1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আল জাজিরার সাংবাদিককে ছেড়ে দিলো জার্মানি

আল জাজিরার সাংবাদিক আহমেদ মনসুরকে শনিবার রাজধানী বার্লিন থেকে আটক করা হলেও, সোমবার দুপুর নাগাদ ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় জার্মানি৷ মনসুর অবশ্য প্রথম থেকেই দাবি করেন যে, তিনি নির্দোষ এবং তাঁকে আটক করা নিছক নীলনকশার অংশ৷

মিশর ও ব্রিটেনের নাগরিক আহমেদ মনসুরকে শনিবার বার্লিনের টেগেল বিমানবন্দর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ জার্মান পুলিশ জানায়, ৫২ বছর বয়সি এই সাংবাদিককে ইন্টারপোল খুঁজছে৷ মিশরে নির্যাতন মামলায় ১৫ বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত এ সাংবাদিককে ধরার জন্য সে দেশের সরকার ইন্টারপোলের সহায়তা চেয়েছে বলেও জানানো হয়৷ কিন্তু রবিবার এক ভিডিও বার্তায় আটককৃত সাংবাদিক দাবি করেন যে, তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগটি মিথ্যা এবং তিনি আশঙ্কা করেন, মিশর এবং জার্মান সরকারের আঁতাতের কারণেই তাঁকে আটক করা হয়েছে, ইন্টারপোল-এর অনুরোধে নয়৷ আল জাজিরার আরবি ভাষার ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ভিডিওতে আহমেদ মনসুর বলেন, ‘‘তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, আমাকে ইন্টারপোলের অনুরোধে গ্রেপ্তার করা হয়নি, অনুরোধটা নাকি জার্মান সরকারই করেছিল৷''

সম্প্রতি মিশরের প্রেসিডেন্ট মোহাম্মেদ আব্দেল ফাতাহ আল সিসি-র জার্মানি সফরে তাঁর বিষয়ে দু'দেশের মধ্যে আঁতাত হয়েছে বলে মনে করছেন আহমেদ মনসুর৷ ভিডিওতে জার্মান সরকার এবং ইন্টারপোল যে মিশরের বর্তমান সরকারের সহায়তাকারীর ভূমিকা পালন করছে – এ নিয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়েছে, মনসুর বলেছেন,

Demonstration Freiheit für Ahmed Mansour

বার্লিনে আহমেদ মনসুরের মুক্তির দাবিতে সমাবেশ হয়েছে, ফলও মিলেছে যার...

‘‘যারা অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করেছে, যাদের নেতৃত্ব দিচ্ছে সন্ত্রাসী আব্দেল ফাতাহ আল-সিসি, সেই রক্তচোষা সরকারের হাতের পুতুল জার্মান সরকার এবং ইন্টারপোল কীভাবে হতে পারে! দুই দেশের সরকারের মধ্যে যদি সত্যিই কোনো আঁতাত হয়ে থাকে সেটা নিশ্চয়ই খুব লজ্জাজনক৷''

রবিবার বার্লিনে আহমেদ মনসুরের মুক্তির দাবিতে সমাবেশ হয়৷ সমাবেশে অংশগ্রহণকারীরা মনে করেন, আহমেদ মনসুর নির্দোষ৷ এরপর সোমবার স্থানীয় সময় দুপুর নাগাদ মনসুরকে ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় জার্মানি৷ জার্মানির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানা যায় এ তথ্য৷

উল্লেখ্য, ২০১১ সালের গণবিক্ষোভের সময় তাহরির স্কয়ারে এক আইনজীবীকে নির্যাতন করার অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হন আহমেদ মনসুর৷ কিন্তু আল জাজিরার এই সাংবাদিককে ১৫ বছরের কারাদণ্ড দেয় মিশরীয় আদালত৷ শনিবার কাতারগামী একটি বিমানে ওঠার আগে টেগেল বিমানবন্দরে তাঁকে গ্রেপ্তার করে জার্মান পুলিশ৷ মিশরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সামেহ শুকরি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, মনসুরকে ফিরিয়ে দেয়ার জন্য ইন্টারপোলের সহায়তা চেয়েছিল তাঁর সরকার৷ মনসুর দেশে ফিরলেই তাঁকে শাস্তির আওতায় নেয়া হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি৷

এসিবি/ডিজি (এএফপি, এপি, ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন