1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ক্লাসরুমে থ্রিডি পদ্ধতিতে শিক্ষা

ব্ল্যাকবোর্ড, চক, বইখাতা – ক্লাসরুমে এককালে শুধু এ সবই দেখা যেত৷ এখন কম্পিউটার সহ আরও হাইটেক সাজ-সরঞ্জাম ঢুকে পড়েছে৷ ভবিষ্যতে থ্রিডি মডিউল এমনকি অঙ্ক ও বিজ্ঞানের মতো জটিল বিষয়ও অত্যন্ত সহজ ও মজার করে তুলতে পারে৷

অত্যন্ত দ্রুত গতির কম্পিউটার, থ্রিডি মনিটর ও ইন্টারনেটে ব্রডব্যান্ড সংযোগ৷ ‘সাইবার ক্লাসরুম' নামের থ্রিডি সফটওয়্যার চালাতে গেলে এই তিনটি জিনিস আবশ্যক৷ ছাত্রছাত্রীরা থ্রিডি চশমা পরে মনিটরের দিকে তাকিয়ে অঙ্ক, পদার্থবিদ্যা বা রসায়নের মতো শুকনো বিষয়কেও জীবন্ত করে তুলতে পারে৷ এমনভাবে শেখার মজাই আলাদা৷ সবকিছু সহজে মনে রাখা যায়৷ ফ্যুরস্টেনব্যার্গ হাই স্কুলের পড়ুয়া ফিলিপ ব্যুর্ক বলে, ‘‘রসায়নের ক্ষেত্রে পরমাণু তো আর চোখে দেখা যায় না৷ কিন্তু চারিদিকে নানা ধরনের ইলেকট্রন ভেসে বেড়ালে সেটা একেবারে অসাধারণ এক অভিজ্ঞতা৷ কারণ একঝাঁক পরমাণুর মাঝে দাঁড়িয়ে বিস্ময় জাগে৷''

মস্তিষ্ক যাতে নিজে থেকেই শিখতে পারে, তার জন্য মজা ও মোটিভেশন বা প্রেরণার প্রয়োজন৷ বিশেষ করে যে সব শিক্ষার্থী সহজে মনের মধ্যে কোনো বিষয়ের ত্রিমাত্রিক ছবি তৈরি করতে পারে না, থ্রিডি পদ্ধতিতে শিক্ষা তাদের সাহায্য করতে পারে৷ তাছাড়া এক্ষেত্রে পরোক্ষভাবে শুধু পড়া মুখস্ত করতে হয় না, নিজস্ব ছন্দ অনুযায়ী সরাসরি ইন্টারঅ্যাকটিভ পদ্ধতিতে শেখা সম্ভব৷

ফলে সহজেই বোঝা যায়, পারফরমেন্সও বেড়ে যায়৷ ফ্যুরস্টেনব্যার্গ হাই স্কুলের হেড মাস্টার মারিও মোসবাখার বলেন, ‘‘অঙ্কের ক্ষেত্রে প্রায়ই সমস্যা হয়, বিশেষ করে জ্যামিতি শেখার সময়৷ রেখা, কোণ, স্পেস – এ সব বইখাতায় শুধু দ্বিমাত্রিক অবস্থায় দেখা যায়৷ থ্রিডি অবস্থায় দেখতে পেলে আমি রদবদল করতে পারি, ছুঁয়ে দেখতে পারি, সব দিক থেকে দেখতে পারি৷ অঙ্কের জগতে ডুব দিয়ে সেখানে বিচরণ করতে পারি৷''

এই ‘ভিশুয়াল' শিক্ষা পদ্ধতি জার্মানির ব্ল্যাক ফরেস্ট এলাকার এক স্কুলে তৈরি করা হচ্ছে৷ সেখানে উৎসাহী শিক্ষক, পড়ুয়া, ইঞ্জিনিয়ার ও প্রোগ্রামার-দের এক দল বিশেষ ত্রিমাত্রিক শিক্ষার মডিউল তৈরির কাজ করছে৷ এই কাজে পড়ুয়াদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ৷ ক্লাসে প্রয়োগ করার আগে তারা প্রত্যেকটি মডিউল পরীক্ষা করে দেখে৷ ইমসিমিটি কোম্পানির প্রধান মার্টিন সিমারমান বলেন, স্কুল পড়ুয়ারা সেই সব প্রযুক্তি সম্পর্কে তাদের জ্ঞান বাড়াতে পারছে, যা তাদের দৈনন্দিন জীবনের অঙ্গ৷ গ্রাফিক কম্পিউটার, তার সঙ্গে মানানসই মনিটর, গেম কনসোলার-এর মতো ইন্টারঅ্যাকটিভ ডিভাইস এবার আর শুধু গেম খেলার জন্য নয়, জটিল বিষয় বুঝতেও কাজে লাগানো সম্ভব হচ্ছে৷''

প্রত্যেক লার্নিং মডিউল-এর জন্য নির্দিষ্ট লক্ষ্য ও কনটেন্ট স্থির করা হয়েছে৷ বিষয়বস্তু স্পষ্ট হলে তার মডেল তৈরি, প্রোগ্রামিং ও রূপায়ন করা হয়৷

সাইবার ক্লাসরুমের পাঠক্রমে সর্বাধুনিক বৈজ্ঞানিক জ্ঞান নিশ্চিত করতে মার্টিন সিমারমান বিভিন্ন গবেষণা কেন্দ্রের সহযোগিতায় কাজ করেন৷ যেমন হান-শিকার্ড সোসাইটি-র বিজ্ঞানীরা ঘরের মধ্যে ন্যাভিগেশনের বিশেষ জুতোর গুণাগুণ দেখাচ্ছেন৷ সেটি পরের থ্রিডি মডিউলে কাজে লাগতে পারে৷ তবে সবসময়ে পড়ুয়াদের আইডিয়া ও ফিডব্যাক নেওয়া হয়৷ মার্টিন সিমারমান বলেন, ‘‘উচ্চ পর্যায়ের গবেষণা যাতে স্কুলেও প্রয়োগ করা হয়, সেটা আমার কাছে অত্যন্ত জরুরি৷ সাইবার ক্লাসরুম সে ক্ষেত্রে এক প্ল্যাটফর্ম হতে পারে৷ আমরা স্কুল পড়ুয়াদের সঙ্গে বিজ্ঞানী ও গবেষকদের ভাবের আদান-প্রদানে উৎসাহ দিই৷ গবেষণার সর্বশেষ ফলাফল যাতে থ্রিডি মডিউলের মাধ্যমে বিজ্ঞানের ক্লাসে কাজে লাগানো যায়, সেই চেষ্টাও করি৷''

থ্রিডি পদ্ধতিতে শিক্ষার ক্ষেত্রে অগমেন্টেড রিয়ালিটি-ও পরীক্ষা করা হচ্ছে৷ ভবিষ্যতে শুধু হাত-পা নেড়েই এই থ্রিডি মডিইউলের সঙ্গে ইন্টারঅ্যাকশন করা যাবে৷ এভাবে শেখার ব্যবস্থার আরও উন্নতি করা যাবে৷

মার্টিন সিমারমান বলেন, ‘‘কার্লসরুয়ে শহরে শিক্ষক প্রশিক্ষণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে আমরা এক বড় সমীক্ষা শেষ করেছি৷ তাতে দেখা গেছে, যে সাইবার ক্লাসরুম প্রয়োগ করে পড়ুয়াদের কগনিটিভ বোঝার ক্ষমতা কয়েক গুণ বেড়ে গেছে৷''

নতুন থ্রিডি মডিইউলের মাধ্যমে শিক্ষা স্কুল-পড়ুয়াদের প্রেরণা, বোঝার ক্ষমতা ও পরীক্ষায় নম্বরও বাড়িয়ে দিতে পারে৷ তবে সেইসঙ্গে চাই উপযুক্ত শিক্ষাপদ্ধতি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়