁজ, প্রস্রাব, পচন, এ সবের ব্যাপারে আগ্রহী৷ এটা তাঁর কোনো মানসিক রোগ নয়৷ এ ধরনের বস্তু থেকে সাধারণ মানুষের মনে কী ধরনের প্রতিক্রিয়া জাগে, সেটা নিয়েই ভ্যালেরির কৌতূহল৷

ভ্যালেরি কার্টিস আসলে নৃতত্ত্বে ডক্টরেট করেছেন এবং স্বাস্থ্যবিজ্ঞান ও আচরণ সম্পর্কে বিশেষজ্ঞ৷ তিনি বলেন, দৈনন্দিন জীবনে ঘেন্নাই আমাদের চালাচ্ছে৷ আমরা কী খাই, পরি, কিনি, এমনকি আমরা কাকে ভোট দিই এবং কাকে আমাদের ভালো লাগে, এ সবই নির্ভর করে ‘ঘেন্নার' উপর৷

বিজ্ঞান কিন্তু মানুষের এই বুনিয়াদি অনুভূতিটিকে তার প্রাপ্য গুরুত্ব দেয়নি৷ ঘেন্নাকে এককালে বলা হতো, ‘মনঃচিকিৎসার বিস্মৃত অনুভূতি'৷ অপরদিকে ভয়, প্রেম, ক্রোধ ইত্যাদি অনুভূতিগুলো চিরকালই গুরুত্ব পেয়েছে৷

কিন্তু ভ্যালেরি কার্টিস এবং তাঁর মতো আরো কিছু বিজ্ঞানী এখন প্রমাণ করার চেষ্টা করছেন যে, যৌনতা থেকে সমাজ বা স্রেফ বেঁচে থাকার জন্য ‘ঘেন্নার বিজ্ঞান' খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ ‘‘মানুষ নানা জিনিসকে ঘেন্না করে এটা না জেনেই যে, সেই ঘেন্না আমাদের দৈনন্দিন জীবনকে কতোভাবে প্রভাবিত করে,'' বলেছেন কার্টিস৷

যে সব বস্তু বা দৃশ্য দেখে মানুষ নাকে কাপড় দেয়, সে সব জিনিসে কার্টিসের আগ্রহের সূচনা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জনস্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করার ফলে৷ স্বাস্থ্যবিজ্ঞান ও সেই সংক্রান্ত আচরণ নিয়ে গবেষণার জন্য তিনি বাংলাদেশ, বুরকিনা ফাসো, চীন, ভারত. উগান্ডা, ভিয়েতনাম, ইন্দোনেশিয়া ও কিরগিজস্তানে গেছেন৷

ত্রিশ বছর ধরে গবেষণার অভিজ্ঞতা থেকে কার্টিস দেখেছেন যে, সারা বিশ্বে মানুষের একই রকম বস্তু দেখলে ঘেন্না হয়: শরীরের নানা বর্জ্য, পচে যাওয়া খাবারদাবার, যৌনতা সংক্রান্ত পদার্থ৷ যার অর্থ, আমাদের পূর্বপুরুষরা রোগ, পঙ্গুত্ব অথবা মৃত্যু এড়ানোর জন্য ঘেন্নার অনুভূতির সাহায্য নিতেন৷ যেমন ঘেন্নার ফলেই মানুষ অনেক কিছু খায় না এবং সেই পন্থায় রোগভোগ এড়ায়৷

ঘেন্না হল চোখ-কানের মতোই একটা ইন্দ্রিয়৷ তার থাকার একটা কারণ আছে, উদ্দেশ্য আছে৷ ঘেন্নাই বলে দেয়, কোন জিনিস ছোঁয়া উচিত নয়৷ আবার যাদের সঙ্গে আমরা সমাজে মেলামেশা করতে চাই, তাদের যাতে ঘেন্নার উদ্রেক না হয়, সেটা নিশ্চিত করার জন্যই আমরা সৌজন্যমূলক নানা সামাজিক বিধি ও রীতিনীতির আশ্রয় নিই৷ কাজেই ঘেন্না, অথবা ঘেন্না এড়ানো থেকেই মনুষ্যসমাজের সৃষ্টি, এ কথা বলতেও বাধা নেই৷

সবচেয়ে বড় কথা, ল্যাবোরেটরিতে এক্সপেরিমেন্ট করতে গেলে, ভয় কিংবা প্রীতির মতো অনুভূতি বাস্তবে উদ্রেক করা খুব সহজ কথা নয়৷ ঘেন্নার ক্ষেত্রে ব্যাপারটা আলাদা: একটা প্লেটের ওপর খানিকটা (‘বলতেও ঘেন্না লাগছে!') রেখে দিলেই হল৷

এসি/এসবি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন