1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

এমএইচ১৭ বিপর্যয় সংক্রান্ত রিপোর্ট প্রকাশিত

বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রিত পূর্ব ইউক্রেন থেকে নিক্ষিপ্ত একটি রকেটের আঘাতে মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের বিমানটি ভূপাতিত হয়েছে, বলে সিদ্ধান্ত করেছে নেদারল্যান্ডসের নেতৃত্বাধীন একটি তদন্ত গোষ্ঠী৷

ডাচ সেফটি বোর্ডের চেয়ারম্যান টিবে ইয়োউস্ত্রা খিলসে-রাইয়েন সামরিক বিমানঘাঁটিতে আয়োজিত একটি সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, ‘‘ককপিটের বাঁ দিকে, বিমানের বাইরে একটি রকেটবাহী ক্ষেপণাস্ত্র বিস্ফোরিত হওয়ার ফলে এমএইচ১৭ উড়ালটি ভূপাতিত হয়৷’’

ইয়োউস্ত্রা আরো বলেন, ‘‘এই ‘ওয়ারহেড’ ‘বুক’ মাটি-থেকে-আকাশ ক্ষেপণাস্ত্র প্রণালীর সঙ্গে মিলে যায়৷’’ তিনি একাধিক বার বলেন যে, তদন্তকারীরা ক্ষেপণাস্ত্রটির লঞ্চ সাইট বা নিক্ষেপের স্থান অবস্থান নিখুঁতভাবে নির্ধারণ করতে পারেননি৷ তবে রিপোর্টারদের যে সব ম্যাপ দেখানো হয়েছে, তা-তে দোনেৎস্ক-এর কাছে রাশিয়াপন্থি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের অধিকৃত রাজ্যাঞ্চল পরিষ্কারভাবে নির্দেশ করা হয়েছে৷

ভিডিও দেখুন 02:07



‘বুক’ মিসাইল নির্মাতা রাশিয়ার আলমাজ-আন্তাই কোম্পানি এ দিন সকালেই একটি সংবাদ সম্মেলন ডেকে তাদের নিজস্ব তদন্তের ফলাফল পেশ করে৷ তাদের মতে মিসাইলটি বিমানটিকে সামনের দিক থেকে আঘাত করেছিল৷ এছাড়া যে মিসাইলটি ব্যবহার করা হয়েছে, তা পুরনো মডেলের৷

অর্থাৎ বিতর্ক চলবে, আগে থেকেই যা প্রত্যাশা করা হচ্ছিল৷ রিপোর্ট বেরনোর কয়েক ঘণ্টা আগেই টুইট করেছিলেন স্টিভ রোজেনবার্গ৷ লিখেছিলেন, ‘‘এমএইচ১৭ সম্পর্কে আজ আমরা দু’টো রিপোর্ট শুনব: একটি হল্যান্ড থেকে, আরেকটি রাশিয়া থেকে৷ কিন্তু কে বিমানটিকে ভূপাতিত করেছে, তা নিয়ে রাশিয়া এবং পশ্চিমি দুনিয়ার মধ্যে মতানৈক্য চলবে৷’’



হাওয়ার্ড আমোস টুইট করেছেন, ‘‘নানা ধরনের লাল লাইন আর অ্যারো দিয়ে আলমাজ-আন্তাই প্রমাণ করার চেষ্টা করছে যে, বুক রকেটটি সামনে থেকে এমএইচ১৭ উড়ালটিতে ধাক্কা মারে৷’’



ডাচ সেফটি বোর্ডের রিপোর্ট যে দু’পক্ষের পারস্পরিক সন্দেহ ও দোষারোপকে থামাতে পারবে না, তা আগে থেকেই আন্দাজ করা গেছিল৷ জেরাল্ড হেনজেল টুইট করেছিলেন, ‘‘রাশিয়ান ট্রল ফ্যাকট্রিরা জেগে ওঠো৷ আজ এমএইচ১৭ সংক্রান্ত চূড়ান্ত রিপোর্ট পেশ হবে৷ কাজেই এখন আরো কিছু উদ্ভটে ষড়যন্ত্রের থিওরি ভেবে বার করার সময় এসেছে...৷’’



জুলিয়া ডেভিস টুইট করেছিলেন, ‘‘এমএইচ১৭ রিপোর্ট বের হওয়ার আগে থেকেই রুশ সংবাদমাধ্যম তাঁকে আক্রমণ করতে শুরু করেছিল৷ এ থেকেই বোঝা যায়৷ যদি তোমার দোষ থাকে তো হাত তোলো!’’



এসি/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স, এপি)

রিপোর্ট সংক্রান্ত ভিডিও-টা দেখলেন? মন্তব্য করুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন