৬৪ বছরের তরুণী, এখনো যাঁর টান লাগেনি গাঁটে | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 10.09.2013
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

৬৪ বছরের তরুণী, এখনো যাঁর টান লাগেনি গাঁটে

‘‘হাঁটুতে আজ টান লেগেছে / টান লেগেছে গাঁটে গাঁটে'' – সে যুগে পড়ে থাকলে ডায়ানা নায়াড এখন আর সাহস আর শক্তির পরীক্ষায় সফল হয়ে তাক লাগাতে পারতেন না৷ ৬৪ বছর বয়সে ১৭৭ কিলোমিটার সাঁতার কেটেছেন তিনি! সবাই অবাক তো হবেই৷

কিন্তু অর্থোপেডিক সার্জন অ্যাঞ্জেলা স্মিথ খুব একটা অবাক নন৷ কবীর সুমন লিখতেই পারেন, ‘‘বয়স আমার মুখের রেখায়/শেখায় আজব ত্রিকোণমিতি/কমতে থাকা চুলের ফাঁকে/মাঝ বয়সের সংস্কৃতি...৷'' তাঁর জনপ্রিয় গানটিতেই আছে ‘‘হাঁটুতে আজ টান লেগেছে/টান লেগেছে গাঁটে গাঁটে/মধ্যবিত্ত শরীরে আজ/সময় শুধু ফন্দি আঁটে...৷'' ৬৪ বছর বয়সে ডায়ানা নায়াড যখন কিউবার রাজধানী হাভানা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের কি ওয়েস্ট-এ হাঙরের আক্রমণ থেকে বাঁচার কোনো ব্যবস্থা না রেখেই সাঁতরে যাবার ঘোষণা দিলেন, সবাই অবাক হয়েছিলেন, ভয়ও পেয়েছিলেন খুব৷ বয়স হলে মানুষ বাংলাদেশ বা ভারতের হোক, কিংবা যুক্তরাষ্ট্রের, হাঁটুতে টানতো লাগেই, শরীরও কাহিল হয়ে পড়ে৷ এ অবস্থায় ডায়ানা পারবেন হাঙরের আক্রমণ থেকে নিজেকে রক্ষা করার খাঁচা ছাড়াই সাঁতরে সাঁতরে ১৭৭ কিলোমিটার (১১০ মাইল) পাড়ি দিতে? পেরেছেন৷ ৫৩ ঘণ্টা সাঁতরে ঠিক পৌঁছে গেছেন ফ্লোরিডার কি ওয়েস্টে৷

US swimmer Diana Nyad (C) plays a bugle preparing for her departure from the Ernest Hemingway Nautical Club in Havana on August 18, 2012 . Veteran US endurance swimmer Diana Nyad announced that she will try to swim the treacherous waters from Cuba to Florida without a shark cage. AFP PHOTO/ADALBERTO ROQUE (Photo credit should read ADALBERTO ROQUE/AFP/GettyImages)

ডায়ানা নায়াড

প্রশংসা হচ্ছে অনেক৷ যে বয়সে অনেকেই অবসর জীবন শুরুর কথা ভাবেন, তখন এমন অসাধ্য সাধন করলে অবাক হওয়াই স্বাভাবিক৷ কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের অর্থোপেডিক সার্জন অ্যাঞ্জেলা স্মিথ অবাক নন৷ তাঁর মতে, আধুনিক বিশ্বে অনেক কিছুই বদলে গেছে৷ বয়সের কাছে হার না মেনে জীবন উপভোগ করার ইচ্ছে পূরণ করতে মানুষ আগের চেয়ে অনেক বেশি স্বাস্থ্য সচেতন৷ সে কারণে আগের চেয়ে শুধু দীর্ঘায়ুই হচ্ছেনা,অনেকে অনেক বছর বেঁচে থাকছে সুস্থ-সবল শরীর নিয়ে৷ ক্রীড়াঙ্গনে এমন নজীর আছে ভূরি ভূরি৷

এ বছর ৪৮ বছর বয়সে আইবিএফ লাইট হেভিওয়েট বক্সিংয়ে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়েছেন বার্নার্ড হপকিন্স৷ ২০০৬ সালে মার্টিনা নাভ্রাতিলোভা টেনিসে ইউএস ওপেনের মিক্সড ডাবলস জিতেছিলেন বয়স ৫০ হওয়ার পর৷ ডায়ানা নায়াড অবশ্য তাঁদের সবাইকেই ম্লান করে দিয়েছেন৷ নিউ ইয়র্কের ‘চিরতরুণী' কিন্তু পঞ্চম চেষ্টায় হাভানা থেকে কি ওয়েস্টে গিয়েই থামছেন না৷ এবার নাকি ঘূর্ণিঝড় স্যান্ডির আঘাতে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় অর্থ সংগ্রহের জন্য টানা ৪৮ ঘণ্টা সাঁতরানোর জন্য আবার নামবেন পানিতে৷ ‘স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল৷' আর সাফল্যের মূল চাবিকাঠি কী বলুন তো? বয়সোপযোগী খাদ্যাভ্যাস, পরিমিত বিশ্রাম এবং নিয়মিত ,৷ এই নিয়ম মানলে বয়স বাড়লেএ হাঁটুতে, গাঁটে গাঁটে টান লাগবে না৷

এসিবি/এসবি (এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন