৬৬ বছরে জানলেন ভুল, ভুল, ভুল... | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 06.06.2013
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞান পরিবেশ

৬৬ বছরে জানলেন ভুল, ভুল, ভুল...

১০ বছর বয়স থেকেই সমস্যা৷ বুঝতে পারেননি৷ সেটা বুঝলে ৬৬ বছর বয়সে এত অবাক হতে হতো না তাঁকে৷ তলপেট একটু ফুলে যাওয়ায় ডাক্তারের কাছে গেলেন, গিয়ে জানলেন পুরুষ হিসেবে জীবনের এতটা সময় পার করলেও তিনি আসলে মেয়ে!

হংকং মেডিক্যাল জার্নালে ছাপা হয়েছে এমন বিস্ময়কর এক প্রতিবেদন৷ দাড়ি-গোঁফ আছে, পুরুষাঙ্গও আছে – এমন একজন মেয়ে হন কী করে! চিকিৎসাশাস্ত্র বলছে, টার্নার সিন্ড্রোম বলে একটি ব্যাপার আছে, যা বড় সমস্যা হয়ে দেখা দেয় মেয়েদের জীবনে৷ আড়াই থেকে তিন হাজারের মধ্যে মাত্র একজন মেয়ের হতে পারে এমন সমস্যা৷ অথচ শুরুতে যা হয় তা কারো মনে সামান্য দুশ্চিন্তাও জাগাবে না৷ ক্রোমোজমে একটু গোলমালের কারণে সন্তান ধারণের ক্ষমতা হারানো, দেহের বৃদ্ধি স্বাভাবিক মাত্রায় না হওয়া – কম বয়সে এমন হলে তো কারো এ নিয়ে মাথাই ঘামানোর কথা নয়৷

Symbolbild Manneken Pis Brüssel

পুরুষাঙ্গও আছে, তবে সেটা খুবই ছোট (প্রতীকী ছবি)

ভিয়েতনামে জন্ম নেয়া হংকংয়ের এই নাগরিকও নাকি ১০ বছর বয়স থেকে আর লম্বা হচ্ছিলেন না৷ বাবা-মা নেই, অনাথ জীবনে এমন কেউ ছিলেন না যিনি এ সমস্যার কথা চিকিৎসককে গিয়ে বলবেন৷ মাঝে মাঝে আপনাআপনি প্রস্রাব হয়ে যেত৷ ওই অস্বাভাবিকতাকেও স্বাভাবিক ধরে নিয়ে নিশ্চিন্তে পার করে দিয়েছেন ৬৬টি বছর৷ অবশেষে একদিন চোখে পড়ে তলপেটটা যেন একটু ফোলা৷ সেটাও অন্য যে কাররই হতে পারে৷ এরপরেও তা নিয়ে চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে জানলেন, তিনি আসলে পুরুষ নন, মেয়ে৷

বয়স ৬৬ হলেও মাত্র সাড়ে চার ফুট লম্বা তিনি৷ দাড়ি-গোঁফ আছে৷ পুরুষাঙ্গও আছে, তবে সেটা খুবই ছোট৷ আর এসব আছে বলেই নিজেকে পুরুষ মনে করে করে কাটিয়ে দিয়েছেন এতগুলো বছর৷ তাই চিকিৎসাশাস্ত্র মতে ‘নারী' হলেও পুরুষ পরিচয়েই বাকি জীবন কাটাতে চান তিনি৷

এসিবি/ডিজি (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন